corona virus btn
corona virus btn
Loading

হাজারে হাজারে ভিন রাজ্য থেকে আসছেন পরিযায়ী শ্রমিকরা, ভয়ে কাঁটা জেলার বাসিন্দারা !

হাজারে হাজারে ভিন রাজ্য থেকে আসছেন পরিযায়ী শ্রমিকরা, ভয়ে কাঁটা জেলার বাসিন্দারা !

যত বেশি বাইরের রাজ্য থেকে মানুষ আসবেন, ততই জেলায় আক্রান্তের সংখ্যা বাড়তে থাকবে বলে আশঙ্কা করছেন বর্ধমানের বাসিন্দারা।

  • Share this:

#বর্ধমান: বাইরের রাজ্য থেকে বাসিন্দাদের আসা অব্যাহত পূর্ব বর্ধমান জেলায়। প্রতিদিনই বর্ধমান স্টেশনে ঢুকছে বিশেষ ট্রেন। হাজারে হাজারে যাত্রী নামছেন বর্ধমান স্টেশনে। অনেক সময় যাত্রীদের ভিড়ে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা সম্ভব হচ্ছে না। যত বেশি যাত্রী নামছেন, ততই উদ্বেগ বাড়ছে পূর্ব বর্ধমান জেলার বাসিন্দাদের মধ্যে। কারণ,এখনও পর্যন্ত যতজন আক্রান্ত হয়েছেন তাদের নব্বই শতাংশই বাইরের রাজ্য থেকে সম্প্রতি বাড়ি ফিরেছেন। তাই যত বেশি বাইরের রাজ্য থেকে বাসিন্দারা আসবেন, ততই জেলায় আক্রান্তের সংখ্যা বাড়তে থাকবে বলে আশঙ্কা করছেন বাসিন্দারা।

বাসিন্দাদের কথায়, সঠিকভাবে তাদের চিহ্নিত করে কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে রাখতে হবে ৷  তাদের লালারসের পরীক্ষা না হলে সংক্রমণ জেলার বিভিন্ন এলাকায় ছড়িয়ে পড়তে বিশেষ সময় লাগবে না। সবমিলিয়ে হাজারে হাজারে বাইরের রাজ্য থেকে পরিযায়ী শ্রমিকরা আসতে থাকায় করোনার ভয়ে কাঁটা হয়ে রয়েছেন জেলার বাসিন্দারা।

পূর্ব বর্ধমানে জেলাশাসক বিজয় ভারতী বলেন, ইতিমধ্যেই বিশেষ ট্রেনে বর্ধমান স্টেশনে বেশ কয়েক হাজার যাত্রী বাইরে রাজ্য থেকে এসেছেন। তাদের মধ্যে সাড়ে পাঁচ হাজারেরও বেশি যাত্রী এই জেলার বাসিন্দা। এছাড়াও বাসে বা অন্যান্য গাড়িতে আরও ১৮ হাজারের বেশি যাত্রী জেলায় প্রবেশ করেছেন। তাদের মধ্যে ব্যাপকভাবে করোনা আক্রান্ত এমন পাঁচ রাজ্য থেকে যারা এসেছেন তাদের চিহ্নিত করে কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে রাখার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। তারা যাতে বাড়ি চলে যেতে না পারেন সে ব্যাপারে পুলিশ প্রশাসনকে সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে। ওই সব রাজ্য থেকে আসা বাসিন্দাদের নমুনা পরীক্ষা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। নমুনা পরীক্ষায় করোনা সংক্রমণ না মিললে তাদের হোম কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হতে পারে।

যদিও জেলার বাসিন্দাদের অভিযোগ, অনেকেই নিজেদের উদ্যোগে বাস ভাড়া করে বাইরের রাজ্য থেকে বাড়ি ফিরে এসেছেন। তাদের কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে নিয়ে যাওয়া হয়নি। অনেকেই হোম কোয়ারেন্টাইন যথাযথভাবে পালন করছেন না। তারা মাঝে মধ্যেই বাড়ির বাইরে বেরিয়ে আসছেন। হাটে বাজারে ঘোরাঘুরি করছেন। তাই তাদের মাধ্যমে করোনার সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা থেকেই যাচ্ছে। বাইরের রাজ্য থেকে যারা আসছেন তাদের অনেককেই কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে না রেখে বাড়িতে পাঠিয়ে দেওয়া হচ্ছে বলেও অভিযোগ।

শরদিন্দু ঘোষ

Published by: Siddhartha Sarkar
First published: May 30, 2020, 4:19 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर