corona virus btn
corona virus btn
Loading

COVID-19: পূর্ব বর্ধমানে পরীক্ষা না হয়ে পড়ে রয়েছে হাজার হাজার নমুনা ! উদ্বেগ চরমে

COVID-19: পূর্ব বর্ধমানে পরীক্ষা না হয়ে পড়ে রয়েছে হাজার হাজার নমুনা ! উদ্বেগ চরমে
Representational Image

এই জেলায় কী ভাবে বকেয়া সেই নমুনা পরীক্ষা করা হবে তাও ভেবে উঠতে পারছেন না জেলা প্রশাসন বা স্বাস্থ্য দফতরের আধিকারিকদের অনেকেই।

  • Share this:

#বর্ধমান: প্রতিদিনই বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। তা নিয়ে উদ্বিগ্ন পূর্ব বর্ধমান জেলার বাসিন্দারা। অথচ সেভাবে করোনার পরীক্ষা না হওয়ায় ক্ষোভ বাড়ছে জেলার বাসিন্দাদের মধ্যে। করোনার পরীক্ষা নিয়ে কার্যত এখন দিশেহারা অবস্থা জেলা প্রশাসনের। প্রতিদিনই নমুনা সংগ্রহ হলেও সেভাবে পরীক্ষা হচ্ছে না। নমুনার পাহাড় জমে গিয়েছে। হাজার হাজার নমুনা পরীক্ষা না হয়েই পড়ে রয়েছে। এই জেলায় কী ভাবে বকেয়া সেই নমুনা পরীক্ষা করা হবে তাও ভেবে উঠতে পারছেন না জেলা প্রশাসন বা স্বাস্থ্য দফতরের আধিকারিকদের অনেকেই।

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, এখনও পর্যন্ত ৯৩১৩টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। তার মধ্যে পরীক্ষা করা হয়েছে ৫১৫৭টি। অর্থাৎ ৪১৬০টি  নমুনা এখনও পরীক্ষা না হয়ে পড়ে রয়েছে। জেলা প্রশাসনের এক আধিকারিক জানান, প্রতিদিনই গড়ে পাঁচশো-ছশো করে নমুনা সংগ্রহ হচ্ছে। অথচ সেইসব নমুনার বেশিরভাগই পরীক্ষা করা যাচ্ছে না। নমুনা পরীক্ষা না হওয়ায় যাদের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে তারা করোনা আক্রান্ত  কিনা তাও বোঝা যাচ্ছে না। স্বাস্থ্য দফতরের এক আধিকারিক জানান,  চব্বিশ ঘণ্টার বেশি সময় পার হয়ে গেলে  নমুনা নষ্ট হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা থেকে যাচ্ছে। সেই নমুনাকে ঠিক রাখতে তা ৮০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় সংরক্ষণ করা জরুরি। কিন্তু এই হাজার হাজার নমুনা সেই তাপমাত্রা মেপে সংরক্ষণ করা যাচ্ছে না। তাই প্রচুর নমুনা নষ্ট হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা থেকেই যাচ্ছে। অবস্থা আয়ত্বের বাইরে চলে যাওয়ায় মুখে কুলুপ এঁটেছেন জেলা স্বাস্থ্য দফতর থেকে জেলা প্রশাসনের অনেক আধিকারিকই।

প্রতিদিন বর্ধমান মেডিক্যাল, আর জি কর হাসপাতাল ও দুর্গাপুরের সনকা হাসপাতাল মিলিয়ে সাড়ে তিনশো,চারশো নমুনার পরীক্ষা হচ্ছে। সেখানে জেলার আটটি কেন্দ্র থেকে গড়ে ছশোর বেশি নমুনা সংগ্রহ হচ্ছে। পরীক্ষা পরিকাঠামো এখনও বাড়ানো হয়নি। সে কারনে যে সংখ্যক নমুনা সংগ্রহ হয়েছে তার প্রায় অর্ধেক নমুনা পরীক্ষা না হয়ে পড়ে রয়েছে। এই অবস্থা চলতে থাকলে দু-তিন দিন পর বিষয়টি ধরা ছোঁয়ার বাইরে চলে যাবে বলে আশংকা করা হচ্ছে। জেলা প্রশাসনের এক আধিকারিক জানান, আগামী কয়েকদিনে আরও বেশ কয়েক হাজার বাসিন্দা ভিন রাজ্য থেকে জেলায় ফিরবেন। পরীক্ষা পরিকাঠামো বাড়ানো না গেলে পরীক্ষা না হওয়া নমুনার সংখ্যা আরও কয়েক গুন বেড়ে যাবে।

স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, যে সংখ্যক নমুনা পরীক্ষা  হয়েছে তাতেই প্রতিদিন চার পাঁচ জন করে করোনা পজিটিভের হদিশ মিলছে। তাদের বাড়ি থেকে তুলে আনা হচ্ছে। তাহলে যে চার হাজারেরও বেশি নমুনা পরীক্ষা না হয়ে পড়ে রয়েছে তাতেও অনেকের পজিটিভ হওয়ার সম্ভাবনা। রিপোর্ট না আসায় তারা কিন্তু এলাকায় রয়েছেন। তাদের মাধ্যমে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা থেকেই যাচ্ছে। এখনও পর্যন্ত তাঁদেরই  নমুনা সংগ্রহ হয়েছে যাঁরা ভিন রাজ্য থেকে এসেছেন বা আক্রান্তদের সংস্পর্শে এসেছেন। সুতরাং তাঁদের অনেকেরই করোনা পজিটিভ রিপোর্ট আসার সম্ভাবনা বেশি। তাদের নমুনাই পরীক্ষা না হয়ে পড়ে থাকাটা যথেষ্টই উদ্বেগের বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

শরদিন্দু ঘোষ

Published by: Siddhartha Sarkar
First published: May 25, 2020, 4:55 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर