করোনা সতর্কতায় শিলিগুড়িতে নয়া নোটিশ - "নো মাস্ক, নো ওয়েল"

মাস্ক পড়ে না এলে পেট্রোল বা ডিজেল দেওয়া হচ্ছে না।

মাস্ক পড়ে না এলে পেট্রোল বা ডিজেল দেওয়া হচ্ছে না।

  • Share this:

#শিলিগুড়ি: রাজ্যে নতুন করে আরও ২জন করোনা আক্রান্ত। এনিয়ে রাজ্যে আক্রান্তের সংখ্যাটা বেড়ে গিয়ে দাঁড়ালো ১৭। দেশেও হু হু করে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। বিভিন্ন জেলা হাসপাতাল এবং মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালগুলিতেও করোনা সন্দেহে রোগী ভর্তির সংখ্যা বাড়ছে। সর্বত্রই কড়া সতর্কতা নেওয়া হয়েছে।

সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার পরামর্শ দিয়েছে রাজ্য এবং কেন্দ্র। বিভিন্ন বাজার, মার্কেটে টানা হয়েছে লক্ষন রেখা। যতটা সম্ভব ধীরে ধীরে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখেই চলছে কেনাকাটা। দেশ জুড়ে লকডাউন চলছে। বিভিন্ন বাজার, মার্কেটে নোটিশ জারি করা হয়েছে সতর্কতা অবলম্বন করে আসতে হবে। সরকারী নির্দেশ মেনে চলতে হবে। হ্যাণ্ড গ্লাভস ব্যবহার করতে হবে। সঙ্গে মাস্কও পড়ে বাড়ি থেকে বের হতে হবে। নইলে মার্কেট বা দোকানে আসতে পারবেন না। জিনিসপত্র দেওয়া যাবে না। আর এর জেরে সতর্ক ক্রেতারাও। এবারে পেট্রোল পাম্পেও পড়লো নোটিশ। তাতে বড় বড় করে লেখা - "নো মাস্ক। নো ওয়েল"।

শিলিগুড়ির মাটিগাড়ার একটি পেট্রোল পাম্পে পড়েছে এই নোটিশ। মাস্ক পড়ে না এলে পেট্রোল বা ডিজেল দেওয়া হচ্ছে না। সে গাড়ির চালক হোক কিংবা মোটর বাইক চালক! সকলের জন্যই একই ফরমান। এমনকী পাম্প কর্মীরাও ব্যবহার কিরছেন হ্যাণ্ড গ্লাভস এবং মাস্ক। করোনা সতর্কতা হিসেবেই এই নোটিশ, জানালেন পেট্রোল পাম্প মালিক। কেননা পাম্প কর্মী ও চালকের মধ্যে থাকে খুবই কম দূরত্ব। সেইসঙ্গে শিলিগুড়ির প্রতিটি পেট্রোল পাম্পে হ্যাণ্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। পেমেন্টের আগে গ্রাহকদের হাত স্যানিটাইজড করতে হবে।তারপর সব কথা। পাম্প কর্মীরাও ঘন ঘন নিজেদের হাত সাবান দিয়ে ধুয়ে নিচ্ছেন। আবার ব্যবহার করছেন হ্যাণ্ড স্যানিটাইজারও। ধীরে ধীরে অন্য পেট্রোল পাম্পগুলোতেও একই নোটিশ পড়তে চলেছে। করোনা নিয়ে আতঙ্কিত নয়, সতর্ক থাকবারই পরামর্শ দিয়েছেন স্বাস্থ্য দপ্তর।

Partha Pratim Sarkar

Published by:Ananya Chakraborty
First published: