corona virus btn
corona virus btn
Loading

এখনও পরিস্থিতির উন্নতি হয়নি, মে মাসের শেষ সপ্তাহ পর্যন্ত নিয়ম মানুন: মমতা

এখনও পরিস্থিতির উন্নতি হয়নি, মে মাসের শেষ সপ্তাহ পর্যন্ত নিয়ম মানুন: মমতা
মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷

সোমবার থেকে রাজ্যের গ্রিন ও অরেঞ্জ জোনে শর্তসাপেক্ষে কিছু দোকান খোলায় ছাড়ের কথা ঘোষণা করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷

  • Share this:

#কলকাতা: সোমবারই স্পষ্ট করেছিলেন এখনই উঠছে না বিধিনিষেধ ৷ বুধবার নবান্নে সাংবাদিক বৈঠক থেকে আরও একবার সেই ঘোষণাই করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷ তিনি বলেন, ‘এখনও পরিস্থিতির উন্নতি হয়নি ৷ এখনই বাড়ি থেকে বেরোবেন না ৷ মে মাসের শেষ পর্যন্ত নিয়ম মানুন ৷’ তবে একইসঙ্গে রাজ্যে দোকান খোলাতেও অনুমতি দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী ৷ সোমবার থেকে রাজ্যের গ্রিন ও অরেঞ্জ জোনে শর্তসাপেক্ষে কিছু দোকান খোলায় ছাড়ের কথা ঘোষণা করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷ সোমবার থেকেই গ্রিন জোনে শর্ত সাপেক্ষে চলবে বেসরকারি বাস ৷

বুধবার বিকেলে সাংবাদিক বৈঠকে ধাপে ধাপে লকডাউন তোলার পরিকল্পনা জানালেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, ‘আরও কিছুদিন লকডাউন ৷ পশ্চিমবঙ্গ আগেই লকডাউন করেছে ৷ এখনও পরিস্থিতির উন্নতি হয়নি ৷ এখনই বাড়ি থেকে বেরোবেন না ৷ আরও কিছুদিন লকডাউন মানতে হবে ৷ মে মাসের শেষ পর্যন্ত লকডাউনের সম্ভাবনা ৷ সবসময় মাস্ক পরে থাকুন ৷ মাস্ক এখন আমাদের আরেকটা অঙ্গ ৷’

এদিন নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘দোকান খোলা নিয়ে আমরা কেন্দ্রের কোনও স্পষ্ট নির্দেশিকা পায়নি ৷ তাই রাজ্য সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সোমবার থেকে রাজ্যে গ্রিনজোনে কিছু দোকান খোলায় ছাড় দেওয়া হবে ৷ ’

মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী গ্রিনজোনে লকডাউনে ছাড় পাবে-

পাড়ার ছোট দোকান স্টেশনারি দোকান বইখাতার দোকান বৈদ্যুতিন সরঞ্জামের দোকান মোবাইল রি-চার্জের দোকান রংয়ের দোকান ব্যাটারি চার্জের দোকান লন্ড্রি চায়ের দোকান পান-সিগারেটের দোকান

তবে এর সঙ্গেই মুখ্যমন্ত্রী সতর্ক করেছেন, ‘দোকান খুললেও দোকানে কোনও জমায়েত করা যাবে না ৷ সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে ৷ চা-বিড়ি-পানের দোকান খুললেও সেখানে আড্ডা বসানো যাবে না ৷ চা খাওয়ার ইচ্ছে হলে চা নিয়ে বাড়ি চলে যান৷ পান সিগারেট খেতে হলে পান সিগারেট নিয়ে বাড়ি চলে যান ৷’ একইসঙ্গে তিনি এও বলেন, প্রত্যেক এলাকায় কোন কোন দোকান খুলতে পারবে তা সার্ভে করে জানাবেন পুলিশকর্মীরা ৷

তবে মুখ্যমন্ত্রী স্পষ্ট করেন, এখনই খুলছে না সেলুন ৷ কারণ সেখানে স্পর্শ এড়িয়ে কাজ করা সম্ভব নয় ৷ এছাড়া এখনই খুলছে না, শপিং কমপ্লেক্স, হকার্স কর্নার, ফুটপাতের ছোট দোকান, বড় ইলেকট্রনিক্স মল ৷ তবে শর্ত সাপেক্ষে গ্রিন জোনে কিছু কিছু স্টিল ও ইস্পাত কারখানা খোলা হবে ৷ গ্রিন জোনে নির্মাণ কাজও করা যাবে বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷

মুখ্যমন্ত্রীর কথায়, সোমবার থেকে গ্রিনজোনে বেসরকারি বাস চালানো যেতে পারে। কিন্তু বাসে কুড়িজনের বেশি যাত্রী নেওয়া চলবে না এবং বাস ডেলার বাইরে নিয়ে যাওয়া যাবে না ৷ বাস চালানোর জন্যে জেলাশাসক ও পুলিশ সুপারের থেকে আগাম ছাড়পত্রও জোগাড় করতে হবে।নির্দিষ্ট দূরত্ব পর্যন্ত যে বাসগুলি চলাচল করবে, তার ভিতর কোনও ভাবেই যেন স্বাস্থ্যবিধি লঙ্ঘিত না হয় সে ব্যাপারে সতর্ক করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। তার নির্দেশ, প্রতিদিন স্যানেটাইজ করতে হবে বাস। বেসরকারি বাসের পাশাপাশি শর্তসাপেক্ষ ভাবে ট্যাক্সি পথে নামানোর বিষয়েও ছাড়পত্র দেন মুখ্যমন্ত্রী৷

একইসঙ্গে এদিন সাংবাদিকদের বৈঠক থেকে নাম না করে রাজ্য বিজেপিকে তীব্র আক্রমণ করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷ সরব হন বাঙুর হাসপাতাল ও টিকিয়াপাড়ার ঘটনা নিয়েও ৷ করোনা পরিস্থিতিতে চিকিৎসকদের কাছে মমতার আর্জি, ‘প্রোটেকশন নিয়েই রোগী দেখুন ৷ রোগী দেখা ছাড়বেন না ৷ সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে সম্ভব হলে চেম্বার খুলুন ৷ শুধু করোনার চিকিৎসা হলে চলবে না ৷ অন্য রোগেরও চিকিৎসা করতে হবে ৷’

Published by: Elina Datta
First published: April 29, 2020, 6:33 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर