কোভিড জয়ী দুর্গাপুরের কিংশুক গুপ্ত দান করলেন রক্তের প্লাজমা  

দুর্গাপুর ইস্পাত কারখানার কর্মী সেপকো টাউনশিপের বাসিন্দা কিংশুক গুপ্ত রক্তের প্লাজমা দান করেন।

দুর্গাপুর ইস্পাত কারখানার কর্মী সেপকো টাউনশিপের বাসিন্দা কিংশুক গুপ্ত রক্তের প্লাজমা দান করেন।

  • Share this:

#দুর্গাপুর : জেলার কোভিড যোদ্ধারাও এগিয়ে আসতে শুরু করেছেন প্লাজমা দান করতে। বালুরঘাট জেলা হাসপাতালের মেডিক্যাল অফিসার রোমিত দে-র পর রবিবার প্লাজমা দান করলেন দুর্গাপুরের কিংশুক গুপ্ত। করোনা ভাইরাস সংক্রমিত হয়ে গত ১২ জুলাই দুর্গাপুরের একটি কোভিড হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফেরেন ১৭ জুলাই। কিংশুক গুপ্তের সঙ্গে সঙ্গে করোনা ভাইরাস আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন ছিলেন তাঁর বাবা তাপস গুপ্ত, স্ত্রী নবনীতা গুপ্ত ও কন্যা সমাদ্রিতা গুপ্ত।

মহরম উপলক্ষে দুর্গাপুরের মুসলিম ওয়েলফেয়ার সোসাইটির উদ্যোগে এ দিন একটি রক্তদান শিবির অনুষ্ঠিত হয় সিটি সেন্টারে। শিবিরের সহযোগিতায় ছিল দুর্গাপুর মহকুমা ভলেন্টিয়ারি ব্লাড ডোনার্স ফোরাম। রবিবার এই শিবিরে দুর্গাপুর ইস্পাত কারখানার কর্মী সেপকো টাউনশিপের বাসিন্দা কিংশুক গুপ্ত রক্তের প্লাজমা দান করেন। কোভিড যোদ্ধা কিংশুক গুপ্ত  রক্তের প্লাজমা দান করার পরে জানিয়েছেন, 'কোভিড জয় করার পর প্লাজমা দান এক আলাদা তৃপ্তি।'

দুর্গাপুর মহকুমা ভলেন্টিয়ারি ব্লাড ডোনার্স ফোরামের সভাপতি কবি ঘোষ জানিয়েছেন, এ দিন পঁচিশ জন রক্তদাতা রক্তদান করেছেন। কিংশুক গুপ্তের স্ত্রী নবনীতা গুপ্তও প্লাজমা দান করতে এসেছিলেন। কিন্তু আইসিএমআরের বিধি নিষেধ থাকায় তাঁর প্লাজমা নেওয়া সম্ভব হয়নি। কোভিড যুদ্ধে জয়ীদের কাছে রক্তের প্লাজমা দানের আবেদন জানিয়েছে দুর্গাপুর মহকুমা ভলেন্টিয়ারি ব্লাড ডোনার্স ফোরাম।

Jayanta Biswas

Published by:Debamoy Ghosh
First published: