• Home
  • »
  • News
  • »
  • coronavirus-latest-news
  • »
  • HEALTH DEPARTMENT STAFF WHO WAS IN CHARGE OF DISTRIBUTION OF MASK AND PPE TO ALL GOVERNMENT HOSPITALS NOW INFECTED WITH CORONA ED

রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরেও এবার করোনা আতঙ্ক, রাজ্যের সব সরকারি হাসপাতালে PPE ও মাস্ক সরবরাহের দায়িত্বে থাকা অধিকর্তা সংক্রমিত

চিন্তিত স্বাস্থ্য দফতর। কেননা বহু স্বাস্থ্যকর্মী এবং স্বাস্থ্য দফতরের কর্তারা তার সংস্পর্শে এসেছিল। প্রত্যেককে চিহ্নিত করার চেষ্টা করা হচ্ছে।

চিন্তিত স্বাস্থ্য দফতর। কেননা বহু স্বাস্থ্যকর্মী এবং স্বাস্থ্য দফতরের কর্তারা তার সংস্পর্শে এসেছিল। প্রত্যেককে চিহ্নিত করার চেষ্টা করা হচ্ছে।

  • Share this:

#কলকাতা: রাজ্যে এবার চিকিৎসক,নার্স,স্বাস্থ্যকর্মীদের পর খোদ রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের শীর্ষ কর্তা করোনা আক্রান্ত। স্বাস্থ্য দফতরের সেন্ট্রাল মেডিক্যাল স্টোর বা সি এম এস এর দায়িত্বে থাকা সহকারী স্বাস্থ্য অধিকর্তা পদের ওই ব্যক্তি গত ৯  এপ্রিল থেকে অসুস্থতা বোধ করতে শুরু করেন। সোমবার থেকে তিনি শিয়ালদহতে সেন্ট্রাল মেডিক্যাল স্টোর এর অফিস আসা বন্ধ করেন। এরপর তিনি বেহালায় তার নিজের বাড়িতেই আলাদা করে কোয়ারেন্টাইনে বা গৃহ পর্যবেক্ষনে থাকতে শুরু করে। এরপর তার করোনা উপসর্গ শুকনো কাশি,মাথা ব্যথা, জ্বর দেখা দেওয়ায় তার লালা রসের নমুনা পরীক্ষার জন্য এস এস কে এম হাসপাতালে পাঠানো হয়। শুক্রবার সেই রিপোর্ট পজিটিভ আসে।

আকাশ ভেঙে পড়ে স্বাস্থ্য ভবনে। দ্রুত ওই শীর্ষ আধিকারিককে বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এই মুহূর্তে করোনা আক্রান্ত ওই স্বাস্থ্য কর্তার শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল রয়েছে বলে জানিয়েছেন বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালের চিকিৎসকরা। যদিও করোনা আক্রান্ত এই স্বাস্থ্য কর্তা সেন্ট্রাল মেডিক্যাল স্টোরে, গোটা রাজ্যের বিভিন্ন সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসক,নার্স,স্বাস্থ্যকর্মীদের পার্সোনাল প্রটেকটিভ ইকুইপমেন্ট বা পিপিই সরবরাহের দায়িত্বে থাকায় চিন্তিত স্বাস্থ্য দফতর। কেননা বহু স্বাস্থ্যকর্মী এবং স্বাস্থ্য দফতরের কর্তারা তার সংস্পর্শে এসেছিল। প্রত্যেককে চিহ্নিত করার চেষ্টা করা হচ্ছে। আপাতত ওই স্বাস্থ্য কর্তার পরিবারের সদস্যদের হোম কোয়ারেন্টাইন বা গৃহ পর্যবেক্ষণে রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এছাড়াও স্বাস্থ্য দপ্তরের ৪০ জন কর্মীকে হোম quarantine বা গৃহ পর্যবেক্ষণে যাওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এদের প্রত্যেকের লালা রস পরীক্ষা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে স্বাস্থ্য দপ্তর।

প্রসঙ্গত রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে চিকিৎসক,নার্স,সাফাই কর্মী, স্বাস্থ্যকর্মীরা করোনা আক্রান্ত হচ্ছে,সেখানে এই শীর্ষ স্বাস্থ্য কর্তার করোনা আক্রান্ত হওয়ার ফলে স্বভাবতই আতঙ্ক দানা বেঁধেছে। যদিও স্বাস্থ্য দফতর থেকে বারংবার বলা হচ্ছে,মানুষ যেন সতর্ক থাকে,সচেতন থাকে,কেউ যেন আতঙ্কিত না হয়।

সারা বিশ্বের সঙ্গে আমাদের দেশেও করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েই চলেছে ১৪ হাজার ছাড়িয়ে গেছে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুও হয়েছে প্রায় পাঁচশ জনের। পশ্চিমবঙ্গে করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয় ১০। শুক্রবার সন্ধ্যায় রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তর তার প্রকাশিত বুলেটিনে  জানায়,রাজ্যে গত ২৪ ঘন্টায় ২২ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছে। মোট সক্রিয় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৬২ জন।

Avijit Chanda
Published by:Elina Datta
First published: