corona virus btn
corona virus btn
Loading

রোজই নতুন করে সংক্রমিত হচ্ছেন চিকিৎসকরা, ভিজিটিং আওয়ার তুলে দেওয়া হল মেডিক্যাল কলেজে

রোজই নতুন করে সংক্রমিত হচ্ছেন চিকিৎসকরা, ভিজিটিং আওয়ার তুলে দেওয়া হল মেডিক্যাল কলেজে

বর্ধমান মেডিকেল কলেজে একের পর এক চিকিৎসক সংক্রমিত হচ্ছেন করোনায়

  • Share this:

#বর্ধমান: বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে দুই চিকিৎসক নতুন করে করোনা আক্রান্ত হলেন। সেই সঙ্গে হাসপাতালে ব্লাড ব্যাঙ্কের এক কর্মীও নতুন করে করোনা আক্রান্ত হওয়ায় উদ্বেগ বেড়েছে।

দুদিন আগেই বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের এক স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন। তিনি হাসপাতাল রাউন্ড দেওয়ার পাশাপাশি নার্সিংহোমেও রোগী দেখেছেন। ডাক্তার পাড়া খোসবাগানের চেম্বারেও রোগী দেখেছিলেন বলে খবর মিলেছে। সব মিলিয়ে বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে সব মিলিয়ে চার জনের চিকিৎসকের করোনা আক্রান্তের রিপোর্ট মিলেছিল। নতুন করে আক্রান্ত কর্মী ও চিকিৎসকদের সংস্পর্শে আসা দশ জন চিকিৎসক নার্স ও স্বাস্থ্য কর্মীকে হোম কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে। তাঁদেরও লালারসের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হবে। সব মিলিয়ে বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে দিন দিন পরিষেবার সামাল দেওয়া কঠিন হয়ে দাঁড়াচ্ছে।

বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, হাসপাতালে অস্হি ও স্নায়ু বিভাগের দুই চিকিৎসক করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। এছাড়াও বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ব্লাড ব্যাংকের এক কর্মীও করোনা পজিটিভ বলে খবর আসে। কিছুক্ষণের জন্য আতংকে কাজ বন্ধ করে দেন ব্লাড ব্যাংকের অন্যান্য কর্মীরা। একের পর এক চিকিৎসক কর্মী করোনা আক্রান্ত হওয়ায় চিন্তায় পড়ে গিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

এই ঘটনার জেরে হাসপাতালে ভিড় এড়াতে বেশ কিছু পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। হাসপাতালে ইতিমধ্যেই ভিজিটিং আওয়ার তুলে দেওয়া হয়েছে। রোগীর কাছে পরিবারের একজনের বেশি কাউকে থাকতে দেওয়া হচ্ছে না। হাসপাতালে রাধারানী ওয়ার্ড, এমার্জেন্সি বিভাগ, আউটডোরের সামনে প্রচুর মানুষ ভিড় করেন। ওই ভিড় নিয়ন্ত্রণ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। হাসপাতালে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে মাইকে ঘোষণাও শুরু হয়েছে।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, এই করোনা আবহে আপাতত ভিজিটিং আওয়ার বলে কিছু থাকছে না। ভিজিটিং আওয়ার এক সঙ্গে অনেক রোগীর আত্মীয় ওয়ার্ডের ভেতরে ঢোকেন। তা থেকে করোনার সংক্রমণের আশঙ্কা থেকে যাচ্ছে। সেজন্যই ভিজিটিং আওয়ার তুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তার বদলে রোগীর কাছে পরিবারের একজন থাকতে পারবেন। হাসপাতালের এক আধিকারিক জানান, শুধু পূর্ব বর্ধমান জেলা নয়, পাশের হুগলি বীরভূম বাঁকুড়া জেলা থেকেও প্রতিদিন প্রচুর রোগী হাসপাতালে আসেন। তাই যতটা সম্ভব ভিড় এড়িয়ে পরিষেবা চালু রাখার চেষ্টা চালানো হচ্ছে।

Saradindu Ghosh

Published by: Debalina Datta
First published: July 19, 2020, 5:45 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर