corona virus btn
corona virus btn
Loading

সংক্রমণে রাশ টানতে রাজ্যে সপ্তাহে দু'দিন কড়া লকডাউন, বিমান পরিষেবা ঘিরে জটিলতা!

সংক্রমণে রাশ টানতে রাজ্যে সপ্তাহে দু'দিন কড়া লকডাউন, বিমান পরিষেবা ঘিরে জটিলতা!
প্রতীকী ছবি

পূর্ব নির্ধারিত সূচি অনুযায়ী বৃহস্পতিবার বিমান ওঠানামা করবে। তবে বিমানের সংখ্যা কমার সম্ভাবনা।

  • Share this:

#কলকাতা: করোনা সংক্রমণ রুখতে সপ্তাহে দু'দিন করে লকডাউনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য সরকার। সেই সময় ব্যাঙ্ক পরিষেবার পাশাপাশি উড়ানও বন্ধ রাখতে চাইছে রাজ্য। এই মর্মে কলকাতা বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষকে বিমান পরিষেবা বন্ধ রাখার বিষয়ে জানানো হয়। রাজ্যের সিদ্ধান্ত মেনে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ বিমান সংস্থাগুলিকে বিষয়টি জানালে তারা জানিয়ে দেয়, শেষ মুহূর্তে পরিষেবা বন্ধ করা সম্ভব নয়। ফলে, পূর্ব নির্ধারিত সূচি অনুযায়ী বৃহস্পতিবার বিমান ওঠানামা করবে।

এক্ষেত্রে এয়ারলাইন্স সংস্থাগুলি যাত্রীদের নিজস্ব যাতায়াতের ব্যবস্থা রাখতে অনুরোধ জানিয়েছে। তবে গভীর রাতের খবর, রাজ্য সরকার শেষমেশ অসামরিক বিমান পরিবহণ মন্ত্রকের সঙ্গে আলোচনার পরে বিমান পরিষেবায় রাজি হয়েছে। তবে সম্ভবত বিমানের সংখ্যা কমবে।

রাজ্যে করোনা পরিস্থিতির ক্রমশ অবনতি হওয়ায় বৃহস্পতিবার থেকে সপ্তাহে দু'দিন করে পুরো রাজ্য লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। চলতি সপ্তাহে বৃহস্পতিবার এবং শনিবার রাজ্যে লকডাউন জারি থাকবে। পরের সপ্তাহে বুধবার লকডাউন থাকবে রাজ্যে।

করোনার প্রকোপ কলকাতা এবং তৎসংলগ্ন এলাকায় ক্রমশ বাড়তে থাকায় রেড জোনে থাকা শহরগুলি থেকে উড়ান বন্ধ রাখার জন্য জুলাই মাসের শুরুতে কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে অনুরোধ করেন রাজ্যের মুখ্যসচিব রাজীবা সিনহা। তারপরেই কলকাতা বিমানবন্দরে ৬ জুলাই থেকে ১৯ জুলাই পর্যন্ত কার্যত বিমান ওঠানামা বন্ধ হয়ে যায়। স্থগিত রাখা হয় বন্দে ভারত মিশনের উড়ানও। পরে রাজ্য সরকার ছ'টি শহর থেকে কলকাতায় বিমান আসার ব্যাপারে আপত্তি জানায়। আপাতত ওই ছ' টি শহর থেকে বিমান আসা বন্ধ।

বিমানবন্দরের এক কর্তা বলেন, "পুরো রাজ্যে লকডাউন জারি থাকলে বিমানযাত্রীদের দুর্ভোগে পড়তে হবে। সে জন্যই প্রথমে বিমান পরিষেবা বন্ধ রাখার জন্য বলা হয়েছিল। পড়ে রাজ্য সরকার রাজি হলেও আমরা কোনও ঝুঁকি নিচ্ছি না। যাত্রীদের ফেরার বন্দোবস্ত নিজেদেরই করে নেওয়ার বিষয়ে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।"

SHALINI DATTA

Published by: Shubhagata Dey
First published: July 22, 2020, 11:15 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर