corona virus btn
corona virus btn
Loading

'বাঙুরে মৃতদেহ পড়ে কেন',জবাবে যা যা বললেন মুখ্যমন্ত্রী

'বাঙুরে মৃতদেহ পড়ে কেন',জবাবে যা যা বললেন মুখ্যমন্ত্রী
রাজ্যের স্বাস্থ্যচিত্র তুলে ধরলেন মুখ্যমন্ত্রী। ফাইল চিত্র

করোনা-লকডাউনের জেরে বহু জায়গা থেকেই অভিযোগ উঠছে এলাকার ডাক্তাররা রোগী দেখছেন না। মুখ্যমন্ত্রী এ দিন জানান, সামাজিক দূরত্বের শর্ত মেনে, ভিড় না করে রোগী দেখা শুরু করতে পারেন চিকিৎসকরাও।

  • Share this:

#কলকাতা: করোনার জেরে রাজ্য বহু পরিষেবাই থমকে। এমনকি বিভিন্ন জেলার বাসিন্দাদের চিকিৎসা পরিষেবাও ব্যহত হচ্ছে। চিকিৎসা সমস্যার সমাধানে বুধবার একগুচ্ছ নিদান দিলেন মুখ্যমন্ত্রী। কথা প্রসঙ্গে এল স্বাস্থ্যপরিষেবা নিয়ে নানা অভিযোগের উত্তরও।

দিন কয়েক আগেই বাঙুরে একটি মৃতদেহ পড়ে থাকা নিয়ে নানামহলে সাড়া পড়ে যায়। ভাইরাল হওয়া ভি়ডিওটি ঘিরে প্রশ্ন উঠতে শুরু করে। মুখ্যমন্ত্রী এ দিন বাঙুর প্রসঙ্গ তুলে আনেন। রোগীর পরিবারের তরফ থেকে কোনও অভিযোগ নেই,হাসপাতাল কর্তৃপক্ষও ওয়াকিবহাল ছিল বিষয়টি নিয়ে, এমনটাই মত মুখ্যমন্ত্রীর। তাঁর স্পষ্ট বক্তব্য, "বিজেপি এই নিয়ে রাজনীতি করছে। বাংলার স্বাস্থ্যব্যবস্থার বদনাম করা হচ্ছে।" একই সঙ্গে এই তিনি মনে করিয়ে দেন, চিকিৎসকরাও এমন বেনজির পরিস্থিতির সম্মুখীন হননি আগে। কাজেই ভুল ত্রুটি মুক্ত হয়ে পরিষেবা দেওয়া সম্ভব নয়। মুখ্যমন্ত্রীর কথায়, "কোভিড হাসপাতালে সবাই এক্সপার্ট নন। ভুল হতেই পারে। সেটা নিয়ে যারা সরকারকে অপদস্থ করছেন করুন।"

রাজ্যের স্বাস্থ্যব্যবস্থার চিত্রটাও বুধবার পরিষ্কার করেন মুখ্যমন্ত্রী। মুখ্যসচিবের কাছে তিনি জানতে চান, এখন মোট ক'টা বেড রয়েছে হাসপাতালগুলিতে। মুখ্যসচিব জানান, মোট বেড রয়েছে ৭৯০টি।মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অভিযোগ, হাসপাতালের পরিস্থিত না তুলে ধরে অনেকেই ঘোলাজলে মাছ ধরতে নেমেছেন।

এ দিনের সাংবাদিক বৈঠকে একটি বিষয় পরিষ্কার করে দেওয়া হয়, এই মুহূর্তে ৫১ টা বেসরকারি হাসপাতাল নিয়েছে সরকার। সেখানে বিনামূল্যেই চিকিৎসা পাচ্ছেন রোগীরা।  বাকি নার্সিংহোমগুলিকেও কাজ চালু রাখার নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী। তাঁর কথায়, "বাচ্চাদের টিকাকরণ বন্ধ রাখা যাবে না। ডায়ালিসিস চাই। গর্ভবতী মহিলাদের ঘোরানো যাবে না।"

করোনা-লকডাউনের জেরে বহু জায়গা থেকেই অভিযোগ উঠছে এলাকার ডাক্তাররা রোগী দেখছেন না। মুখ্যমন্ত্রী এ দিন জানান, সামাজিক দূরত্বের শর্ত মেনে, ভিড় না করে রোগী দেখা শুরু করতে পারেন চিকিৎসকরাও।

First published: April 29, 2020, 7:20 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर