• Home
  • »
  • News
  • »
  • coronavirus-latest-news
  • »
  • ভারতের পাশাপাশি শ্রীলঙ্কাও একই ভাবে বিদেশিদের সে দেশে ঢোকার ওপর জারি করল নিষেধাজ্ঞা

ভারতের পাশাপাশি শ্রীলঙ্কাও একই ভাবে বিদেশিদের সে দেশে ঢোকার ওপর জারি করল নিষেধাজ্ঞা

কূটনৈতিক, অফিসিয়াল, রাষ্ট্রপুঞ্জ, কর্মক্ষেত্র-সহ বেশ কয়েক ধরণের ভিসা বাদ দিয়ে বাকি সব ভিসাই বাতিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারত সরকার।

কূটনৈতিক, অফিসিয়াল, রাষ্ট্রপুঞ্জ, কর্মক্ষেত্র-সহ বেশ কয়েক ধরণের ভিসা বাদ দিয়ে বাকি সব ভিসাই বাতিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারত সরকার।

কূটনৈতিক, অফিসিয়াল, রাষ্ট্রপুঞ্জ, কর্মক্ষেত্র-সহ বেশ কয়েক ধরণের ভিসা বাদ দিয়ে বাকি সব ভিসাই বাতিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারত সরকার।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: করোনা আতঙ্কের জেরে এ বার বিদেশিদের ভারতে আসার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করল কেন্দ্রীয় সরকার। শুধু ভারতই নয়, শ্রীলঙ্কাও একই ভাবে বিদেশিদের দেশে ঢোকার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। এই নিষেধাজ্ঞা জারি হয়েছে অনির্দিষ্টকালের জন্য। তবে কূটনৈতিক, অফিসিয়াল এবং কর্মক্ষেত্রের ভিসার জন্য এই নিয়ম প্রযোজ্য নয় বলে জানিয়েছে শ্রীলঙ্কা।

কূটনৈতিক, অফিসিয়াল, রাষ্ট্রপুঞ্জ, কর্মক্ষেত্র-সহ বেশ কয়েক ধরণের ভিসা বাদ দিয়ে বাকি সব ভিসাই বাতিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারত সরকার। ১১ মার্চ রাতে জারি করা ওই নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, বিশেষ কোনও প্রয়োজনে কারও ভিসা দরকার হলে তাঁকে সংশ্লিষ্ট ইন্ডিয়া মিশন অফিসে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে। ভারত সরকারের জারি করা ওই নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, ১৩ তারিখ GMT সময় রাত ১২টা থেকে ওই নির্দেশ কার্যকর করা হবে। ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত প্রাথমিক ভাবে এই নির্দেশ কার্যকর থাকবে। তার পরে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

ইতিমধ্যেই করোনা আতঙ্কের জেরে সারা দেশে যে কোনও রকম সভা, সমাবেশ বা ভিড় বাতিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারত সরকার। সে জন্য ১৩ তারিখের পরে কোনও খেলা হলেও তা দর্শকশূন্য স্টেডিয়ামে করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এই অবস্থায় যে কোনও রকম ভাবে করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে উঠে পড়ে লেগেছে ভারত সরকার। বিদেশ থেকে বিমানে আসা যাত্রীদের জন্য নিষেধাজ্ঞা জারি তো হয়েইছে। স্থলপথের সীমান্তের উপরেও একই রকম নিষেধাজ্ঞা জারি হয়েছে।

চিন, ইতালি, কোরিয়া, ফ্রান্স, স্পেন, জার্মানি এবং ইরান থেকে যে সব ভারতীয় দেশে ফিরতে চাইবেন, তাঁদের ক্ষেত্রেও বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। দেশে ফেরার পরে বাধ্যতামূলক ভাবে তাঁদের ১৪ দিন পৃথক ভাবে হাসপাতালে নজরদারিতে থাকতে হবে। তাঁদের সম্পূর্ণ কোয়ারান্টাইন করার পরেই ছাড়া হবে। এমনকী, বিদেশ থেকে ফেরার পরে যদি দেখা যায়, কেউ করোনায় আক্রান্ত নন, তাঁদের ক্ষেত্রেও এই কোয়ারান্টাইন প্রক্রিয়া বরাদ্দ করা হয়েছে।

Published by:Siddhartha Sarkar
First published: