corona virus btn
corona virus btn
Loading

Guidelines For Domestic Travel: বিমান, ট্রেন বা বাসে যাত্রার আগে স্বাস্থ্য মন্ত্রকের এই গাইডলাইনগুলি জেনে নিন

Guidelines For Domestic Travel: বিমান, ট্রেন বা বাসে যাত্রার আগে স্বাস্থ্য মন্ত্রকের এই গাইডলাইনগুলি জেনে নিন
Representational Image

শুধু বিমানযাত্রার সময়েই নয় ৷ এই নিয়মগুলি প্রযোজ্য ট্রেন এবং বাসযাত্রার ক্ষেত্রেও ৷

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: দীর্ঘ দু'মাস লকডাউনে থাকার পরে ভারতের বিভিন্ন শহরে আগামিকাল ২৫ মে থেকে ফের চালু হচ্ছে ডোমেস্টিক উড়ান পরিষেবা। কিন্তু এখনও পর্যন্ত সারা দেশে করোনা-আতঙ্ক নির্মূল হয়নি। কাজেই উড়ান চালু হলেও তা হচ্ছে নিয়মিত উড়ানের এক তৃতীয়াংশ। করোনা সংক্রমণের কথা মাথায় রেখে স্বাস্থ্যজনিত নানা বিধিনিষেধ আরোপ হচ্ছে বিমানবন্দরে। কলকাতা এবং অন্ডাল, দুই বিমানবন্দরেই যথাসম্ভব ছোঁয়াচ এড়িয়ে নিরাপত্তাজনিত এবং অন্যান্য তল্লাশি যাতে হয়, তার ব্যবস্থা করা হয়েছে বিমানবন্দরে।

সামাজিক দূরত্ব যাতে বজায় থাকে এবং স্বাস্থ্যবিধি যাতে লঙ্ঘণ না হয়, সে কথা মাথায় রেখে নানা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এমনকী, নিরাপত্তাজনিত তল্লাশির সময়ে রক্ষীদের যাতে যাত্রীদের সংস্পর্শে না আসতে হয়, তার জন্যও বিভিন্ন ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। তবে করোনা আবহে বিমানযাত্রা যে আগের মতো একেবারেই থাকবে না ৷ তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না ৷ যাত্রী এবং বিমানসংস্থাগুলিকে মানতে হবে বিভিন্ন গাইডলাইন্স ৷ শুধু বিমানযাত্রার সময়েই নয় ৷ এই নিয়মগুলি প্রযোজ্য ট্রেন এবং বাসযাত্রার ক্ষেত্রেও ৷ সেগুলি হল-

১. কী করতে হবে এবং কী নয়, তা টিকিটের মধ্যেই লেখা থাকতে হবে বাধ্যতামূলকভাবে ৷

২. সব যাত্রীদের আরোগ্য সেতু অ্যাপ মোবাইলে ডাউনলোড করতে বলা হচ্ছে ৷ ৩. কোভিড-১৯ নিয়ে সমস্ত সুরক্ষামূলক ব্যবস্থা এবং ঘোষণা করতে হবে এয়ারপোর্ট, রেল স্টেশন এবং বাস টার্মিনালে ৷ ৪. বিমান, ট্রেন বা বাস ছাড়ার সময় প্রত্যেক যাত্রীদের থার্মাল স্ক্রিনিং করাটা বাধ্যতামূলক ৷ তারপরেই যাত্রীদের বিমান, ট্রেন বা বাসে চড়ার অনুমতি দেওয়া হবে ৷ ৫. যাত্রার সময় যাত্রীদের ফেস মাস্ক বা কভার পরা এবং হাত ধোয়ার বা স্যানিটাইজের জিনিস সঙ্গে রাখাটা বাধ্যতামূলক ৷ ৬. বিমানবন্দর, রেল স্টেশন এবং বাস টার্মিনালগুলিতে যাত্রীদের মধ্যে সোশ্যাল ডিস্টেন্সিং বজায় রাখাটা বাধ্যতামূলক ৷ ৭. বেরনোর সময়েও সেখানে থার্মাল স্ক্রিনিংয়ের ব্যবস্থা রাখতে হবে ৷ ৮. Asymptomatic বা যে সমস্ত যাত্রীদের কোনওরকম রোগের লক্ষণ পাওয়া যায়নি তাদেরকেও অন্তত ১৪ দিন নিজেদের স্বাস্থ্যের দিকে নজর রাখতে হবে ৷ কোনও সমস্যা হলেই তা জানাতে হবে ৷ বা জাতীয় কল সেন্টার ১০৭৫ নম্বরে ফোন করে জানাতে হবে ৷ ৯. বিমানবন্দর, রেল স্টেশন এবং বাস টার্মিনালগুলিকে প্রতিনিয়ত জীবাণুমুক্ত বা স্যানিটাইজড করার ব্যবস্থা রাখতে হবে ৷ ১০. কারোর শরীরে সন্দেহজনক কিছু ধরা পড়লে তাকে আইসোলেশনে থাকতে হবে সবচেয়ে কাছের হাসপাতাল বা হেলথ সেন্টারে ৷ ১১. কোভিডের ভালমতো লক্ষণ দেখা দিলে করোনার জন্য স্পেশালিস্ট হাসপাতালে ভর্তি করা হবে ৷

Published by: Siddhartha Sarkar
First published: May 24, 2020, 4:57 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर