Maharashtra Lockdown: করোনার গ্রাফে নেই ভাটা, মহারাষ্ট্রে আংশিক লকডাউন বাড়ল ১ জুন পর্যন্ত

করোনার গ্রাফে নেই ভাটা, মহারাষ্ট্রে আংশিক লকডাউন বাড়ল ১ জুন পর্যন্ত

রাজ্যে ঢোকার ক্ষেত্রেও করোনা নেগেটিভ RT-PCR (Corona Negative Report) রিপোর্ট দেখানো বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। ৪৮ ঘণ্টা আগে করা রিপোর্ট দেখাতে পারলে তবেই মহারাষ্ট্রে ঢুকতে পারবেন কেউ।

  • Share this:

    #মুম্বই: মহারাষ্ট্রের রাজ্যজুড়ে করোনাভাইরাসের (Maharashtra Coronavirus) বাড়বাড়ন্তে কোনও ভাটা পড়েনি। ফলে রাজ্যের করোনাবিধি মেনে চলার আংশিক লকডাউন আরও বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিল সরকার। আগামী ১ জুন সকাল ৭টা পর্যন্ত মহারাষ্ট্রের আংশিক লকডাউন (Maharashtra Lockdown) পালন করা হবে। রাজ্যে ঢোকার ক্ষেত্রেও করোনা নেগেটিভ RT-PCR (Corona Negative Report) রিপোর্ট দেখানো বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। ৪৮ ঘণ্টা আগে করা রিপোর্ট দেখাতে পারলে তবেই মহারাষ্ট্রে ঢুকতে পারবেন কেউ।

    তবে লকডাউন চললেও প্রতিদিন ৪ ঘণ্টা করে জরুরি পণ্যের দোকান খোলা রাখার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। একইসঙ্গে সরকার জানিয়েছে, ৫০ শতাংশ গণপরিবহণ চালু রাখা যাবে। তবে জরুরি ভিত্তিতেই সফর করা যাবে বাস, অটো, ট্যাক্সিতে। প্রয়োজনে যাত্রীকে প্রমাণ করতে হতে পারে সফরের কারণ। আপাতত বিয়ে বা অনুষ্ঠানের জন্য মাত্র ২৫ জনের জমায়েতের অনুমতি দিয়েছে মহারাষ্ট্র সরকার। তবে সেই অনুষ্ঠান ২ ঘণ্টার মধ্যে শেষ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

    বুধবারই সংক্রমণ নিয়ে মহারাষ্ট্রের মন্ত্রিসভার বৈঠক বসে। সেখানেই মহারাষ্ট্রের স্বাস্থ্যমন্ত্রী রাজেশ তোপ জানিয়েছিলেন, রাজ্যে সংক্রমণের সংখ্যা এখনও দেশের মোট সংক্রমণের প্রায় অর্ধেক। সংক্রমণের হার কমলেও রাজ্যে সক্রিয় রোগীর সংখ্যা এখনও সেভাবে কমেনি। এর পরই মহারাষ্ট্রে লকডাউনের মেয়াদ বৃদ্ধির ঘোষণা করে সরকার। এর আগে ১৫ মে পর্যন্ত মহারাষ্ট্রে লকডাউনের ঘোষণা করা হয়েছিল। বৃহস্পতিবার সেই মেয়াদ আরও ১৬ দিন বাড়িয়ে দেওয়া হল মহারাষ্ট্র সরকারের তরফে।

    অন্যদিকে, কেন্দ্রীয় প্যানেলের নতুন সুপারিশ, যাঁরা করোনাভাইরাসে (Covid-19) আক্রান্ত হয়ে সুস্থ হয়ে উঠছেন, তাঁরা যেন সুস্থ হওয়ার ৬ মাস পর থেকে করোনার টিকা (Coronavirus Vaccine) নেওয়া শুরু করেন। কেন্দ্রের উপদেষ্টা প্যানেল, দ্য ন্যাশনাল টেকনিকাল অ্যাডভাইজরি গ্রুপ অন ইমিউনিজেশন (NTAGI)-এর তরফে এমনই সুপারিশ করা হয়েছে বৃহস্পতিবার। এরই সঙ্গে এই উপদেষ্টা প্যানেলের সুপারিশ, কোভিশিল্ড করোনা টিকা নেওয়ার ক্ষেত্রেও দু'টি ডোজের মধ্যেকার সময়সীমা বাড়ানো হোক। সেখানে বলা হয়েছে, প্রথম কোভিশিল্ডের টিকা থেকে দ্বিতীয় ডোজের ক্ষেত্রে অন্তত ১২ থেকে ১৬ সপ্তাহের ফারাক রাখা হোক।

    Published by:Raima Chakraborty
    First published: