Delhi Covid-19: 'লকডাউন কোনও সুরাহা নয়, আমাদের করোনা নিয়েই বাঁচতে হবে!'

Delhi Covid-19: 'লকডাউন কোনও সুরাহা নয়, আমাদের করোনা নিয়েই বাঁচতে হবে!'

'লকডাউন কোনও সুরাহা নয়, আমাদের করোনা নিয়েই বাঁচতে হবে!'

কন্ট্যাক্ট ট্রেসিং করে আইসোলেশনে পাঠানো হচ্ছে তাঁদেরকে। গত ২৪ ঘণ্টায় দিল্লিতে নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ১৫৩৪ জন। সুস্থ হয়েছেন ৯৭১ জন। একদিনে মৃত্যু হয়েছে ৯ জনের।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: ফের ভারতে মাথাচারা দিয়ে উঠেছে করোনাভাইরাস। প্রতিদিনই বাড়ছে দ্বিতীয় ঢেউয়ে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা। এই পরিস্থিতিতে বেশ কিছু জায়গাই নাইট কারফিউ এবং লকডাউনের পথেও হাঁটতে চলেছে। তবে দেশের রাজধানীর স্বাস্থমন্ত্রী সত্যেন্দ্র জৈন বলছেন অন্য কথা। শনিবার তিনি বলেছেন, করোনা মোকাবিলায় লকডাউন কোনও পথ নয়। বরং এই ভাইরাসকে নিয়েই বাঁচতে হবে মানুষকে।

    স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেছেন, 'লকডাউন করোনা মোকাবিলার সুরাহা নয়। আমাদের বরং করোনার সঙ্গেই বেঁচে থাকতে হবে।' ২০২০ সালের মে মাসে দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালও এই কথাটিই বলেছিলেন। শনিবার দিল্লির স্বাস্থ্যমন্ত্রী সত্যেন্দ্র জৈন বলেছেন, 'লকডাউন হওয়ার কোনও সম্ভবনাই নেই। ইতিমধ্যেই লকডাউন হয়েছে এবং সেটার পিছনে যথেষ্ট কারণ ছিল। তখন কেউ জানতেন না যে কীভাবে করোনা ছড়াবে। তখন বলা হয়েছিল ১৪ দিনের সার্কেলে সংক্রমণ শেষ হবে। বিশেষজ্ঞরা সেই সময় বলেছিলেন ২১ দিন ঘরবন্দি থাকলে ভাইরাস ছড়ানো বন্ধ হয়ে যাবে। তার ফলে দীর্ঘদিন ধরেই লকডাউন করা হয়েছিল। কিন্তু করোনাভাইরাসকে আটকানো যায়নি। তাই আমার মনে হয় লকডাউন কোনও সুরাহা নয়।'

    তিনি আরও জানিয়েছেন, সংক্রমণের পরিমাণ বেড়ে যাওয়ার ফলে পরীক্ষার পরিমাণও বাড়ানো হয়েছে। প্রতিদিন প্রায় ৮৫ থেকে ৯০ হাজার পরীক্ষা করা হচ্ছে। কন্ট্যাক্ট ট্রেসিং করে আইসোলেশনে পাঠানো হচ্ছে তাঁদেরকে। গত ২৪ ঘণ্টায় দিল্লিতে নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ১৫৩৪ জন। সুস্থ হয়েছেন ৯৭১ জন। একদিনে মৃত্যু হয়েছে ৯ জনের।

    অন্যদিকে, স্বাস্থ্যমন্ত্রকের হিসেবে, দেশজুড়ে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৬২,২৫৮ জন। রোজই এই ভাইরাস নিজের রেকর্ড নিজে ভাঙছে। যা গত ১৬০ দিনের নিরিখে সর্বোচ্চ। ২০২১ এ দেশে দৈনিক করোনা আক্রান্তে নয়া রেকর্ড। এই বৃদ্ধির জেরে করোনায় আক্রান্তের মোট সংখ্যা গিয়ে দাঁড়িয়েছে ১ কোটি ১৯ লক্ষ ০৮ হাজার ৯১০ জন।

    Published by:Raima Chakraborty
    First published:

    লেটেস্ট খবর