Coronavirus Horror in Delhi: চোখের সামনে পরপর রোগীর মৃত্যু, গর্ভবতী স্ত্রী’কে রেখে আত্মঘাতী চিকিৎসক

Coronavirus Horror in Delhi: চোখের সামনে পরপর রোগীর মৃত্যু, গর্ভবতী স্ত্রী’কে রেখে আত্মঘাতী চিকিৎসক

আত্মহত্যা করলেন তরুণ চিকিৎসক ।

একেরপর এক রোগীর মৃত্যু সহ্য করতে পারলেন না ৩৬ বছরের তরুণ ওই চিকিৎসক । গত নভেম্বরে ওই চিকিৎসকের বিয়ে হয়েছিল। বর্তমানে তাঁর স্ত্রী ২ মাসের অন্তঃসত্ত্বা।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: দেশ জুড়ে লাগামছাড়া করোনা সংক্রণ (Coronavirus 2nd Wave) । করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের ধাক্কায় বেসামাল আমাদের দেশ । প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ছেন, হাসপাতালে বেড নেই, নেই পর্যাপ্ত অক্সিজেনও । অসহায় মানুষের আর্তি, হাহাকার চারিদিকে । শ্মশানে জমছে মৃতদেহের স্তূপ, সৎকার করার জায়গা নেই । কবরস্থানেও জায়গা জুটছে না মৃতদেহ সমাধিস্থ করার । সংবাদ মধ্যমের পাতায় একেরপর এক ভেসে আসছে হৃদয় বিদারক নানা চিত্র । কোথাও স্বামীর দেহ আকড়ে কান্নায় ভেঙে পড়েছেন স্ত্রী, কোথাও বা ছেলেকে ফিরিয়ে না আনতে পারার বুক ফাটা আর্তনাদ মায়ের । কোথাও বা চরম আমানবিকতার ছবি উঠে আসছে সমাজের বিভিন্ন স্তর থেকে ।

    সবচেয়ে খারাপ অবস্থা রাজধানী দিল্লির । রাস্তায় পড়ে থেকে বিনা-চিকিৎসায় মারা যাচ্ছেন সাধারণ মানুষ । গোটা দেশকে কাঁদিয়ে তুলছে সেই দৃশ্য । নিরাপরাধ মানুষের সেই হাহাকারের দৃশ্য এ বার সহ্য করতে না পেরে নিজেই মৃত্যুবরণ করে নিলেন দিল্লির এক চিকিৎসক । আত্মহত্যা করলেন ৩৬ বছরের বিবেক রাই নামের ওই তরুণ । জানা গিয়েছে, গত এক মাস ধরে আইসিইউ-তে করোনা রোগীদের সেবার কাছে নিযুক্ত ছিলেন তিনি ।

    মর্মান্তিক এই ঘটনাটি ঘটেছে দিল্লির মালভিয়া নগরের তাঁর ফ্ল্যাটে। সেখান থেকেই তাঁর দেহ উদ্ধার করা হয় । আদতে উত্তরপ্রদেশের গোরখপুরের বাসিন্দা ওই চিকিৎসক হাসপাতালের রেসিডেন্ট চিকিৎসক ছিলেন। ঘর থেকে দু’টি সুইসাইড নোটও উদ্ধার করেছে পুলিশ । নোটে কাউকে দোষারোপ করেননি বিবেক । তাঁর এক সহকর্মী চিকিৎসক বলেন, ‘‌গত এক মাস আগেই তিনি ওই বিভাগে যোগ দেন। সেখানে দিনে ৭—৮জন করে করোনা রোগীর মৃত্যু হচ্ছিল। বহু চেষ্টা করেও রোগীদের বাঁচাতে পারছিলেন না বিবেক। এতেই মানসিক ভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েন তিনি।’‌

    গত নভেম্বরে ওই চিকিৎসকের বিয়ে হয়েছিল। বর্তমানে তাঁর স্ত্রী ২ মাসের অন্তঃসত্ত্বা।

    Published by:Simli Raha
    First published: