corona virus btn
corona virus btn
Loading

শহরে সংক্রমণ বাড়ছে ঝড়ের গতিতে, আতঙ্কের প্রহর গুনছে বাসিন্দারা

শহরে সংক্রমণ বাড়ছে ঝড়ের গতিতে, আতঙ্কের প্রহর গুনছে বাসিন্দারা

গত চব্বিশ ঘন্টায় এই শহরে নতুন করে চব্বিশ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন।

  • Share this:

#বর্ধমান: বর্ধমান শহরে করোনা সংক্রমণ বেড়েই চলেছে। সংক্রমণ থামানো  যাচ্ছে না কিছুতেই। জেলার অন্যান্য অংশের তুলনায় সদর শহর বর্ধমানে করোনার সংক্রমণ লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। গত চব্বিশ ঘন্টায় এই শহরে নতুন করে চব্বিশ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। সোমবার এই শহরে আক্রান্ত হয়েছিলেন এগারো জন। মঙ্গলবার আক্রান্ত হয়েছিলেন চব্বিশ জন। নতুন করে ফের চব্বিশ জন আক্রান্ত হওয়ায় আতঙ্কিত এই শহরের বাসিন্দারা। সকলেই বাইরে বের হলে মস্ক বা ফেস কভার ব্যবহার করছেন ঠিকই তবে শহর এলাকায় অফিস টাইমে ভিড়ও হচ্ছে ব্যাপক সংখ্যায়। এই ভিড়ই এখন প্রশাসনে চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। কারণ তা থেকেই শহরজুড়ে করোনার সংক্রমণ আরও বেশি মাত্রায় ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা।

বর্ধমান শহরে নতুন করে আক্রান্ত চব্বিশ জনের মধ্যে এক নম্বর ওয়ার্ডে আক্রান্ত হয়েছেন চার জন। এছাড়াও আঠারো নম্বর ওয়ার্ডে তিন জন করোনা আক্রান্তের হদিশ মিলেছে। দু নম্বর ওয়ার্ড ও সাতাশ নম্বর ওয়ার্ডে দুজন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। এছাড়া তিন নম্বর ওয়ার্ড, চার নম্বর ওয়ার্ড,  নয় নম্বর ওয়ার্ড, এগারো নম্বর ওয়ার্ড, তের নম্বর ওয়ার্ড, তেইশ, চব্বিশ, আঠাশ, উনত্রিশ, বত্রিশ, তেত্রিশ ও চৌত্রিশ নম্বর ওয়ার্ডে এক জন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন।

জেলা প্রশাসনের এক আধিকারিক জানান, বর্ধমান শহরে এমন অনেকেই আক্রান্ত হচ্ছেন যারা এলাকার বাইরে কোনওদিনই যাননি। তাই এই শহরে গোষ্ঠী সংক্রমণ চলছে বলেই মনে করা হচ্ছে। আগে বর্ধমান শহরের নীলপুর এলাকায় করোনার সংক্রমণ ব্যাপক আকার ধারণ করেছিল। এখন রথতলা কাঞ্চন নগরের দিকে বেশ কয়েকজন করোনা আক্রান্তের হদিশ মিলেছে। শহরের প্রায় সব ওয়ার্ডেই কন্টেইনমেন্ট জোন রয়েছে। চিন্তা আরও বাড়িয়ে তুলেছে শহর লাগোয়া গ্রাম পঞ্চায়েতগুলি। বর্ধমান এক নম্বর ও দু নম্বর ব্লকে প্রতিদিনই বেশ কয়েকজন করে করোনা আক্রান্তের হদিশ মিলছে। বর্ধমান শহর ও তার আশপাশ এলাকার পরিস্হিতি এখন জেলার অন্যান্য অংশের থেকে বেশি উদ্বেগ জনক বলাই যায়।

Saradindu Ghosh

Published by: Shubhagata Dey
First published: August 13, 2020, 7:47 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर