Coronavirus Hospital: বিয়েবাড়িই এখন করোনার সেফ হোম, নিখরচায় মিলছে খাবার, চিকিৎসা

বর্তমানে এখানে ন’জন রোগী রয়েছেন। পুর প্রশাসক বলেন, এই ৩০ বেডের সেফ হোম চালানোর পাশাপাশি পৌরসভার পক্ষ থেকে বাসিন্দাদের সচেতন করতে বিভিন্ন দলে বিভক্ত হয়ে মাইকে প্রচার চালাচ্ছেন পুর কর্মীরা।

বর্তমানে এখানে ন’জন রোগী রয়েছেন। পুর প্রশাসক বলেন, এই ৩০ বেডের সেফ হোম চালানোর পাশাপাশি পৌরসভার পক্ষ থেকে বাসিন্দাদের সচেতন করতে বিভিন্ন দলে বিভক্ত হয়ে মাইকে প্রচার চালাচ্ছেন পুর কর্মীরা।

  • Share this:

#পূর্ব বর্ধমান: ছিল স্থায়ী বিয়ে বাড়ি (Marriage Hall turns into corona safe home)। তাকেই আপাতত করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসার জন্য খুলে দিল পূর্ব বর্ধমান জেলার (Purba Burdwan) কালনা পৌরসভা। নামে সেফ হোম হলেও সেখানে রয়েছেন সর্বক্ষণের চিকিৎসক নার্স। ঘড়ি ধরে রোগীদের পরিস্থিতির ওপর নজর রাখা হচ্ছে। ওষুধ পথ্য দেওয়া হচ্ছে। তৈরি করা হচ্ছে অক্সিজেনের পরিকাঠামোও (Oxygen)। সব মিলিয়ে কালনার উত্তরণ লজ এখন একরকম তিরিশ বেডের (30 bed corona hospital) করোনা হাসপাতালে রূপান্তরিত হয়েছে। এখানে করোনার উপসর্গ নিয়ে যাঁরা আসছেন তাঁদের সব রকমের চিকিৎসার ব্যবস্থা ও নিখরচায় খাওয়া-দাওয়ার ব্যবস্থাও করা হয়েছে। পুরসভার এই উদ্যোগকে যথোচিত ও সময়োপযোগী বলে মনে করছেন শহরের বাসিন্দারা।

পূর্ব বর্ধমান জেলার অন্যান্য অংশের পাশাপাশি করোনার (Corona Second Wave) দ্বিতীয় ঢেউয়ে বেসামাল গঙ্গাতীরের মন্দির শহর কালনাও। প্রতিদিনই কালনা শহর ও তার আশপাশ এলাকায় ব্যাপক সংখ্যায় করোনা আক্রান্তের হদিশ মিলছে। অনেকেই চিকিৎসার জন্য সরকারি হাসপাতালে জায়গা পাচ্ছেন না। আবার করোনা আক্রান্ত হয়ে বাড়িতে দূরত্ব বজায় রেখে থাকার মতো পরিকাঠামোও অনেকের নেই। বাড়িতে থাকলেও শ্বাসকষ্ট (Dyspnea) শুরু হলে অক্সিজেনসহ উপযুক্ত চিকিৎসা পরিকাঠামো সময়ে মিলবে কিনা তা নিয়েও চিন্তিত অনেকেই।

আরও পড়ুন COVID19 East Burdwan: বাড়ছে মৃত্যু, পূর্ব বর্ধমান জেলায় ফের একদিনে আক্রান্ত সাড়ে আটশো

ঠিক সেই মুহূর্তে করোনা চিকিৎসায় সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে কালনা পৌরসভা কর্তৃপক্ষ। তাদের উত্তরণ লজকে করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসার জন্য খুলে দেওয়া হয়েছে। এই সেফ হোমে ৩০ জন উপসর্গ থাকা করোনা আক্রান্তকে রাখার পরিকাঠামো তৈরি করা হয়েছে। কালনা মহকুমা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ এখানে চিকিৎসা পরিষেবার ব্যবস্থা করেছে। মেডিকেল অফিসার ছাড়াও সর্বক্ষণের জন্য নার্সের ব্যবস্থা করা হয়েছে এখানে। দুবেলা স্বাস্থ্যসম্মত খাবার সরবরাহে দায়িত্ব নিজের কাঁধে রেখেছে পুরসভা কর্তৃপক্ষ।

কালনার পুরাতন বাসষ্ট্যান্ড এলাকায় তৈরি করা হয়েছিল উত্তরণ লজ। বিয়ে সহ বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠান, সভার জন্য এই লজ বছরের অন্যান্য সময় ভাড়া দিয়ে থাকে পৌরসভা। কালনার পৌর প্রশাসক অংশুমান বসু বলেন, এখানে কুড়ি জন পুরুষ ও দশ জন মহিলা করোনা আক্রান্তকে রাখার পরিকাঠামো তৈরি করা হয়েছে। প্রয়োজনীয় সব চিকিৎসা পরিষেবা এখানে মিলছে। প্রয়োজনে অক্সিজেন দেওয়ার পরিকাঠামো দ্রুত তৈরি করে ফেলার চেষ্টা চালানো হচ্ছে। বর্তমানে এখানে ন’জন রোগী রয়েছেন। পুর প্রশাসক বলেন, এই ৩০ বেডের সেফ হোম চালানোর পাশাপাশি পৌরসভার পক্ষ থেকে বাসিন্দাদের সচেতন করতে বিভিন্ন দলে বিভক্ত হয়ে মাইকে প্রচার চালাচ্ছেন পুর কর্মীরা। খুব সকালে চলছে এলাকার স্যানিটাইজেশনের কাজ।

Published by:Pooja Basu
First published: