বহুদিন বাদে স্বস্তি দিয়ে নামল গ্রাফ!

কোভিড প্রোটোকল মেনে চলতেই হবে, বলছেন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকেরা

কোভিড প্রোটোকল মেনে চলতেই হবে, বলছেন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকেরা

কোভিড প্রোটোকল মেনে চলতেই হবে, বলছেন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকেরা

  • Share this:

#শিলিগুড়ি: অনেক দিন পর স্বস্তি এনে দিল গ্রাফ। এক ধাক্কায় অনেকটাই কম আক্রান্তের সংখ্যা। জেলার পাহাড় থেকে পুরসভা, এমনকী গ্রামাঞ্চলেও নেমেছে গ্রাফ। ওঠা নামা করবেই। এনিয়ে উচ্ছ্বাসের কিছু নেই। উলটে সদা সাবধানতা অবলম্বন করে চলতে হবে, বলছেন চিকিৎসকেরা। মাস্ক মাস্ট! আর সার্জিক্যাল মাস্ক ব্যবহারের পর তা ফেলে দেওয়ার সময় যেন ফিতে কেটে দেওয়া হয়। তারপর ঢাকা বাক্সে ফেলে দিতে হবে। যাতে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী দ্বিতীয়বার ব্যবহারযোগ্য করে তুলতে না পারে। ইতিউতি যেন ব্যবহৃত মাস্ক বা গ্লাভস ফেলা না হয়। এদিকটা লক্ষ্য রাখতেই হবে। সেইসঙ্গে কঠিনভাবে মানতে সোশ্যাল ডিস্টেনশিং। আর এক জায়গায় ১৫ মিনিটের বেশী সময় কাটানো চলবে না। শিলিগুড়ির বিশিষ্ট চিকিৎসক কল্যান খান আরো জানান, হ্যাণ্ড স্যানিটাইজার হোক বা সাবান জল দিয়ে হাত ধুতে হবে ২০ থেকে ৪০ সেকেণ্ড। তাহলেই আসবে সাফল্য। কেননা এখোনো এই অতিমারি করোনার কোনো টিকা আবিষ্কার হয়নি। তাঁর দাবী, এক কথায় সরকারী স্বাস্থ্য বিধি মেনে চললেই কমবে প্রকোপ। আর সঙ্গে রাখতে হবে চাঙ্গা মনোবল। তাহলে আসবে এই যুদ্ধে সাফল্য। শিলিগুড়িতেও বাড়ছে সুস্থতার হার। আজ সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৫২ জন। অর্থাৎ চিকিৎসায় ভালোই সাড়া মিলছে। সাধারন মানুষ অবহেলা না করে স্বাস্থ্য বিধি মানলেই গ্রাফ নামতে থাকবে। গত ২৪ ঘন্টায় দার্জিলিংয়ের পাহাড় ও গ্রামাঞ্চল এবং শিলিগুড়ি পুরসভার ৪৭টি ওয়ার্ড মিলতে আক্রান্ত হয়েছেন ৫৪ জন! দীর্ঘদিন বাদে নামলো গ্রাফ। যা যথেষ্টই স্বস্তিকর। এর মধ্যে পুর এলাকায় আক্রান্ত মাত্র ১৩ জন। গ্রামাঞ্চলে আক্রান্তের সংখ্যা ২৬ জন। যার মধ্যে নকশালবাড়িতে ১৪ জন, মাটিগাড়ায় ৯ জন এবং খড়িবাড়িতে ৩ জন। পাহাড়ে নতুন করে সংক্রমিত ১৫ জন। কিছুটা কমেছে। এর মধ্যে কার্শিয়ংয়ের পুরসভা ও গ্রামীন এলাকা মিলিয়ে আক্রান্ত৮ জন। পুলবাজারে ৬ জন এবং দার্জিলিং পুরসভা এলাকায় ১ আক্রান্তের খোঁজ মিলেছে।

Partha Sarkar

Published by:Debalina Datta
First published: