করোনা রোগীকে বাড়ি পাঠানোর অভিযোগ ! কাঠগড়ায় হাসপাতালের সুপার

হাওড়া হাসপাতালের পর এবার উলুবেড়িয়া মহকুমা হাসপাতালের সুপারের ভুল সিদ্ধান্তে সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কা হাসপাতাল ও সংলগ্ন এলাকায় ৷

হাওড়া হাসপাতালের পর এবার উলুবেড়িয়া মহকুমা হাসপাতালের সুপারের ভুল সিদ্ধান্তে সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কা হাসপাতাল ও সংলগ্ন এলাকায় ৷

  • Share this:

#হাওড়া: করোনা রোগীকে জেনারেল বেডে রেখে চিকিৎসা করানোর সিদ্ধান্তের জেরে হাওড়া হাসপাতালের সুপারকে করোনা আক্রান্ত হতে হয়েছিল বলে অভিযোগ ওঠে ৷ এমনকী, অনেক চিকিৎসক ও নার্সও আক্রান্ত হয়েছিলেন ৷ সংক্রমণ ছড়িয়েছিল গোটা হাসপাতালে ৷ যার জেরে বন্ধ হয়েছে হাওড়া হাসপাতালের চিকিৎসা ব্যবস্থা ৷

হাওড়া হাসপাতালের পর এবার উলুবেড়িয়া মহকুমা হাসপাতালের সুপারের ভুল সিদ্ধান্তে সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কা হাসপাতাল ও সংলগ্ন এলাকায় ৷ উলুবেড়িয়া হাসপাতালের আই সি ইউ-তে কর্মরত এক চতুর্থ শ্রেণীর কর্মীর শরীরে করোনা সংক্রমণের খোঁজ পাওয়ার পরও তাকে হাসপাতালে না পাঠিয়ে বাড়ি পাঠিয়ে দিলেন হাসপাতালের সুপার ! যার জেরে শুধু হাসপাতাল না সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কা তৈরি হয়েছে হাসপাতাল কর্মীর এলাকাতেও ৷

খবর পেয়ে জেলা স্বাস্থ্য দফতর করোনা আক্রান্ত কর্মীকে বাড়ি থেকে নিয়ে গিয়ে ফুলেশ্বরের বেসরকারি হাসপাতলে ভর্তি করে | জেলা প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে উলুবেড়িয়া মহকুমা হাসপাতালে বিভিন্ন জায়গা থেকে রোগীরা আসায় হাসপাতালের কর্মীদের  ১৭ জন চতুর্থ শ্রেণীর কর্মীর লালা রসের নমুনা পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়, তবে তাদের কাজকর্ম বন্ধ করা হয়নি, কারণ তাদের শরীরে কোনও উপসর্গ ছিল না |

রবিবার পুরসভার ৩২ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা উলুবেড়িয়া মহকুমা হাসপাতালের ওই কর্মীর  রিপোর্ট পজিটিভ আসে। এমনকী, রবিবারও সেই কর্মী কাজে নিযুক্ত ছিলেন হাসপাতালে | রিপোর্ট আসতেই তড়িঘড়ি বিষয়টি ধামাচাপা দিতেই তাকে বাড়ি ফেরার নির্দেশ দেওয়া হয় হাসপাতালের সুপারের তরফে | এদিকে বিষয়টি জানাজানি হতেই হাসপাতালের বাকি কর্মী ও নার্স চিকিৎসক-সহ ভর্তি থাকা রোগীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পরে |

আক্রান্ত ব্যক্তির পরিবারের ৪ সদস্যকে কোয়ারেন্টাইনে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয় প্রশাসন | পুলিশের তরফে এলাকা সিল করার পাশাপাশি কন্টেইনমেন্ট জোন হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। অন্যদিকে আক্রান্ত কর্মীর সংস্পর্শে আসা হাসপাতালের চিকিৎসক, নার্স ও আইসিইউ-তে ভর্তি রোগীদের লালারস পরীক্ষার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে | পরিস্থিতির ওপর নজর রাখা হচ্ছে, তবে এখুনি হাসপাতাল বন্ধের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি |

Published by:Siddhartha Sarkar
First published: