করোনা ভাইরাস

?>
corona virus btn
corona virus btn
Loading

সংক্রমণের আতঙ্ক গ্রাস করেছে শিলিগুড়িকে, ভয় কাটাতে পথে নামছেন করোনা জয়ীরা

সংক্রমণের আতঙ্ক গ্রাস করেছে শিলিগুড়িকে, ভয় কাটাতে পথে নামছেন করোনা জয়ীরা
উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজের বৈঠকে টাস্ক ফোর্সের সদস্য অভিজিৎ চৌধুরী৷

করোনা জয়ীরা আক্রান্ত বিভিন্ন ওয়ার্ডে যাবেন। আতঙ্ক কাটাতে সচেতন করে তুলবেন মানুষকে।

  • Share this:

#শিলিগুড়ি: শিলিগুড়িতে আক্রান্তের গ্রাফ আরও বাড়বে। কারণ আড়াই মাসের টানা লকডাউনে স্বাস্থ্য বিধি মানেনি এই শহর। আর তাই সংক্রমণ আরও ছড়াবে। এই শহরের নাগরিকেরা ন্যূনতম সচেতনতা দেখালেও হলেআজ এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হত না।  এমনই মত রাজ্যের করোনা টাস্ক ফোর্সের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক অভিজিৎ চৌধুরীর। যদিও তাঁর আশ্বস্ত করে বলেন, 'করোনা মানেই মৃত্যু না। পাশের ঘরের কেউ আক্রান্ত হলে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিন। খাবার পৌঁছে দিন। কেমন আছেন তিনি, তার প্রতিনিয়ত খোঁজ নেন।  নিজেকে আতঙ্কিত করবেন না। আতঙ্ক থেকেই ভিন্ন পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে।'

শিলিগুড়ির বাসিন্দাদের সতর্ক করে তাঁর পরামর্শ, 'এখোনও সময় রয়েছে, সামাজিক দূরত্বের নিয়ম মেনে চলতে হবে। মাস্ক বা ফেস কভার দিয়ে যেন নাক এবং মুখ দুইই ভাল করে ঢাকা থাকে। সাবান জল দিয়ে হাত ধুতে হবে।'

এদিকে করোনা জয়ী চিকিৎসক, নার্স সহ অন্যদের নিয়ে গঠিত হয়েছে নতুন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন কোভিড কেয়ার নেটওয়ার্ক। কলকাতার বাইরে এবারে করোনা নিয়ে আতঙ্ক কাটাতে শিলিগুড়িতে শহরবাসীকে সচেতন করতে কাজ শুরু করবে এই সংগঠন।ওই দলে উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের একাধিক করোনা জয়ী চিকিৎসক, নার্সরা রয়েছেন। আজ উত্তরবঙ্গ মেডিক্যালে তাঁদের সঙ্গে বৈঠক করেন চিকিৎসক অভিজিৎ চৌধুরী। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজের সুপার কৌশিক কর্মকার। আগামী রবিবার থেকে এই নেটওয়ার্ক কাজ শুরু করবে শহরে।

করোনা জয়ীরা  আক্রান্ত বিভিন্ন ওয়ার্ডে যাবেন। আতঙ্ক কাটাতে সচেতন করে তুলবেন মানুষকে। পাশাপাশি করোনা থেকে বাঁচতে কি করণীয়, তাও বোঝাবেন। আতঙ্কের আরেক নাম এখন করোনা। আর সেই আতঙ্ক, ভয়, গুজবের চাদরে ঢাকা পড়েছে শিলিগুড়ি। সেই চাদর সরিয়ে শহরবাসীকে বাঁচাতেই পথে নামবেন ওঁরা। আতঙ্ক, ভয় কাটিয়ে তুলতে শিলিগুড়ির বিভিন্ন ওয়ার্ড, গ্রামাঞ্চলের রাস্তায় ঘুরবেন করোনা জয়ীরা।

Partha Pratim Sarkar

Published by: Debamoy Ghosh
First published: July 8, 2020, 9:34 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर