বেনজির সংক্রমণের দিনেই বড় সুখবর, এ বছর কলকাতায় ডেঙ্গি আক্রান্তের সংখ্যা মাত্র কুড়ি

  • Share this:

    #কলকাতা: করোনার কাঁটা বিঁধে আছে গলায়। স্বাস্থ্যকর্মী থেকে পুরকর্মী সকলেই প্রাণপণ চেষ্টা করছেন ঠিকই, কিন্তু সংক্রমণের গতিতে রাশ টানা প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়ছে প্রতিদিন। এই দুঃসংবাদের ক্ষণেই এল ভালো খবরটা। বিশ্ব ডেঙ্গু দিবসেই কলকাতা মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশনের ডেঙ্গি নিয়ন্ত্রক দল জানাচ্ছে এখনও পর্যন্ত এই বছর ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা মাত্র ২০।

    কলকাতা মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশনের মুখ্য পতঙ্গবিদ একটি সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমে বলছেন, "আমরা করোনা মোকাবিলার পাশাপাশি কর্পোরেশনের আটটি ওয়ার্ডে ডেঙ্গি নিয়ে সতর্কতা বাড়ানোর কাজ করছি। পাশাপাশি লার্ভা ধ্বংস করার জন্য যথেচ্ছ স্প্রে করছি। এখনও পর্যন্ত যা খবর পেয়ছি তাতে পরিষ্কার আমাদের ডেঙ্গির সঙ্গে এতদিনের ল়ড়াই এবার ফল পাচ্ছে।"

    সূত্রের খবর, এখনও পর্যন্ত যে ২০ জন আক্রান্ত পাওয়া গিয়েছে তাঁরা ৬,৩৬, ৫৩, ৬২, ৮৮, ৯৩, ৯৫, ১০৬ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা। উল্লেখ্য গত বছর থেকেই শহরে ডেঙ্গির প্রকোপের গ্রাফটা নামতে থাকেষ ২০১৯ সালে এই শহরে ডেঙ্গিতে আক্রান্ত হয়েছিলেন ৪৮৯ জন। ২০২০ সালে আক্রান্ত হন ৮৮ জন। এ বছর আক্রান্তের সংখ্যা সেখানে মাত্র ২০‌।

    স্বাস্থ্যবিদরা অবশ্য বলছেন, লকডাউনে শাপে বর হয়েছে। তার কারণ দোকানপাট দীর্ঘ সময় বন্ধ ছিল। ফলে রাস্তায় যত্রতত্র চায়ের ভাড়, ডাবের খোলা ফেলা কিছুটা হলেও কম ছিল। অন্যান্য বারের মতো জমা জলে মশা ডিম পারতে পারেনি, সেই কারণেই ডেঙ্গির প্রকোপ কিছুটা কমেছে।

    পাশাপাশি আমফানের পর কোমর বেঁধে নেমিছিল পুরসভা। প্রতিটি বরোর ডেঙ্গি-করোনা আধিকারিকদের সঙ্গে কথা বলে গাইডলাইন দিয়েছিলন স্বাস্থ্যবিভাগের পুরপ্রশাসক মণ্ডলী সদস্য অতীন ঘোষ। একই সঙ্গে রাস্তায় টেলিফাস জাতীয় লার্ভানাশক ছড়ানো হয়। এবছরও পুরসভা কোমর বেঁধে নামে জানুয়ারি মাসে। এই পকিকল্পিত কাজেরই ফল এখনও পাচ্ছে কলকাতাবাসী।

    Published by:Arka Deb
    First published: