বিনামূল্যে পরিষেবা, গোলাপি শহরের ভবঘুরে ভিক্ষুকরা এ বার রেঁধে খাওয়াবেন কোভিড আক্রান্তদের

তাঁরা রান্না করবেন ৷ তার পর সেই খাবার নিজেরাই পৌঁছে দেবেন শহরের প্রায় ৪ হাজার কোভিড আক্রান্তের কাছে ৷ সম্পূর্ণ নিখরচায় এই পরিষেবা পাবেন রোগীরা ৷

তাঁরা রান্না করবেন ৷ তার পর সেই খাবার নিজেরাই পৌঁছে দেবেন শহরের প্রায় ৪ হাজার কোভিড আক্রান্তের কাছে ৷ সম্পূর্ণ নিখরচায় এই পরিষেবা পাবেন রোগীরা ৷

  • Share this:

    অতিমারির বিষাদসিন্ধু পেরিয়েও কিছু ভাল খবর আসে আশার আলো নিয়ে ৷ সেরকমই এক ছবি ধরা পড়েছে রাজস্থানের জয়পুরে ৷ স্থানীয় পুলিশের উদ্যোগে বেছে নেওয়া হয়েছে ৪০ জন ভবঘুরেকে ৷ তাঁরা রান্না করবেন ৷ তার পর সেই খাবার নিজেরাই পৌঁছে দেবেন শহরের প্রায় ৪ হাজার কোভিড আক্রান্তের কাছে ৷ সম্পূর্ণ নিখরচায় এই পরিষেবা পাবেন রোগীরা ৷

    গৃহহীন এই ভবঘুরেরা মূলত ভিক্ষাবৃত্তি করতেন গোলাপি শহরের রাজপথে৷ পুলিশই তাঁদের চিহ্নিত করেছে ৷ তার পর তাঁদের মধ্যে থেকে ৪0 জনকে বেছে নিয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে ৷ এই উদ্যোগ রাজস্থান স্কিল অ্যান্ড লাইভলিহুডস ডেভলপমেন্ট কর্পোরেশনের ৷ অভিনব এই উদ্যোগে এ বার উপকৃত হবেন অসংখ্য কোভিড রোগী ৷

    ভবঘুরেদের চিহ্নিত করে প্রশিক্ষিত করার পর্ব শুরু হয়েছে জানুয়ারি থেকে ৷ বিভিন্ন শিফ্টে ভাগ করে দেওয়া হয়েছে তাঁদের কাজ৷ প্রতি শিফ্টে ১০ জন করে রান্নাঘর সামলাচ্ছেন ৷ বাকিরা খেয়াল রাখছেন খাবার পৌঁছে দেওয়া-সহ অন্য কাজে ৷

    এই উদ্যোগে সামিল স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাও ৷ তারা জানিয়েছে, ভবঘুরেদের মানসিক পরিবর্তন ধরা পড়েছে তাঁদের কাজেও ৷ আগে তাঁরা নিজেরাই হাত পাততেন খাবার বা অর্থের জন্য ৷ এখন তাঁদের জন্যই খেতে পাবেন আর্তরা ৷ সেবামূলক এই কাজের জন্য কোনও পারিশ্রমিকও চাননি ভবঘুরেরা ৷

    সম্পূর্ণ কোভিডবিধি মেনে কাজ করছেন ভবঘুরেরা ৷ নিয়মিত পরীক্ষা করা হচ্ছে তাঁদের স্বাস্থ্যও ৷ উদ্যোক্তাদের কথায়, প্রথম দিকে তাঁদের দিয়ে কাজ করাতে কিছুটা সমস্যা হয়েছে ৷ তবে যত দিন এগিয়েছে, তাঁরা নিজেরাই স্বতস্ফূর্ত হয়ে কাজ করেছেন ৷ সেবার মনোভাবও দেখা দিয়েছে তাঁদের মধ্যে ৷

    Published by:Arpita Roy Chowdhury
    First published: