corona virus btn
corona virus btn
Loading

লকডাউনে কাটা হাত সঙ্গে নিয়ে বিহার থেকে উত্তরপ্রদেশের হাসপাতাল, ৮ ঘণ্টায় হাত জুড়ে মিরাকল করলেন চিকিৎসকরা

লকডাউনে কাটা হাত সঙ্গে নিয়ে বিহার থেকে উত্তরপ্রদেশের হাসপাতাল, ৮ ঘণ্টায় হাত জুড়ে মিরাকল করলেন চিকিৎসকরা

লকডাউনে হাত কেটে যাওয়া অবস্থায় ওই যুবক ও তার কাটা হাত নিয়ে বিহারের বগুড়া থেকে আনা হয় উত্তরপ্রদেশের গোরক্ষপুর ৷ দীর্ঘ সময় কেটে যাওয়ার কাটা অঙ্গ ফের জুড়ে দেওয়া প্রায় অসম্ভব ব্যাপার ছিল ৷

  • Share this:

#গোরক্ষপুর: একেই বলে বোধহয় মিরাকল ৷ এমনই ঘটনার নজির দেখা গেল বুধবার ৷ আট ঘণ্টার কঠিন অপারেশনে এক যুবকের কেটে যাওয়া হাত জুড়ে নতুন জীবন দিলেন চিকিৎসকেরা ৷ কিন্তু আসল চমক এখানে নয় ৷ লকডাউনে হাত কেটে যাওয়া অবস্থায় ওই যুবক ও তার কাটা হাত নিয়ে বিহারের বগুড়া থেকে আনা হয় উত্তরপ্রদেশের গোরক্ষপুর ৷ দীর্ঘ সময় কেটে যাওয়ার কাটা অঙ্গ ফের জুড়ে দেওয়া প্রায় অসম্ভব ব্যাপার ছিল ৷ কিন্তু সেই অসম্ভবই সম্ভব করে দেখালেন গোরক্ষপুরের এক দল চিকিৎসক ৷

বিহারের বাসিন্দা বিজয় কুমার ৷ সর্ষের পেশাই মেশিন চালাচ্ছিলেন ৷ কাজের মাঝে মেশিন পরিষ্কার করতে গেলে সেখানে আটকে যায় তার হাত ৷ সর্ষের বীজের সঙ্গে সঙ্গে বিজয়ের হাতও পিষে শরীর থেকে কেটে পড়ে যায় ৷ সঙ্কটজনক অবস্থায় স্থানীয় ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাওয়া হয় জখম বিজয়কে ৷ রক্তে ভেসে যাওয়া যুবকের অবস্থা দেখে প্রাথমিক চিকিৎসার পর ওই স্থানীয় চিকিৎসক বিখ্যাত প্লাস্টিক সার্জেন নীরজ নাথানির সঙ্গে যোগাযোগ করেন ৷ তাঁর পরামর্শেই জখম বিজয়কে গোরক্ষপুর নিয়ে আসার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় ৷ একইসঙ্গে ডঃ নাথানির নির্দেশ মতো কাটা হাতের অংশটা ভাল করে প্লাস্টিকে মুড়ে বরফ দিয়ে সঙ্গে নিয়ে যাওয়া হয় ৷ এরপর গাড়ি নিয়ে সোজা গোরক্ষপুর ৷ লকডাউনের জন্য রাস্তা ফাঁকা থাকায় বিহার থেকে মাত্র চার ঘণ্টার মধ্যে উত্তরপ্রদেশের গোরক্ষপুরে পৌঁছায় জখম বিজয় ও তাঁর আত্মীয়েরা ৷

সুদূর পশ্চিমী চম্পারনের বগুড়া থেকে গোরক্ষপুর ৷ চার ঘণ্টা সময়ও কম নয় ৷ নিজের মেডিক্যাল টিমের সঙ্গে তৈরিই ছিলেন ডাক্তার নাথানি ৷ বিজয় পৌঁছানোর সঙ্গে সঙ্গেই শুরু হয়ে যায় অপারেশন ৷ ডক্টর নাথানি জানিয়েছেন, এই কেসটি একদমই সহজ ছিল না| বিজয়ের হাত ধারালো কিছুতে কাটার বদলে পিষে গিয়ে কেটে যাওয়ায়, হাতের কাটা জায়গার মাসল ও নার্ভ ড্যামেজ হয় ৷ কিন্তু তা সত্ত্বেও আট ঘণ্টার কঠোর প্রচেষ্টার পর সফলভাবে হাত জোড়া লাগাতে সক্ষম হন ডাক্তার নাথানি ও তাঁর টিম ৷

ডাক্তার নাথানির মতে, কাটা হাত জোড়া লাগানো কোনও বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয় ৷ সম্প্রতি পঞ্জাবের এক পুলিশকর্মীর কেটে যাওয়া হাত এভাবেই জোড়া লাগিয়েছেন চিকিৎসকেরা ৷ এক্ষেত্রে কত তাড়াতাড়ি অপারেশন করা হচ্ছে সেটা খুব গুরুত্বপূর্ণ ৷ সঙ্গে কীভাবে অঙ্গহানি সে ফ্যাক্টরটাও গুরুত্বপূর্ণ ৷ এক্ষেত্রে বিজয়ের হাত পিষে কাটায় নষ্ট হয়ে যাওয়া নার্ভগুলি ফের কর্মক্ষম করে তোলাটা জটিল ছিল বৈকি ৷ হাসপাতাল সূত্রে খবর, অপারেশনের পর এখন ভালই আছেন বিজয় ৷ আইসিইউ থেকে আনা হয়েছে জেনারেল ওয়ার্ডে ৷ কিছুদিনের মধ্যেই তিনি সেরে উঠে স্বাভাবিক জীবনে ফের ফিরতে পারবেন বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা ৷

First published: May 5, 2020, 10:42 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर