মদ খেয়ে গড়িয়ে পড়ছেন একে অপরের গায়ে, পাব খুলতেই করোনা ভুলে হুল্লোড়

মদ খেয়ে গড়িয়ে পড়ছেন একে অপরের গায়ে, পাব খুলতেই করোনা ভুলে হুল্লোড়
সেই দেখেই কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ক্রিস স্মিথ বলেছেন, এই মানুষগুলির জন্য যদি দেশ আবার বিপদে পরে, তাহলে কী হবে?‌

সেই দেখেই কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ক্রিস স্মিথ বলেছেন, এই মানুষগুলির জন্য যদি দেশ আবার বিপদে পরে, তাহলে কী হবে?‌

  • Share this:

    #‌লন্ডন:‌ এতদিন ধরে সেই দেশ ভুগেছে চরম করোনা সংক্রমণের ভয়ে। মৃত্যু, অসুস্থতা এসবের কারণে ব্রিটেনে চলেছে লকডাউন। কিন্তু পরিস্থিতির সামান্য উন্নতি হতেই মানুষ যেন হাতে চাঁদ পেয়েছেন। ভুলে গিয়েছেন সামাজিক দূরত্বের নিয়মকানুন। আর তাই বাধ্য হয়ে পুলিশ বলছেন, ‘‌আমাদের পক্ষে অসম্ভব হয়ে দাঁড়াচ্ছে লন্ডনের মদে মাতাল হয়ে যাওয়া সাধারণ মানুষকে সামলানো। কারণ, মদ খেলে তাঁরা ভুলে যাচ্ছেন সামাজিক দূরত্বের কথা।‌’‌

    প্রায় তিন মাসের ব্যবধানে ধীরে ধীরে লন্ডনে খুলছে পাব, রেস্তোরাঁ, সেলুন। আর যেই না সুযোগ পাওয়া ওমনি হাজার হাজার মানুষ ভিড় করেছেন সেগুলিতে। সেই কারণেই এই শনিবারকে বলা হয়েছে ‘‌সুপার স্যাটারডে’‌। কিন্তু সেই দিনই লন্ডনের রাস্তার যা হাল হয়েছে, তা দেখে মনে হচ্ছে, করোনা তো দূর, সামান্য কোনও অসুবিধাও নেই মানুষের জীবনে। মদ খেয়ে উদ্দাম মত্ততা চলছে রাস্তা জুড়ে। চলছে নাচ, গান, হৈ–হুল্লোড়।

    সেই দেখেই কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ক্রিস স্মিথ বলেছেন, এই মানুষগুলির জন্য যদি দেশ আবার বিপদে পরে, তাহলে কী হবে?‌ তার থেকে একেবারে লকডাউন করে দেওয়া উচিত। বিবিসিকে তিনি বলেছেন, ‘‌এই মানুষগুলিকে আমি একবার বিশ্বের পরিস্থিতির কথা মনে করিয়ে দিতে চাইব।’‌ যদিও প্রশাসন এখনও মানতে চাইছে না যে স্বাস্থ্যবিধি ভুলে মানুষ আনন্দ করা শুরু করেছে। বরং প্রশাসনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, কিছু মানুষ নিয়ম ভেঙেছেন ঠিকই, কিন্তু বেশিরভাগই নিয়ম মেনেছেন। কিন্তু পুলিশ পরিস্থিতি সামাল দিতে গিয়ে স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে যাঁরা মদ খেয়ে মত্ত হয়ে রয়েছেন, তাঁদের সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার কথা মনে করানো এককথায় অসম্ভব।

    Published by:Uddalak Bhattacharya
    First published:

    লেটেস্ট খবর