রাত পোহালেই শুরু টিকাকরণ, পূর্ব বর্ধমানের ১৩ কেন্দ্রে থেকে দেওয়া হবে করোনার টিকা

রাত পোহালেই শুরু টিকাকরণ, পূর্ব বর্ধমানের ১৩ কেন্দ্রে থেকে দেওয়া হবে করোনার টিকা
জেলা স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রতিটি কেন্দ্রে ভ্যাকসিন দেওয়ার জন্য তিনটি করে ঘর নির্দিষ্ট করা হয়েছে।

জেলা স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রতিটি কেন্দ্রে ভ্যাকসিন দেওয়ার জন্য তিনটি করে ঘর নির্দিষ্ট করা হয়েছে।

  • Share this:

#বর্ধমান: আগামীকাল শনিবার থেকে পূর্ব বর্ধমান জেলায় তেরটি কেন্দ্র থেকে করোনার ভ্যাকসিন দেওয়ার কাজ শুরু হবে। ইতিমধ্যেই সেইসব কেন্দ্রগুলিতে ভ্যাকসিন পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। কড়া নিরাপত্তায় কেন্দ্রগুলিতে সেই ভ্যাকসিন নির্দিষ্ট তাপমাত্রায় রাখা হয়েছে। এখন আগামীকালের ভ্যাকসিন দেওয়ার কাজ শুরুর শেষ পর্যায়ের প্রস্তুতি চলছে। প্রথম দফায় স্বাস্থ্য পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত সরকারি ও বেসরকারি ডাক্তার নার্স, আশা কর্মী-সহ অন্যান্যদের এই ভ্যাকসিনের আওতায় নিয়ে আসা হচ্ছে।

পূর্ব বর্ধমান জেলার যে তেরটি কেন্দ্র থেকে এই ভ্যাকসিন দেওয়ার কাজ শুরু হবে তা আগেই নির্দিষ্ট করা হয়েছিল। জেলা স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, বর্ধমান মেডিকেল কলেজের পিপি ইউনিট, বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজের কমিউনিটি মেডিসিন বিভাগ ও বর্ধমানের ঝুরঝুরে পুলে পুরসভার স্বাস্থ্যকেন্দ্রে এই ভ্যাকসিন দেওয়া হবে। এছাড়াও ভ্যাকসিন দেওয়া হবে কাটোয়া মহকুমা হাসপাতাল, কালনা মহকুমা হাসপাতাল, মন্তেশ্বর ব্লক প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্র, ভাতার গ্রামীণ হাসপাতাল, মেমারি গ্রামীণ হাসপাতাল থেকে। বাকি পাঁচটি কেন্দ্র হল পুরষা প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্র, আদ্রাহাটি প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্র, কান্দরা প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্র, কেতুগ্রাম ব্লক প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্র ও পূর্বস্থলী ব্লক প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্র।

জেলা স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রতিটি কেন্দ্রে ভ্যাকসিন দেওয়ার জন্য তিনটি করে ঘর নির্দিষ্ট করা হয়েছে। একটি ঘরে ভ্যাকসিন রাখা হয়েছে। দ্বিতীয় ঘরে ভ্যাকসিন দেওয়া হবে। তৃতীয় ঘরে ভ্যাকসিন দেওয়া পুরুষ মহিলাদের আধঘন্টা পর্যবেক্ষণে রাখা হবে। এই সময়ের মধ্যে তাদের দেহে কোনও রকম সমস্যা তৈরি হলে তাদের তৎক্ষণাৎ চিকিৎসার আওতায় নিয়ে যাওয়া হবে। কোনও সমস্যা না হলে তারা বাড়ি ফিরে যাবেন। সেখানে তাঁদের কোনও সমস্যা হচ্ছে কিনা তা জানতে যোগাযোগ রাখা হবে। সমস্যা হলে তাদের তৎক্ষণাৎ জরুরিকালীন বিভাগে ভর্তি করা হবে। এ জন্য বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, কালনা ও কাটোয়া মহকুমা হাসপাতাল চব্বিশ ঘন্টার বিশেষ এমারজেন্সি পরিষেবা চালু থাকছে।


Saradindu Ghosh

Published by:Shubhagata Dey
First published:

লেটেস্ট খবর