Coronavirus Update: একদিনে দেশজুড়ে করোনায় আক্রান্ত ৬২,৭১৪, গত ৫ মাসে সর্বোচ্চ!

Coronavirus Update: একদিনে দেশজুড়ে করোনায় আক্রান্ত ৬২,৭১৪, গত ৫ মাসে সর্বোচ্চ!

দেশজুড়ে করোনার (Covid-19) দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হওয়ার পর থেকে প্রতিদিনই বাড়ছে সংক্রমণ ও মৃতের সংখ্যা।

গত তিন মাসে মৃত্যুর সংখ্যাও এদিন সর্বাধিক। একদিনে দেশে করোনার জেরে মৃত্যু হয়েছে ৩১২ জনের। এখনও পর্যন্ত দেশে করোনার জেরে মৃতের সংখ্যা ১,৬১,৫৫২ জন। এই মুহূর্তে দেশে অ্যাক্টিভ করোনা রোগীর সংখ্যা একদিনে বেড়ে গিয়েছে ৩৩,৬৬৩ জন।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: ফের ভয়াবহ রূপ নিয়েছে ভারতের করোনাভাইরাস (Corona) পরিস্থিতি। দেশজুড়ে করোনার (Covid-19) দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হওয়ার পর থেকে প্রতিদিনই বাড়ছে সংক্রমণ ও মৃতের সংখ্যা। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের রিপোর্ট অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশজুড়ে করোনায় সংক্রামিত হয়েছেন ৬২ হাজার ৭১৪ জন। গত পাঁচ মাসে এটাই সর্বোচ্চ সংক্রমণ বলে জানানো হয়েছে। গত ১৮ দিন ধরে ১.১৯ কোটি মানুষের করোনার সংক্রমণ হয়েছে। গত বছরের অক্টোবরে দেশজুড়ে ধরা পড়েছিল ৬৩ হাজার ৩৭১ জন।

    গত তিন মাসে মৃত্যুর সংখ্যাও এদিন সর্বাধিক। একদিনে দেশে করোনার জেরে মৃত্যু হয়েছে ৩১২ জনের। এখনও পর্যন্ত দেশে করোনার জেরে মৃতের সংখ্যা ১,৬১,৫৫২ জন। এই মুহূর্তে দেশে অ্যাক্টিভ করোনা রোগীর সংখ্যা একদিনে বেড়ে গিয়েছে ৩৩,৬৬৩ জন। মোট সংখ্যা ৪,৮৬,৩১০ জন। দেশে এখনও পর্যন্ত করোনা থেকে সেরে উঠেছেন ১.১৩ কোটি মানুষ। সুস্থতার হার কমেছে ৯৪.৫৮ শতাংশ। মৃতের হার রয়েছে ১.৩৫ শতাংশে।

    গতকালই দেশের রাজধানীর স্বাস্থ্যমন্ত্রী সত্যেন্দ্র জৈন বলেছেন, করোনা মোকাবিলায় লকডাউন কোনও পথ নয়। বরং এই ভাইরাসকে নিয়েই বাঁচতে হবে মানুষকে। স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেছেন, 'লকডাউন করোনা মোকাবিলার সুরাহা নয়। আমাদের বরং করোনার সঙ্গেই বেঁচে থাকতে হবে।' ২০২০ সালের মে মাসে দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালও এই কথাটিই বলেছিলেন। শনিবার দিল্লির স্বাস্থ্যমন্ত্রী সত্যেন্দ্র জৈন বলেছেন, 'লকডাউন হওয়ার কোনও সম্ভবনাই নেই। ইতিমধ্যেই লকডাউন হয়েছে এবং সেটার পিছনে যথেষ্ট কারণ ছিল। তখন কেউ জানতেন না যে কীভাবে করোনা ছড়াবে। তখন বলা হয়েছিল ১৪ দিনের সার্কেলে সংক্রমণ শেষ হবে। বিশেষজ্ঞরা সেই সময় বলেছিলেন ২১ দিন ঘরবন্দি থাকলে ভাইরাস ছড়ানো বন্ধ হয়ে যাবে। তার ফলে দীর্ঘদিন ধরেই লকডাউন করা হয়েছিল। কিন্তু করোনাভাইরাসকে আটকানো যায়নি। তাই আমার মনে হয় লকডাউন কোনও সুরাহা নয়।'

    তিনি আরও জানিয়েছেন, সংক্রমণের পরিমাণ বেড়ে যাওয়ার ফলে পরীক্ষার পরিমাণও বাড়ানো হয়েছে। প্রতিদিন প্রায় ৮৫ থেকে ৯০ হাজার পরীক্ষা করা হচ্ছে। কন্ট্যাক্ট ট্রেসিং করে আইসোলেশনে পাঠানো হচ্ছে তাঁদেরকে। গত ২৪ ঘণ্টায় দিল্লিতে নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ১৫৩৪ জন। সুস্থ হয়েছেন ৯৭১ জন। একদিনে মৃত্যু হয়েছে ৯ জনের।

    Published by:Raima Chakraborty
    First published: