corona virus btn
corona virus btn
Loading

পাহাড়ে দুঃস্থ, গরিবদের মুখে খাবার তুলে দিচ্ছে কালিম্পং পুরসভা

পাহাড়ে দুঃস্থ, গরিবদের মুখে খাবার তুলে দিচ্ছে কালিম্পং পুরসভা
  • Share this:

#কালিম্পং: করোনার কোপ এসে পড়েছে পাহাড়েও। কালিম্পংয়ের এক মহিলার মৃত্যু হয়েছে। চেন্নাই থেকে ফিরে অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। গত ২৮ মার্চ তাঁর করোনা পজিটিভের রিপোর্ট আসে নাইসেড থেকে। দু'দিনের মাথায় ৩০ মার্চ উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের রিকু ওয়ার্ডে তাঁর মৃত্যু হয়। তাঁর সংস্পর্ষে আসা ১১ জনের সোয়াব পরীক্ষার নমুনাও পজিটিভ এসছে। তাঁদেরকে শিলিগুড়ির মাটিগাড়ায় কোভিড ১৯ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

মৃতার আরো আত্মীয় ও পরিচিতদের কোয়ারান্টান সেন্টারে রাখা হয়েছে। এর জেরে করোনা আতঙ্ক ছড়িয়েছে কালিম্পংয়ে। ইতিমধ্যেই সেখানে কোয়ারান্টান সেন্টার খোলা হয়েছে। নতুন করে কালিম্পং জেলা হাসপাতালের পাশে আরো একটি ৪০ বেডের সেন্টার খোলা হয়েছে। জিটিএ'র চেয়ারম্যান অনীত থাপা নিজেই রয়েছেন কালিম্পংয়ে। সাধারন মানুষকে আতঙ্কিত নয়, সতর্ক থাকবার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। মারণ নোভেল করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে স্বাস্থ্য দপ্তরের নির্দেশ মেনে চলার পরামর্শ দিয়ে চলেছেন তিনি। তবুও আতঙ্কের রেশ কাটছে না। লকডাউনের ভালোই প্রভাব পড়েছে কালিম্পংয়ে। নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র, রেশন, বাজার নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত খোলা থাকছে। আর এই লকডাউনের জেরে সমস্যায় পাহাড়ের বহু মানুষ। গাড়ি চালক থেকে ছোটো ছোটো ব্যবসায়ী, ভবঘুরেরা সমস্যার কবলে। যাদের দু'বেলা খাবার জুটছে না। কিছু বেসরকারী সংগঠন, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ইতিমধ্যেই পথে নেমেছে। আজ থেকে পথে নামলো কালিম্পং পুরসভা। একটি বেসরকারী মিষ্টি প্রস্তুতকারী সংস্থার সহযোগিতায় পুরসভা খাবার বিলি প্রক্রিয়া শুরু করলো। নিজেরাই রান্না করে খাবার তৈরী করছে। তারপর তা প্যাকেট করে বিলি শুরু করেছে পুরসভা। পুরসভার চেয়ারম্যান রবি প্রধান জানান, প্রথম দিনে ৫০০ জন দুঃস্থকে খাবার বিলি করা হয়। ধারাবাহিকভাবে এই প্রক্রিয়া চলবে। পাহাড়ে কাজ করতে আসা বহু শ্রমিক আটকে পড়েছে। তাদের হাতে খাবার তুলে দেওয়া হয়। সেইসঙ্গে বিভিন্ন ওয়ার্ডেও ঘুরে ঘুরে গরিবদের হাতে পৌঁছে দেওয়া হয় খাবার। শহরে চারটি সেন্টার থেকে খাবার বিলি চলছে।

Partha Sarkar

Published by: Debalina Datta
First published: April 8, 2020, 5:31 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर