দুর্বিসহ, মারাত্মক করোনা অভিজ্ঞতা জানালেন রোগী, বোঝালেন মৃত্যুযন্ত্রণা হয়ত এর থেকে ভাল!

দুর্বিসহ, মারাত্মক করোনা অভিজ্ঞতা জানালেন রোগী, বোঝালেন মৃত্যুযন্ত্রণা হয়ত এর থেকে ভাল!
করোনা রোগীর অভিজ্ঞতা

শারীরিক ও মানসিক যে যন্ত্রণা তিনি পেয়েছেন করোনা আক্রান্ত হয়ে, সে কথা সোশ্যাল মিডিয়ায় লিখলেন মহিলা৷ শুধু শ্বাসকষ্ট নয়, তাঁর স্নায়ুর সমস্যা হয়েছিল ভয়ঙ্কর, জানালেন তিনি৷

  • Share this:

    #ওয়াশিংটন: ভয়ঙ্কর, মারাত্মক এমনই অভিজ্ঞতার কথা সরাসরি জানালেন করোনা রোগী৷ নিজে মুখে তুলে ধরলেন অসম্ভব শরীর খারাপের কথা৷ এতটাই খারাপ তাঁর পরিস্থিতি যে, তিনি লিখলেন যে 'মরতে চাইনি ঠিকই কিন্তু এই করোনা নিয়ে বাঁচাও খুবই অসহ্যকর'৷

    ট্যুইটারে নিজের কথা তুলে ধরেছেন মার্কিন মহিলা দানি অলিভার৷ করোনার জেরে প্রচন্ড শারীরিক ও মানসিক যন্ত্রণায় ভুগতে হয়েছে তাঁকে৷ মার্চ মাসের করোনা আক্রান্ত হন দানি৷ শ্বাসের সমস্যা, কার্ডিওভাসকুলার (cardiovascular) এবং স্নায়ুর (neurological) সমস্যা হয়েছিল মারাত্মক৷ করোনা অভিজ্ঞতা আতঙ্কজনক, এইভাবেই রোগের সঙ্গে লড়াই করার ব্যাখ্যা দিয়েছেন দানি৷ তবে তিনি যেই কষ্টকর উপসর্গের কথা উল্লেখ করেছেন, তাকে মান্যতা দেয়নি সেন্টারস ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন (Centers for Disease Control and Prevention)৷

    কী কী উপসর্গে ভুগছেন তিনি? দানি জানিয়েছেন যে, তাঁর হার্টবিট ঘুমের সময়ও ১৬০ থাকছে৷ এরফলে সারাক্ষণ যেন ধড়ফড়ানি অনুভব করছেন তিনি৷ 'বুকে ব্যাথা এমন যেন মনে হচ্ছে কেউ চেপে বসে রয়েছে৷ পিঠে আর পাঁজরে ব্যাথাটা এমন যেন কেউ মেরেছে৷ তার সঙ্গে প্রচন্ড দুর্বলতা রয়েছে৷ এমনই দুর্বল লাগছে যে মাঝেমাঝে মনে হয়েছে যে আমি যেন মরেই যাচ্ছি'৷

    এর সঙ্গে পেট খারাপ, ডায়রিয়া, অ্যাসিড রিফ্লাক্স চলছে ২ মাস ধরে! জানিয়েছেন দানি৷ সঙ্গে যুক্ত হয়েছে অসম্ভব মাথা ঘোরানোর উপসর্গও৷ সর্বক্ষণ নিশ্বাঃস তিনি অসুবিধা হচ্ছে৷ তবে এগুলোর কোনও ব্যাখ্যা দিতে পারছেন না চিকিৎসকরা৷ এটাও জানিয়েছেন মার্কিন মহিলা৷

    এসবের ফলে মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছেন তিনি৷ সর্বদা যেন তিনি বিভিন্ন আওয়াজ শুনতে পারছেন৷ রাতে ঠিক করে ঘুমোতে পারছেন না এবং ঘুমের মধ্যে শ্বাসের সমস্যার ফলে তিনি উঠে পড়ছেন৷ একইসঙ্গে কথা ঠিক ভাবে না বলতে পারা, না পড়তে পারার মতো অসুবিধাও হচ্ছে তাঁর৷

    ইতিমধ্যেই আমেরিকায় করোনায় মৃত ১লক্ষ ২৯ হাজার৷ এবং ২কোটি ৭০ লক্ষ মানুষ আক্রান্ত৷

    Published by:Pooja Basu
    First published:

    লেটেস্ট খবর