• Home
  • »
  • News
  • »
  • coronavirus-latest-news
  • »
  • মোদিকে প্রায় সব রাজ্যের অনুরোধ: অন্তত ১৫ দিন বাড়ুক লকডাউন

মোদিকে প্রায় সব রাজ্যের অনুরোধ: অন্তত ১৫ দিন বাড়ুক লকডাউন

শনিবারের ভিডিও কনফারেন্সে নরেন্দ্র মোদি ও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ছবি: ANI

শনিবারের ভিডিও কনফারেন্সে নরেন্দ্র মোদি ও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ছবি: ANI

এই মুহূর্তে দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৭০০০ ছাড়িয়েছে। শেষ ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ৪০ জনের। এই আশঙ্কাজনক পরিস্থিতেই শনিবার পূর্বনির্ধারিত সময় অনুযায়ী সব রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: পূর্বনির্ধারিত সময় অনুযায়ীই এদিন সব রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্স করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। করোনা সংক্রমণে গেশের সার্বিক ছবিটাও উঠে এল এই বৈঠকে। বেশির ভাগ রাজ্যই অনুরোধ রাখলেন, লকডাউন যাতে অন্তত আরও ১৫ দিন বাড়ে।

    এই মুহূর্তে দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৭০০০ ছাড়িয়েছে। শেষ ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ৪০ জনের।  এই আশঙ্কাজনক পরিস্থিতেই শনিবার পূর্বনির্ধারিত সময় অনুযায়ী সব রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। এদিন তিনি নিজে মুখে হাতে তৈরি মাস্ক পরে বসেছিলেন। মুখে মাস্ক পরে ছিলেন বহুরা জ্যের মুখ্যমন্ত্রীরা। প্রধানমন্ত্রী শুরুতেই বলেন, "এটা কাঁধে কাঁধে  মিলিয়ে সামিল হওয়ার লড়াই। এই ল়ড়াইয়ে  সপ্তাহেব সাতদিনই চব্বিশ ঘণ্টার জন্যে আমাকে পাওয়া যাবে।"

    এরপরেই একটি ভিডিও প্রেজেন্টেশান দেন স্বাস্থ্যমন্ত্রকের আধিকারিকরা।মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে একে একে কথা বলতে শুরু করেন প্রধানমন্ত্রী। মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ভব ঠাকরে নরেন্দ্র মোদিকে সবিস্তারে জানান তাঁর রাজ্যে পরিস্থিতির কথা। অনুরোধ করেন অন্তত ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত লকডাউন চালিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্যে। একই অনুরোধ রাখেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালও। একই অনুরোধ আসে তেলেঙ্গানার মুখ্যমন্ত্রী কে চন্দ্রশেখর রাওয়ের তরফেও।

    ‌ইতিমধ্যেই লকডাউন বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়ে নিয়েছিল ওড়িশা,পাঞ্জাব। ক্রমে প্রতিটি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে সেই রাজ্যের পরিস্থিতি নিয়ে কথা হয়। অন্তত ১৫ দিন লকডাউন বাড়ানোর অনুরোধ জানান পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী। অমরিন্দর সিংহ। এখনও পর্যন্ত এই বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর সিদ্ধান্ত জানা যায়নি।

    Published by:Arka Deb
    First published: