সব্জি, চাল সবই ফ্রি, বিনা পয়সার বাজার চালু শিলিগুড়িতে

শিলিগুড়িতে বিনামূল্যের বাজার৷ PHOTO- COLLECTED

বাজার বসেছে গ্রামে, এই খবর ছড়িয়ে পড়তেই ব্যাগ নিয়ে বাজারে ছুটে যান গ্রামবাসীরা। তবে স্বাস্থ্য দপ্তরের নির্দেশিকা মেনেই চলল বাজার।

  • Share this:

    #শিলিগুড়ি: লকডাউনে গরিব, দুঃস্থদের কথা মাথায় রেখে নয়া বাজার চালু হলো শিলিগুড়ির ফাঁসিদেওয়ায়। কলকাতা পুলিশকে অনুসরণ করে এই বাজার চালু করার উদ্যোগ নেন এক পুলিশ কর্মী। এ দিন বাজার বসেছিল বিধাননগরের সিতুভিটা গ্রামে। আদিবাসী ও রাজবংশী সম্প্রদায় অধ্যুষিত এলাকা সিতুভিটা। অত্যন্ত গরিব মানুষের বসবাস এই গ্রামে। লকডাউনে তাঁদের কাজ নেই। ফলে হাতে টাকাও নেই। তাঁদের জন্য এগিয়ে এসছেন বিধাননগরের বাসিন্দারা। চালু হলো  'বিনে পয়সার বাজার।'

    কী মিলছে এই বাজারে? যা হাটে-বাজারে পাওয়া যায় তাই মিলছে এই 'বিনে পয়সার বাজারে।'  চাল, ডাল, আটা,  সোয়াবিন, আলু,  পেঁয়াজ,  স্কোয়াশ,  বেগুন, পটল সহ সব সব্জিই পাওয়া যাচ্ছে এই বাজারে। মাঝে মধ্যে কিছু স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ত্রাণ নিয়ে হাজির হয়েছে গ্রামে। সরকারি রেশনই অধিকাংশ এলাকাবাসীর কাছে ছিল একমাত্র ভরসা। এই  'বিনে পয়সার বাজার' যেন তাঁদের কাছেই বাড়তি অক্সিজেন!

    বাজার বসেছে গ্রামে, এই খবর ছড়িয়ে পড়তেই ব্যাগ নিয়ে বাজারে ছুটে যান গ্রামবাসীরা। তবে স্বাস্থ্য দপ্তরের নির্দেশিকা মেনেই চলল বাজার। অর্থাৎ, সামাজিক দূরত্ব মেনে বসলো মুদিখানা থেকে সব্জির দোকান। সঙ্গে মাস্কের ব্যবহার ছিল বাধ্যতামূলক। পাশাপাশি হ্যান্ড স্যানিটাইজারও ব্যবহার করেন ক্রেতা এবং বিক্রেতারা। বিধাননগর ১ নং গ্রাম পঞ্চায়েতের অন্তর্গত সিতুভিটা গ্রামের বাসিন্দারা এহেন উদ্যোগে খুশি। স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্য রূপদেশ পাহান জানান, এই সময়ে অত্যন্ত প্রয়োজনীয় উদ্যোগ। খুশি স্থানীয় বাসিন্দা মিনতি টুডু, সিলসিলা মুণ্ডারা জানান, এই বাজার তাঁদের কাছে বাড়তি পাওনা। এর ফলে অনেক সমস্যাই মিটবে।

    পুলিশ কর্মী বাপন দাস জানান, প্রথম পর্যায়ে সপ্তাহে একদিন করে বসবে এই 'বিনে পয়সার বাজার।' এবং বাজার বসবে এলাকার চা বাগান এবং রাজবংশী সম্প্রদায় অধ্যুষিত এলাকায়। সকালেই বসবে বাজার। লকডাউনের মেয়াদ বাড়লে বাজারের দিনও বাড়ানো হবে। দক্ষিনবঙ্গে কয়েকটি জেলায় ইতিমধ্যেই বসছে এই  'বিনে পয়সার বাজার৷' এবারে চালু হল উত্তরবঙ্গে।

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: