Coronavirus|বাড়ির কাজের লোক ছুটি চাইলে দিন, মাইনে কাটবেন না: মোদি

Coronavirus|বাড়ির কাজের লোক ছুটি চাইলে দিন, মাইনে কাটবেন না: মোদি
photo source collected

তিনি বলেছেন উচ্চবিত্ত থেকে মধ্যবিত্ত, নিম্নবিত্ত ও গরিব শ্রেণী সকলেই এই রোগের শিকার হতে পারেন৷ এই মুহূর্তে দাঁড়িতে তাই সহমর্মিতার পথে দেশবাসীকে হাঁটতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী৷

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচতে হোম আইসোলেশনই একমাত্র উপায়৷ দেশবাসীর উদ্দেশ্য বক্তব্য রাখতে গিয়ে আরও একবার সকলকে এই কথা মনে করান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি৷ গোটা বিশ্বজুড়ে এর প্রভাব পড়েছে, ভারতও ব্যতিক্রম নয়৷ তবে একযোগে এই রোগের মোকাবিলা করতে সাধারণ মানুষকে এক প্রকার পেপ টক দিয়েছেন মোদি৷ যার মধ্যে সর্বস্তরের মানুষই রয়েছেন৷ তিনি বলেছেন উচ্চবিত্ত থেকে মধ্যবিত্ত, নিম্নবিত্ত ও গরিব শ্রেণী সকলেই এই রোগের শিকার হতে পারেন৷ এই মুহূর্তে দাঁড়িতে তাই সহমর্মিতার পথে দেশবাসীকে হাঁটতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী৷

স্কুল-কলেজ বন্ধ হয়েছে৷ চাকুরিজীবীদের জনে বহুক্ষেত্রে প্রয়োজনে ওয়ার্ক ফ্রোম হোম অর্থাৎ ঘর থেকে বসে কাজ শুরু হয়েছে৷ অপ্রয়োজনে রাস্তায় না বেরনোর নিদান দিয়েছেন অনেক বিশেষজ্ঞই৷ তবে যারা দিন আনে দিন খায়ে সেই শ্রেণীর কী হবে? এই প্রশ্ন তো উঠেছিল৷ সেই সব অসংগঠিত শ্রেণী যারা মূলত বাড়িতে পরিচারিক বা পরিচারিকার কাজ করেন তাদের জন্য মানবিকতার বার্তা দিলেন মোদি৷

এই সকল কাজের মানুষদের শরীর খারাপ হলে, বা প্রয়োজনে আইসোলেশনে থাকতে হলে তাদের মাইনে সহ ছুটি দেওয়ার কথাই ঘোষণা করলেন মোদি৷ উচ্চবিত্তদের উদ্দেশ্যে মোদির আর্জি যাদের থেকে প্রতিদিন সাহায্য পান, যাদের সহযোগিতা ছাড়া দিন গুজরানো অসম্ভব, তাদের প্রতি সমবেদনা দেখান৷ এক্ষেত্রে সহনাগরীকের প্রতি সমবেদনা দেখানোর অনুরোধ রেখেছেন দেশের প্রধানমন্ত্রী৷ কারণ এই মানুষগুলোও তো সংসার রয়েছে৷ বাড়িতে বয়স্ক পরিজন রয়েছেন৷ তাই তাদের সুরক্ষিত রাখার জন্য প্রয়োজনে ছুটি চাইলে, তাদের ছুটি দিন এবং মাইনে কাটবেন না৷ এতে তারাও আশ্বস্ত হবেন এবং নিম্নবিত্ত ও গরিবদের প্রাণের ঝুঁকি কমবে৷

বৃহস্পতিবার রাত ৮টা জনতার উদ্দেশ্য কী বার্তা রাখেন দেশের প্রধানমন্ত্রী, তার দিকে নজর ছিল সকলের৷ মোদি বলেন যে বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়া করোনার সংক্রমণ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের থেকেও বড় ৷ করোনার জেরে গোটা মানবজাতি এখন সঙ্কটের মধ্যে, জানিয়েছেন তিনি৷ যেহেতু এখনও এই রোগের কোনও সঠিক চিকিৎসা পদ্ধতি নেই, তাই চিন্তা আরও বেড়েছে৷ দেশবাসীর উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখতে এসে করোনা ভাইরাস নিয়ে এমনই কথা বলেন মোদি৷ তিনি মূলত জনতা কার্ফুর ওপর জোর দিয়েছেন৷ ২২শে মার্চ, রবিবার, দেশের প্রতিটি মানুষকে সকাল ৭ থেকে রাত ৯ পর্যন্ত রাস্তায় না বেরনো মধ্যে দিয়েই পালিত হবে জনতা কার্ফু৷

First published: March 19, 2020, 9:32 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर