• Home
  • »
  • News
  • »
  • coronavirus-latest-news
  • »
  • বহু বিদেশি ছাত্রকে বিদায় করছে আমেরিকা, পাঁচ বছর আগে অন্য কথা বলেছিলেন ট্রাম্প

বহু বিদেশি ছাত্রকে বিদায় করছে আমেরিকা, পাঁচ বছর আগে অন্য কথা বলেছিলেন ট্রাম্প

২০১৫ সালে ট্রাম্পের গলায় ছিল উল্টো সুর।

২০১৫ সালে ট্রাম্পের গলায় ছিল উল্টো সুর।

ভারত -সহ বহু দেশের ছাত্ররাই যখন এই সিদ্ধান্ত নিয়ে বিরোধিতায় সরব হচ্ছেন, ভেসে উঠেছে ২০১৫ সালে করা ট্রাম্পেরই একটি ট্যুইট।

  • Share this:

    ওয়াশিংটন: সোমবারই মার্কিন ইমিগ্রেশান অ্যান্ড কাস্টমস এনফোর্সমেন্ট জানিয়েছে, আগামী মরশুমে সামগ্রিক পঠনপাঠন অনলাইনে চলবে এমন প্রবাসী ছাত্রদের মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে থাকার অনুমতি দেওয়া হবে না।

    করোনার আবহে এই নির্দেশিকায় একদিকে যেমন বিপদে পড়েছেন হাজার হাজার ছাত্র, তেমনই স্কুল-কলেজ খোলার ব্যাপারে বাড়তি চাপ অনুভব করছে স্কুল কলেজগুলিও।

    ভারত -সহ বহু দেশের ছাত্ররাই যখন এই সিদ্ধান্ত নিয়ে বিরোধিতায় সরব হচ্ছেন, ভেসে উঠেছে ২০১৫ সালে করা ট্রাম্পেরই একটি ট্যুইট। তখনও ক্ষমতায় আসেননি ট্রাম্প। কিন্তু ভোটের ঘণ্টা বাজতেই বিদেশি ছাত্রদের আমেরিকায় দরাজ গলায় স্বাগত জানিয়েছিলেন তিনি। তিনি লেখেন, আমি চাই মেধাবী ছাত্ররা এদেশে আসুন, কঠোর পরিশ্রম করুন এবং এদেশে পাকাপাকি নাগরিকত্ব নিন। সিলিকন ভ্যালি ইঞ্জিনিয়র চায়, আরও বহু ক্ষেত্রে কাজের মানুষ দরকার।

    কিন্তু ক্রমেই ট্রাম্পের ধারণা বদলাতে থাকে। ২০১৬ সালেই ট্রাম্প পরিকল্পনা করেন জে ওয়ান ভিসা প্রোগ্রামের অধীন ৩ লক্ষ ছাত্রকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আনার প্রকল্প বাদ দিতে। এইচ ওয়ান বি ভিসাও নিষিদ্ধ করার কথা প্রথম থেকেই বলে এসছেন ট্রাম্প।

    বিশেষজ্ঞরা ট্রাম্পকে বারবার পরামর্শ দিয়েছেন এই ধরনের প্রস্তাবনায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্কে বিদেশিদের ধারণা বিরূপ হবে। ভিসা বাতিল করা, মেক্সিকান দেওয়াল, মুসলিম প্রবেশ নিষিদ্ধকরণ যে সরাসরি মার্কিন শিক্ষা উৎকর্ষের সুনাম ক্ষুণ্ণ করবে তাও ট্রাম্পকে বুঝিয়ে কাজ হয়নি।

    ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের একটি সমীক্ষায় দেখা যায়, ট্রাম্প ক্ষমতায় আসার পর বিদেশি ছাত্রদের মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পড়তে যাওয়ার ঝোঁক ৬০ শতাংশ কমে গিয়েছে।

    ভাইরাল টুইটটি তাই বলছে ভোটের মুখে জনমোহিনী বাক্য ট্রাম্প ব্যবহার করেছিলেন ঠিকই। কিন্তু আজকের সিদ্ধান্তের বীজ পোঁতা হয়েছিল প্রায় ওই সময়েই।

    Published by:Arka Deb
    First published: