Corona in Kolkata: 'মা-কে এক ফোঁটা জল পর্যন্ত দিত না', করোনায় মৃতের চিকিৎসায় বিস্তর গাফিলতির অভিযোগ

এনআরএস মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল। ফাইল ছবি।

কলকাতার বেলেঘাটা (Beleghata) এলাকার বাসিন্দা গোপা দাস (৪৪) একিউট অ্যানিমিয়া বা রক্তাল্পতায় ভুগছিলেন। গত ২৬ এপ্রিল করোনায় আক্রান্ত হন তিনি। তাঁরই মৃত্যুতে গাফিলতির অভিযোগ তুলেছে পরিবার।

  • Share this:

#কলকাতাঃ রাজ্য জুড়ে একদিকে যখন প্রতিদিন করোনা সংক্রমণে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে চলেছে, তার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের (Corona Positive) মৃত্যু। এরই মাঝে বিভিন্ন সরকারি, বেসরকারি হাসপাতাল থেকে করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসায় গাফিলতির অভিযোগ উঠছে। কোথাও বিনা চিকিৎসায় করোনা আক্রান্ত রোগীকে ফেলে রাখার অভিযোগ, কোথাও আক্রান্ত অসহায় রোগীদের পরিবারের থেকে নানা অছিলায় টাকা চাওয়ার অভিযোগ, কোথাও বা পর্যাপ্ত অক্সিজেন (Oxygen) না দেওয়ার অভিযোগ।

কলকাতার বেলেঘাটা (Beleghata) এলাকার বাসিন্দা গোপা দাস (৪৪) একিউট অ্যানিমিয়া বা রক্তাল্পতায় ভুগছিলেন। গত ২৬ এপ্রিল করোনায় আক্রান্ত হন তিনি। এরপর অবস্থার অবনতি হওয়ায় ২৮ এপ্রিল বহু চেষ্টা করে শিয়ালদহ এনআরএস হাসপাতালে (NRS Medical College Hospital) ভর্তি করানো হয়। পরিবারের অভিযোগ, ভর্তির পর থেকেই চিকিৎসায় গাফিলতি হচ্ছিল। এমনকি ভর্তি হওয়ার ঠিক পরের দিন বাড়ির লোককে তিনি হাসপাতালের দোতলা থেকে চিৎকার করে বলেন এক ফোঁটা জল পর্যন্ত দেওয়া হয়নি।

এরপর পরিবারের তরফ থেকেই জলের বোতল কিনে দেওয়া হয় গোপা দেবীকে। গোপা দেবীর কন্যা শ্রীপর্ণা দাসের অভিযোগ, "মায়ের অ্যানিমিয়া থাকা সত্বেও, বারবার বলার পরেও রক্ত দেওয়া হচ্ছিল না। ভর্তি হওয়ার চারদিনের মাথায় বলা হয়, তাঁকে রক্ত দেওয়া হয়েছে। কিন্তু এনআরএস হাসপাতালের ব্লাড ব্যাংকে গিয়ে জানতে পারি সেখানে মায়ের নামে ব্লাডের রিকুইজেশন বা ব্লাড নেওয়ার কাগজ পৌঁছয়নি। সম্পূর্ণ মিথ্যা কথা বলা হয়েছে আমাদের করোনা ওয়ার্ড থেকে। চিকিৎসকরা আদৌ ভাল করে দেখেইনি মাকে।" তাঁর আরও অভিযোগ, "এনআরএসের আয়ারা ভয়াবহ। কোন কিছু জানতে চাইলে, কোন খাবার দিতে চাইলে সব ক্ষেত্রেই টাকা চায়। চূড়ান্ত উদাসীনতায় এবং চিকিৎসার গাফিলতিতে আমার মা অকালে চলে  গেল।"

বুধবার সকালে গোপা দাসের মৃত্যু হয়। এরপরই ক্ষুব্ধ হয়ে পরিবারের সদস্যরা হাসপাতালে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করে। ছুটে আসে এন্টালি থানার পুলিশ। পরিস্থিতি সামাল দেওয়া হয়। যদিও করোনা আক্রান্ত অন্যান্য রোগীর অনেক পরিবারের অভিযোগ গোপা দেবীর পরিবারের অভিযোগের সাথে মিলে গিয়েছে। করোনা আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন অনেক রোগীর পরিবারেরই অভিযোগ, কোন রকম খোঁজ খবর দেওয়া হয় না রোগীদের বিষয়ে। কর্মীদের চূড়ান্ত দুর্ব্যবহার, বহু ক্ষেত্রেই প্রয়োজনীয় পরিমাণ অক্সিজেন দেওয়া হচ্ছে না।

যদিও এই ঘটনায় এনআরএস হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বক্তব্য, এই ঘটনায় তারা কোনও লিখিত অভিযোগ পাইনি। তবে চিকিৎসার গাফিলতিতে অভিযোগের কোনও ভিত্তি নেই। করোনা আক্রান্ত সমস্ত রোগীকেই সঠিকভাবে চিকিৎসা করা হচ্ছে।

ABHIJIT CHANDA

Published by:Shubhagata Dey
First published: