প্রবল মানসিক অবসাদ, অক্সিজেন সিলিন্ডার দিয়ে জানলার কাচ ভেঙে আত্মহত্যার চেষ্টা মেডিক্যাল কলেজে

জানা গিয়েছে, করোনা আক্রান্ত এই রোগী মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন। তাঁকে মনোবিদের দ্বারা কাউন্সেলিং করানো হবে বলে জানানো হয়েছে।

জানা গিয়েছে, করোনা আক্রান্ত এই রোগী মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন। তাঁকে মনোবিদের দ্বারা কাউন্সেলিং করানো হবে বলে জানানো হয়েছে।

  • Share this:

    ABHIJIT CHANDA

    #কলকাতা: যত কান্ড কলকাতা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। গত ৭ মে কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল করোনা হাসপাতাল হিসেবে চিহ্নিত হওয়ার পর থেকে নানা বিতর্ক পিছু ছাড়ছে না। একের পর এক করোনা আক্রান্ত রোগীর হেনস্থা, হয়রানি নিয়ে সরগরম হয়ে উঠেছিল কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ। এর পাশাপাশি মেডিক্যাল কলেজের জুনিয়ার ডক্টর, ছাত্রছাত্রীদের একাংশ নন কোভিড বা করোনা আক্রান্ত নন, এমন রোগীদের ভর্তি করার দাবিতে আন্দোলনে নামে। সব মিলিয়ে প্রায় প্রতিদিনই খবরের শিরোনামে কলকাতা মেডিকেল কলেজ। শনিবার সকালে আবারও চাঞ্চল্য ছড়ায় মেডিক্যাল কলেজে।

    শনিবার সকাল ৭ টা ১০ মিনিট, হঠাৎই মেডিক্যাল কলেজের সুপার স্পেশ্যালিটি ব্লকের চারতলায় হুলুস্থুল কান্ড। উত্তর চব্বিশ পরগনার অশোক নগরের বাসিন্দা আবদুল রাখ, ৫৬ বছর বয়সী এই করোনা আক্রান্ত রোগী গত কয়েকদিন ধরেই এখানে চিকিৎসাধীন। এ দিন সকালে ওয়ার্ডে কর্মরত এক চুক্তিভিত্তিক কর্মীর হঠাৎ করেই নজরে আসে যে, এই করোনা আক্রান্ত রোগী চারতলার জানালার কাঁচ ভেঙে ঝাঁপ দিতে যাচ্ছেন। দ্রুত দৌড়ে গিয়ে নিরস্ত করার চেষ্টা করেন তিনি। এর মধ্যেই বউবাজার থানায় জানানো হয় বিষয়টি। পুলিশ এসে ওই রোগীকে বেডে নিয়ে যায়।

    জানা গিয়েছে, এই ঘটনা ঘটানোর আগে করোনা আক্রান্ত এই রোগী ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অন্য করোনা আক্রান্ত রোগীদের মারধরও করেন। এরপর অক্সিজেন সিলিন্ডার দিয়ে জানালার কাঁচ ভাঙ্গেন।

    মেডিক্যাল কলেজ সূত্রে জানা গিয়েছে, করোনা আক্রান্ত এই রোগী মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন। তাঁকে মনোবিদের দ্বারা কাউন্সেলিং করানো হবে বলে জানানো হয়েছে। এ দিন সকালে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, একতলার চাতালে কাঁচ ভেঙে ছড়িয়ে আছে। জানালার কাঁচ পুরো ভাঙা। এই ঘটনার পরে গোটা হাসপাতালের নিরাপত্তা ব্যবস্থা আরো বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

    Published by:Simli Raha
    First published: