corona virus btn
corona virus btn
Loading

করোনা ঠেকাতে ২১ মে অবধি রাজ্যে চলবে একই ব্যবস্থা: মমতা

করোনা ঠেকাতে ২১ মে অবধি রাজ্যে চলবে একই ব্যবস্থা: মমতা
  • Share this:

#কলকাতা: লকডাউন নিয়ে ঘোষণা নয়, তবে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সোমবার নবান্নের সাংবাদিক বৈঠক থেকে সুস্পষ্টভাবে জানিয়ে দেন, ২১ মে অবধি রাজ্যকে তিন ভাগে ভাগ করে নজরদারি চালানো হবে ৷ রেড, গ্রিন ও অরেঞ্জ জোনে গোটা রাজ্যের সংক্রামিত এলাকাগুলিকে ভাগ করে একটি তালিকা ইতিমধ্যেই তৈরি করেছে রাজ্য সরকার ৷ মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘তিন জোনের ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট পরিকল্পনা চাই। স্বাস্থ্য দফতর এই নিয়ে শীঘ্রই নির্দেশিকা জারি করবে।’

লকডাউনের প্রশ্নে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘লকডাউন বাড়ানো কেন্দ্রের ব্যাপার ৷ তবে রাজ্য ২১ মে অবধি লকডাউনের পক্ষপাতী। তবে কিছু ক্ষেত্রে ছাড় দিতে হবে। প্রধানমন্ত্রীর শরীরী ভাষা দেখে মনে হয়েছে লকডাউন অনেকদিন চলবে৷’ একইসঙ্গে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে এদিন ক্ষোভও উগড়ে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী ৷ বলেন,  ‘কেন্দ্রের বক্তব্যে অস্পষ্টতা রয়েছে। কেন্দ্র একদিকে বলছে, লকডাউন ভালোভাবে মানতে হবে। আবার নির্দেশিকায় বলছে, কিছুক্ষেত্রে দোকানও খুলতে হবে। দোকান খুললে লোকে ভিড় জমাবে তাহলে লকডাউন মানা হবে কিভাবে! কেন্দ্রের বক্তব্যে তো কোনও স্পষ্টতা নেই। এরফলে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে।’

নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, কেন্দ্রের কাছ থেকে কিছু বিষয় স্পষ্ট করে জানতে চেয়েছে রাজ্য সরকার ৷ সে বিষয়ে স্পষ্ট করা হলেই ৷ নিজেদের মধ্যে আলোচনার পর পরশু দিন অর্থাৎ বুধবার লকডাউনের মেয়াদ বা করোনা ঠেকাতে ভবিষ্যত পরিকল্পনা নিয়ে আরও সুস্পষ্টভাবে জানানো হবে ৷

লকডাউন নিয়ে কেন্দ্রের ঘোষণা ছাড়া আপাতত মুখ্যমন্ত্রী জোনভিত্তিক নজরদারিতে রাজ্যে করোনা মোকাবিলার পরিকল্পনার কথা জানিয়েছেন ৷ মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘রেড জোনগুলিতে কঠোরভাবে লকডাউন মানতে হবে। অরেঞ্জ জোনগুলিতে কিছু ছাড় দেওয়া হবে। গ্রিন জোনগুলিতে আরও বেশি ছাড় দেওয়া হবে।’ একইসঙ্গে সাংবাদিকদের হাতে এদিন তিনি জেলাগুলির জোনভিত্তিক তালিকাও তুলে দেন ৷ রেড জোনে থাকা সাধারণ মানুষের কাছে মুখ্যমন্ত্রীর আর্জি, ‘আপনারা দয়া করে ঘর থেকে বেরবেন না ৷ করোনা রুখতে সহযোগিতা করুন ৷ খাবার না হয় পুলিশ পৌঁছে দিয়ে আসবে ৷’

লকডাউন চললেও মানুষের রুজি-রুটির কথা ভাবতে হচ্ছে রাজ্য় সরকারকে। তাই গোটা রাজ্যকে তিনটি জোনে ভাগ করে, কিছু ছাড় দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। সেই লক্ষ্য়েই অত্য়াবশ্য়ক নয় এমন পণ্য়কেও হোম ডেলিভারির আওতায় আনা হয়েছে। লকডাউনে কোথায় কী ছাড় দেওয়া হবে, তা নিয়ে ঘন ঘন সার্কুলার জারি করছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। মুখ্য়মন্ত্রীর অভিযোগ, রাজ্য়ের সঙ্গে আলোচনা না করেই সার্কুলার জারি করছে মোদি সরকার। তাতে বিভ্রান্তি আরও বাড়ছে। করোনা মোকাবিলায় সোমবার একটি মন্ত্রিগোষ্ঠী গঠন করলেন মুখ্য়মন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়। অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্রের নেতৃত্বে মন্ত্রিগোষ্ঠীতে রয়েছেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়, ফিরহাদ হাকিম ও চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য।

First published: April 27, 2020, 8:10 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर