করোনা ভাইরাস

?>
corona virus btn
corona virus btn
Loading

লকডাউন চলছে...শহরে বহিরাগতদের প্রবেশ রুখতে কার্যত হিমশিম খেল বর্ধমান পুলিশ

লকডাউন চলছে...শহরে বহিরাগতদের প্রবেশ রুখতে কার্যত হিমশিম খেল বর্ধমান পুলিশ

লকডাউনে বর্ধমান শহরে বাসিন্দাদের পরিচয়পত্র দেখে ঢোকার অনুমতি দিচ্ছে পুলিশ।

  • Share this:

#বর্ধমান: সকাল থেকেই বহিরাগতদের বর্ধমান শহরে প্রবেশ রুখতে হিমশিম খেতে হল পুলিশকে। বর্ধমান শহরের প্রবেশপথগুলিতে এদিন সকাল থেকেই ছিল থিকথিকে ভিড়। অনেকেরই বর্ধমান শহরে লকডাউনের কথা জানা ছিল না। আবার অনেকেই বিশেষ প্রয়োজনে বর্ধমান শহরে গাড়ি বা মোটর সাইকেল নিয়ে ঢুকতে চাইছিলেন। অনেকে আবার বর্ধমান শহরের বাসিন্দা। কাজের প্রয়োজনে শহরের বাইরে গিয়েছিলেন তাঁরা। সকলকেই শহরে ঢোকার মুখে পুলিশি জেরার সামনে পড়তে হল।

বর্ধমান শহরে বাসিন্দাদের পরিচয়পত্র দেখে ঢোকার অনুমতি দেয় পুলিশ। চিকিৎসা-সহ জরুরি প্রয়োজনে যাঁরা শহরে আসতে চাইছেন গুরুত্ব অনুভব করে তাদের শহরে ঢুকতে দেওয়া হয়। বাকিদের শহরে ঢোকার মুখ থেকেই ফেরত পাঠিয়ে দেওয়া হয়।

করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে বর্ধমান শহর জুড়ে বুধবার সকাল থেকেই একটানা সাতদিন সর্বক্ষণের লকডাউন শুরু হয়েছে। লকডাউন সুনিশ্চিত করতে শহরে সব রকম সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হয়েছে। বন্ধ রাখা হয়েছে সব ধরনের যান চলাচল। শহরের মধ্যে টাউন সার্ভিস, মিনি বাস চলাচল করছে না। জেলার অন্যান্য প্রান্ত বা অন্যান্য জেলা থেকেও বাস শহরে ঢুকতে পারছে না। অনেকে তাই মোটর সাইকেলে, চারচাকা গাড়িতে শহরে ঢুকতে চাইছিলেন। শহরে ঢোকার ক্ষেত্রে বেশ কিছুটা নিয়ন্ত্রণ জারি করেছে জেলা পুলিশ প্রশাসন।

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, বর্ধমান শহরে ব্যাপকভাবে করোনা সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছে। তাই বাইরের বাসিন্দাদের শহরে ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না। কারণ তাদের দেহেও সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়তে পারে। আবার বর্ধমান পুরসভার লাগোয়া বর্ধমান এক নম্বর ব্লক,বর্ধমান দু'নম্বর ব্লক, রায়না, খণ্ডঘোষ, গলসি, মেমারিতে ব্যাপকভাবে করোনা সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছে। ওইসব এলাকা থেকে বাসিন্দারা এলে তাদের মাধ্যমে নতুন করে শহরে করোনার সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা থেকেই যাচ্ছে। এসব কারণেই শহরে ভিড় নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে বলে জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে।

জেলা পুলিশের এক আধিকারিক জানান, যেহেতু শহরে লকডাউন চলছে তাই শহরে ঢোকার মুখে বাসিন্দাদের আসার কারণ জানতে চাওয়া হচ্ছে। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া শহরে না ঢোকাই ভালো সে ব্যাপারে সচেতন করা হচ্ছে।  বর্ধমান শহরের রেল ওভার ব্রিজ,নবাবহাট মোড়, তেলিপুকুর, ডিভিসি মোড়, উল্লাস মোড়ে এই নজরদারি আগামী দিনগুলোতেও চালানো হবে।

Saradindu Ghosh

Published by: Shubhagata Dey
First published: July 22, 2020, 6:18 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर