corona virus btn
corona virus btn
Loading

হাসপাতাল পৌঁছনোর আগেই অ্যাম্বুলেন্সের অক্সিজেন শেষ! করোনা জয় করেও প্রাণ গেল রোগীর...

হাসপাতাল পৌঁছনোর আগেই অ্যাম্বুলেন্সের অক্সিজেন শেষ! করোনা জয় করেও প্রাণ গেল রোগীর...
Oxygen meter

ঘটনাটি ঘটেছে বিহারের মধেপুরায়। মৃতের নাতি সরকারি মেডিকেল কলেজের অ্যাম্বুলেন্সে তার দাদুকে নিয়ে পাটনার উদ্দেশ্যে ফিরছিলেন৷ তবে মধেপুরা থেকে প্রায় ২২ কিলোমিটার দূরে অ্যাম্বুলেন্সে অক্সিজেন শেষ হয়ে যায়। করোনাকে জয় করেও মৃত্যু হল বৃদ্ধর৷

  • Share this:

#মধেপুরা: দিন দিন দেশে করোনার প্রকোপ বেড়েই যাচ্ছে৷ উচ্চ পর্যায়ের সতর্কতা অবলম্বনে, সরকার ও প্রশাসন সদাই সজাগ থাকছে৷ তবে এসবের মধ্যেই এক মারাত্মক দুর্ঘটনা ঘটে গেল বিহারের মধেপুরায়৷। মধেপুরা মেডিকেল কলেজের অ্যাম্বুলেন্সে অক্সিজেন শেষ হয়ে মৃত্যু হল রোগীর। ২ আগস্ট, আরোনিয়া জেলার নারপাটগঞ্জের বাসিন্দা বলদেব লাল দেব করোনায় সংক্রামিত হওয়ার পর জে কেটিএমসিএইচ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। তবে তাঁর ভেন্টিলেটর প্রয়োজন হয়ে পড়ে তার।

পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে, ভেন্টিলেটরে চিকিৎসার ১৫ মিনিটের মধ্যেই ভেন্টিলেটরের প্লাগটি ভেঙে যায়। করোনা সংক্রিমত হয়ে ভেন্টিলেটর তিনি করোনার বিরুদ্ধে জয়ী হয়েছিলেন। তবে বয়স অনেকটা বেশি হওয়ায় শ্বাসের সমস্যা ছিল তার। অন্যদিকে করোনার টেস্ট নেগেটিভ আসার পর তাকে হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেন চিকিৎসকরা৷ ওই ব্যক্তির নাতি মেডিকেল কলেজেরই লাইফ সাপোর্ট অ্যাম্বুলেন্স তাকে নিয়ে পাটনার উদ্দেশ্যে রওনা হন৷ তবে রাস্তাতেই ঘটনে অঘটন৷ মধেপুরা থেকে প্রায় ২২ কিলোমিটার দূরে ত্রিভেনীগঞ্জের দিকে যেতে গিয়ে অ্যাম্বুলেন্সে অক্সিজেন শেষ হয়ে যায়।

আরও পড়ুন করোনা রোগীদের আশ্রয়স্থলে আগুন! অসহায় রোগীদের জন্য প্রার্থনা মোদির, সব ব্যবস্থার আশ্বাস

এর পরে, ত্রিবেণীগঞ্জ হাসপাতালে পৌঁছান মাত্রই রোগী মারা যান। এই ঘটনার পরে, অ্যাম্বুলেন্সের চালকও পলাতক, যার কারণে দেহটি অ্যাম্বুলেন্সে ২৪ ঘন্টা পড়ে থাকে। এই সময় মৃতের নাতি হাসপাতাল কর্মীকে ফোন করেন, তবে লাভ হয়নি, তিনি কোনও সহায়তা পাননি। বলদেব লালের মৃত্যু বিহারের স্বাস্থ্য বিভাগের অবহেলা চোখে আঙুল দিয়ে দেখাচ্ছে।

নিহতের নাতি আয়ুশ কুমারও তার দাদুর মৃত্যুর পরে মেডিকেল কলেজে করোনার রোগীদের চিকিত্সায় অবহেলার অভিযোগ করেছেন। তবে হাসপাতালের কোনও বক্তব্য এখনও পাওয়া যায়নি৷

Published by: Pooja Basu
First published: August 9, 2020, 2:25 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर