করোনা ভাইরাস আতঙ্কে পোলট্রি শিল্পে রেকর্ড ক্ষতি ! সবটাই কি গুজব ?

করোনা ভাইরাস আতঙ্কে পোলট্রি শিল্পে রেকর্ড ক্ষতি ! সবটাই কি গুজব ?

গত কয়েক দিনে এ রাজ্যে পোলট্রি শিল্পে ক্ষতির আর্থিক অঙ্ক প্রায় ৩০০ কোটি ছাড়িয়েছে।

  • Share this:

#কলকাতা:  করোনা ভাইরাস নিয়ে আতঙ্কের ঠেলায় লাটে উঠতে বসেছে রাজ্যের পোলট্রি শিল্প। মুরগির মাংস এড়িয়ে চলায়,ইতিমধ্যেই ক্ষতির ভালোরকম আঁচ লেগেছে পশ্চিমবঙ্গের পোলট্রি ব্যবসাতেও।  গত কয়েক দিনে এ রাজ্যে পোলট্রি শিল্পে ক্ষতির আর্থিক অঙ্ক প্রায় ৩০০ কোটি ছাড়িয়েছে।

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসকে কেন্দ্র করে নানাবিধ খবর ছড়াচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। যার অধিকাংশই ভিত্তিহীন বলে দাবি মুরগি ব্যবসায়ীদের।।কিন্তু, সেই গুজবই গিলছেন আম জনতা। সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়েছে,  মুরগি থেকে করোনা ভাইরাস ছড়াচ্ছে। কিছু  ভিডিও-ও  ভাইরাল করা  হয়েছে। যা দেখে সাধারণ মানুষ  আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়েছেন।

গড়িয়া অঞ্চলে বাজার করতে আসা  স্বপন রায় নামের এক ক্রেতার কথায়, শুনেছি মুরগি থেকেই নাকি ছড়াচ্ছে  করোনাভাইরাস । তাই এখন আর মুরগির মাংসের দোকান মুখো হচ্ছি না। এই অবস্থায় লাটে উঠতে  বসেছে তাদের ব্যবসা বলে দাবি কলকাতার বেশ কয়েকজন মুরগির মাংস ব্যবসায়ীর।

কলকাতার উত্তর থেকে দক্ষিণ , সর্বত্রই  ছবিটা এক। সামনেই হোলি, দোল উৎসব। চলছে বিয়ের মরশুমও। তাই এই অবস্থা চলতে থাকলে তারা যে কী  করবে কিছুই ভেবে উঠতে পারছেন না। দুশ্চিন্তার ছাপ চোখে মুখে স্পষ্ট  অনেক ব্যবসায়ীর। তাঁদেরই একজন মিলন দাস বললেন,  ‘‘উৎসবের মশুম চলছে। কিন্তু ব্যবসার যা হাল তাতে করে সংসার চলবে কী করে ?’’ তাঁর আর্জি, সরকারের তরফে এই গুজবের মোকাবিলায়  প্রচার করে বিভ্রান্তি দূর করা হোক ।

বেশ কয়েক মাস আগে ভাগাড়কাণ্ড প্রকাশ্যে আসার পরে, রাজ্যে মুরগির মাংসের চাহিদা এক ধাক্কায় অনেকটা কমে গিয়েছিল। আর বর্তমানে করোনা ভাইরাস আতঙ্কে রাজ্যের সর্বত্র পোলট্রির মুরগির চাহিদা তলানিতে নেমে এসেছে। দোকান খুলে, মাছি তাড়াচ্ছেন দোকিনারা। ফিরেও তাকাচ্ছেন না ক্রেতারা। মন্দার বাজারে মুরগির মাংসের দাম কমিয়েও আখেরে সেই ক্ষতি পুষিয়ে উঠতে পারছে না ব্যবসায়ী মহল। কোনও কোনও ক্রেতা তো আবার  ডিম কিনতেও  সাহস পাচ্ছেন না। ফলে ডিমের ব্যবসায়ীদেরও কপালে চিন্তার মোটা ভাঁজ পড়েছে।পশ্চিমবঙ্গ পোলট্রি ফেডারেশনের এক কর্মকর্তার বক্তব্য, মুরগির সঙ্গে করোনার যে সম্পর্ক নেই, তা ইতিমধ্যেই কেন্দ্রীয় প্রাণিসম্পদ মন্ত্রক বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছে। তবুও ক্রেতারা আশ্বস্ত হতে পারছেন না। ব্যবসার এই বেহাল  অবস্থায় রাজ্য সরকারের কাছে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপের আর্জি জানাচ্ছেন তাঁরা।

ফেডারেশনের দেওয়া হিসেব অনুযায়ী, গুজবের জেরে শেষ তিন সপ্তাহে রাজ্যে  মুরগির বিক্রি কমেছে ৪০%। করোনা থেকে মরফিন। সবই মারণ ভাইরাসের নাম। মুরগি থেকেই নাকি ছড়াচ্ছে সেইসব। সোশ্যাল মিডিয়াজুড়ে রটছে তেমনটাই। রুগ্ন মুরগির ছবি। তার সঙ্গে কয়েক লাইনের সতর্ক বার্তা ছড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ সহ সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে। সে সব দেখে   চিকেন খাওয়া তো দূরের কথা , দোকান দেখলে এখন উলটো মুখে হাঁটছেন ক্রেতারা।হঠাৎ করে বিক্রি কমে যাওয়ার চিন্তিত বিক্রেতারা।  বিক্রি কমেছে হোটেল , রেস্তোরাঁ  এবং স্ট্রিটফুড কর্নার গুলিতেও।  চিলি চিকেন থেকে চিকেন বিরিয়ানি, চিকেন তন্দুরি - সর্বত্রই থাবা বসিয়েছে করোনাভাইরাস আতঙ্ক। ক্যাটারিং ব্যবসার সঙ্গে যুক্তরাও পড়েছেন বিপাকে। বিয়েবাড়ির মেনুতে চিকেনের পদ সাধারণত থাকেই। বিয়ের মরসুম   হওয়ায় অনেক আগে থেকেই  চিকেনের দোকানিদের অগ্রিম দিলেও অনেকেই শেষ মুহূর্তে সেই পদ আতঙ্কে বাতিল করছেন।সবমিলিয়ে একদিকে চরম আতঙ্ক । আর অন্যদিকে ব্যবসায়ীদের এখন মাথায় হাত। ব্যবসায়ীরা বলছেন , 'গুজবে কান দেবেন না । ।গুজব রটাবেন না '।

VENKATESWAR  LAHIRI 

First published: February 29, 2020, 7:52 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर