করোনার 'একমাত্র কার্যকর দাওয়াই', বিশ্বের বাজারে রেমডেসিভির পৌঁছে দেবে এক ভারতীয় সংস্থা

বিশ্বের ১২৭টি দেশে রেমডেসিভির পৌঁছে দেবে ভারত।

দিন কয়েক আগেই কেন্দ্রীয় স্বাস্থমন্ত্রী জানান দেশে রেমডিসিভিরের ১০০০ ডোজ নিয়ে ট্রায়াল শুরু করেছে ভারত। আইসিএমআর ও সিএসআইআর-এর গবেষকরা এই ওষুধের ট্রায়াল শুরু করে।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: এখনও করোনার কোনও ভ্যাকসিন বাজারে আসেনি। অনেকেই আশায় বুক বাঁধছেন, ভ্যাকসিন আসতে পারে সেপ্টেম্বরের মধ্যে। ততদিন সামাজিক দূরত্ব রক্ষা ছাড়া আর কোনও উপায়ই দেখছেন না বিজ্ঞানীরা। তবে দিন কয়েক ধরেই মার্কিন বিজ্ঞানীরা সওয়াল করছেন রেমডেসিভির ড্রাগটি নিয়ে। তাঁদের দাবি, এই ড্রাগটি করোনা আক্রান্তেরর শরীরে অন্যান্য ওষুধের তুলনায় ৩০ শতাংশ বেশি কার্যকর হয়। এই আবহে মঙ্গলবার এই রেমডেসিভির বিশ্বের বাজারে পৌঁছে দেওয়ার দায়িত্ব নিল এক ভারতীয় সংস্থা। জুবিল্যান্ট লাইফ সাইন্স নামক সংস্থাটি রেমডিসিভিরের উৎপাদক গিলিয়েড সাইন্স ইনক নামক সংস্থার সঙ্গে একটি চুক্তিতে আবদ্ধ হয়েছে মঙ্গলবার। চুক্তি অনুযায়ী, ভারত-সহ বিশ্বের ১২৭টি দেশে এই ওষুধ পৌঁছে দেবে এ ই সংস্থাটি।

    জুবিল্যান্ট লাইফ সাইন্সের দুই কর্ণধার শ্যাম ভারতী ও হরি ভারতী সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, " আমরা চোখ রাখছি রেমডেসিভিরের ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে। পাশাপাশি কী ভাবে সরকারি ছাড়পত্র পাওয়া যায় তাও দেখা যায়। খুব শিগগির ভারতের বাজারে এই ওষুধের দেখা মিলবে। শুধু তাই নয়, খরচ বাঁচাতে আমরা এই ওষুধের এপিআই বা অ্যাকটিভ ফারমাসিউটিক্যাল ইনগ্রেডিয়েন্টস দেশেই বানাব।"

    দিন কয়েক আগেই কেন্দ্রীয় স্বাস্থমন্ত্রী জানান দেশে রেমডিসিভিরের ১০০০ ডোজ নিয়ে ট্রায়াল শুরু করেছে ভারত। আইসিএমআর ও সিএসআইআর-এর গবেষকরা এই ওষুধের ট্রায়াল শুরু করে। পাশাপাশি বাংলাদেশও এই ওষুধটি বাজারে নিয়ে আসে। ওই দেশের ওষুধ প্রস্তুতকারী সংস্থা এসকেএফ ফার্সাসিউটিক্যালস লিমিটেড রেমডিসিভর ওষুধটি প্রথম তৈরি করে।মার্কিন প্রশাসন রেমডিসিভির অনুমোদন করার দিয়েছিল ২৯ এপ্রিল। তার পরে এই ওষুধটি রোগীদের উপর প্রয়োগের অনুমতি দিয়েছে জাপানও।

    Published by:Arka Deb
    First published: