corona virus btn
corona virus btn
Loading

বিশ্বজুড়ে করোনা ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা ২৫ হাজার ছাড়াল, সব থেকে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত ইউরোপ !

বিশ্বজুড়ে করোনা ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা ২৫ হাজার ছাড়াল, সব থেকে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত ইউরোপ !
photo source collected

তাদের রিপোর্ট অনুযায়ী সব থেকে বেশি এই ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা ইউরোপে ১৭ হাজার ৩১৪।

  • Share this:

#প্যারিস: করোনা ভাইরাসে সারা বিশ্বে মৃতের সংখ্যা ২৫হাজার ৬৬ জন ছাড়াল এমনটাই জানাচ্ছে ফ্রান্সের এএফপি সংস্থা। তাদের রিপোর্ট অনুযায়ী সব থেকে বেশি এই ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা ইউরোপে ১৭ হাজার ৩১৪। যেখানে ইতালিতে মৃতের সংখ্যা ৮ হাজার ১৬৫। তারপরেই রয়েছে স্পেন ৪ হাজার ৮৫৮। এর পরেই রয়েছে চিন ৩ হাজার ২৯২। ২০১৯-এর ডিসেম্বর থেকে কমকরে ৫ লাখ ৪৭ হাজার ০৩৪টি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত নথিভুক্ত হয়েছে। যেখানে আমেরিকা পিছনে ফেলে দিয়েছে চায়নাকেও।

আইএমএফ-এর প্রধান জানিয়েছেন, বিশ্ব আবার অর্থনৈতিক মন্দায় ভুগতে চলেছে। আফ্রিকার প্রধান বিসনেজ পাওয়ার হাউস হল সাউথ আফ্রিকা। কিন্তু সেখানেও এখন লকডাউন হতে চলেছে কারণ করোনা ভাইরাসে একজনের মৃত্যু হয়েছে। স্পেনের ৪ হাজার ৮৫৮ জনের মধ্যে একদিনেই মারা গিয়েছেন ৭৬৯ জন। যা ইতালির একদিনের মৃতের সংখ্যার থেকেও গড়ে বেশি। যদিও বিশেষঙ্গরা বলছেন এটা আরও বাড়বে কয়েকদিনে। তবে রিজিওনাল অথরিটিসরা বলছেন এটা এখনই শেষ হওয়ার নয়। নতুন আক্রান্তের সংখ্যাও যদিও এখন কমছে বলে দাবি স্পেনের।

ইউরোপে করোনা ভয়ঙ্কর আকার নিয়েছে গত কয়েক সপ্তাহে। আবার ফ্রান্সে মৃতের সংখ্যা ১ হাজার ৭০০। ওখান কার সরকার সকলকে বাড়িতে থাকার নির্দেশ দিয়েছেন এপ্রিলের ১৫ তারিখ পর্যন্ত। প্রধানমন্ত্রী এডওর্য়াড ফিলিপি জানিয়েছেন, " আমারা যে পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে যাচ্ছি তা এত সহজে দূর হবার নয়।"

আমারিকাতে এখন আক্রান্তের সংখ্যা ৮৬ হাজার ছাড়িয়েছে। যা চায়না এবং ইতালি থেকে বেশি। নিউইর্য়ক শহরের স্বাস্থ্যকর্মীরা এর বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে। সেখানে কমবয়সী রোগীর সংখ্যাও বাড়ছে। এই শহরে এমন অনেকেই আছেন যারা সঠিক নিয়ম মানেননি বলে ভাইরাস বেশি ছড়িয়েছে।

করোনা ভাইরাস প্রথম দেখা গিয়েছিল চিনে। তারপর সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে এবং প্রায় ৫৫০,০০০ সংখ্যক করোনা আক্রান্ত ধরা পড়ে ১৮৩টি দেশে। যা সত্যিই ভয়ের। এই রোগের চিকিৎসা করতে গিয়ে ডাক্তারদেরও সমস্যার মুখে পড়তে হচ্ছে। তাঁদের ভাবতে হচ্ছে কোন রোগিকে আগে বাঁচাবেন।

 
First published: March 27, 2020, 10:47 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर