corona virus btn
corona virus btn
Loading

সুরক্ষিত জেলার আওতায় আর নয়, প্রথম করোনা আক্রান্তের খোঁজ মিলল পূর্ব বর্ধমানেও

সুরক্ষিত জেলার আওতায় আর নয়, প্রথম করোনা আক্রান্তের খোঁজ মিলল পূর্ব বর্ধমানেও

জেলা শাসক জানান, ওই ব্যক্তি রাজ্যেরই অন্য জেলা থেকে এসেছিলেন। সেখানে তিনি পোশাক তৈরির কাজ করতেন। কয়েক দিন আগে সেখান থেকে চলে আসেন তিনি।

  • Share this:

Saradindu Ghosh

#বর্ধমান: এবার করোনা মানচিত্রে ঢুকে পড়ল পূর্ব বর্ধমান জেলাও। এতদিন অন্যান্য বেশ কয়েকটি জেলায় করোনার সংক্রমণ ধরা পড়লেও পূর্ব বর্ধমান তার বাইরে ছিল। বর্ধমানের খন্ডঘোষের বাদুলিয়া এলাকায় এক ব্যক্তির শরীরে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ মিলেছে। দুর্গাপুরের একটি হাসপাতালে তাঁর চিকিৎসা চলছে। এই ঘটনার পর এলাকায় লকডাউন আরও আঁটোসাঁটো করা হয়েছে। জ্বর সহ অন্যান্য উপসর্গ দেখা দেওয়ায় ওই ব্যক্তিকে বর্ধমান শহর লাগোয়া কোভিড নাইন্টিন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখান থেকে তাঁর লালা রসের নমুনা পরীক্ষার জন্য কলকাতা পাঠানো হয়েছিল। পূর্ব বর্ধমানের জেলা শাসক বিজয় ভারতী জানান, গতকাল  কুড়ি জনের নমুনা পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছিল। তার মধ্যে এক জনের করোনা পজিটিভ রিপোর্ট এসেছে। আক্রান্ত ওই ব্যক্তিকে চিকিৎসার জন্য দুর্গাপুরের সনকা হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

ওই ব্যক্তির করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজিশন আসতেই তৎপরতা বাড়ায় প্রশাসন। শনিবার রাতেই বাড়ির অন্যান্য সদস্য ও তার সংস্পর্শে আসা পুরুষ মহিলাদের কোয়ারান্টিন সেন্টারে তুলে আনা হয়। সেখানে তাঁদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা হচ্ছে। তাঁদের সব সময় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। জেলা শাসক জানান, ওই ব্যক্তি রাজ্যেরই অন্য জেলা থেকে এসেছিলেন। সেখানে তিনি পোশাক তৈরির কাজ করতেন। কয়েক দিন আগে সেখান থেকে চলে আসেন তিনি। তাঁর সংস্পর্শে আসা ৩১ জনকে চিহ্নিত করা সম্ভব হয়েছে। তাঁদের কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে তুলে আনা হয়েছে। এছাড়াও ওই ব্যক্তি কোন কোন জায়গায় গিয়েছিলেন, সেসব জায়গায় কার কার সংস্পর্শে এসেছিলেন সেসব বিস্তারিত তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে। প্রয়োজনে তাঁদেরও পরীক্ষার আওতায় আনা হবে। এই ঘটনার পর রায়না খন্ডঘোষ সহ দক্ষিণ দামোদর এলাকায় করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে তৎপরতা কয়েক গুণ বাড়িয়েছে পুলিশ। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কাউকেই বেরতে দেওয়া হচ্ছে না। ওষুধ কেনা বা বিশেষ প্রয়োজনে বাইরে আসা পুরুষ মহিলাদের মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে।

First published: April 19, 2020, 2:54 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर