"টিকিট হয়ত পাব, তাই টিকাটা নিয়ে রাখলাম" : চিরঞ্জিৎ

"টিকিট হয়ত পাব, তাই টিকাটা নিয়ে রাখলাম" : চিরঞ্জিৎ

কিছুদিন আগেই রাজনীতি ছাড়ার কথা বলেছিলেন। মঙ্গলবার টিকার প্রথম ডোজ নিয়ে অবশ্য রাজনীতির মূলস্রোতেই থাকার ইঙ্গিত দিলেন তৃণমূল বিধায়ক তথা অভিনেতা চিরঞ্জিৎ চক্রবর্তী।

কিছুদিন আগেই রাজনীতি ছাড়ার কথা বলেছিলেন। মঙ্গলবার টিকার প্রথম ডোজ নিয়ে অবশ্য রাজনীতির মূলস্রোতেই থাকার ইঙ্গিত দিলেন তৃণমূল বিধায়ক তথা অভিনেতা চিরঞ্জিৎ চক্রবর্তী।

  • Share this:

    #বারাসত: কিছুদিন আগেই রাজনীতি ছাড়ার কথা বলেছিলেন। মঙ্গলবার টিকার প্রথম ডোজ নিয়ে অবশ্য রাজনীতির মূলস্রোতেই থাকার ইঙ্গিত দিলেন তৃণমূল বিধায়ক তথা অভিনেতা চিরঞ্জিৎ চক্রবর্তী। বললেন,"সামনেই ভোট, তাই টিকাটা নিয়ে রাখলাম।" এ দিন বারাসত সদর হাসপাতালে করোনার প্রতিষেধক নিলেন তৃণমূল বিধায়ক তথা অভিনেতা চিরঞ্জিৎ চক্রবর্তী। ভ্যাকসিন নিয়ে রাজনীতির মূলস্রোতে থাকার ইঙ্গিত দিলেন চিরঞ্জিত। তাঁর সঙ্গেই এ দিন করোনার ভ্যাকসিন নেন মধ্যমগ্রামের তৃণমূল বিধায়কও।

    সম্প্রতি তৃণমূল বিজেপি দলবদলের আবহে জল্পনা বাড়িয়ে দলনেত্রীর কাছে অব্যাহতি চেয়েছিলেন বারাসাতের তৃণমূল বিধায়ক চিরঞ্জিৎ চক্রবর্তী। রাজনীতির রঙ্গমঞ্চ থেকে নাটকীয়ভাবে বিদায় নেওয়ার কথা জানিয়েছিলেন তিনি।

    মঙ্গলবার বারাসত হাসপাতালে করোনার ভ্যাকসিন নিয়ে এবার তিনিই ফের রাজনীতির মূলস্রোতে থাকার ইঙ্গিত দিলেন। তৃণমূল বিধায়ক চিরঞ্জিৎ চক্রবর্তী জানালেন, ‘‘ভোট ঘোষণা হয়ে গেছে তবে, এখনও টিকিট পাইনি, টিকিট হয়তো পেয়ে যাব, তাই আগে থেকে টিকা নিয়ে রাখলাম।" ভোট প্রচারে বহু মানুষের সঙ্গে মেলামেশা করতে হবে| তাই নিরাপত্তার কথায় মাথায় রেখেই তড়িঘড়ি টিকা নেওয়ার সিদ্ধান্ত বলে জানান তৃণমূল বিধায়ক|

    ২০১১-তে বারাসত আসনে চিরঞ্জিৎ চক্রবর্তীকে প্রার্থী করে চমক দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। জিতেই মাঠ ছাড়েন পর্দার প্রতীক। ২০১৬-তেও তাঁর জয়ের ধারা অব্যাহত থাকে। চিরঞ্জিৎ চক্রবর্তীর সঙ্গে এদিন, বারাসাত সদর হাসপাতালে করোনার ভ্যাকসিন নেন মধ্যমগ্রামের তৃণমূল বিধায়ক রথীন ঘোষ। মধ্যমগ্রামের তৃণমূল বিধায়ক রথীন ঘোষ জানান, ‘বিধায়ক, জনপ্রতিনিধি হিসেবে দৃষ্টান্ত তৈরি করতেই টিকা নেওয়া|

    প্রসঙ্গত, রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে বর্তমানে উত্তর ২৪ পরগণা জেলায় সপ্তাহে সাত দিন বারাসাত জেলা হাসপাতালে চলছে করোনা ভ্যাকসিন দেওয়ার কাজ। করোনা ভ্যাকসিন নিতে হবে প্রত্যেককেই। অনেকে নিতে অস্বীকার করছে। তাই নাগরিকদের উৎসাহ দিতেই এগিয়ে এসেছেন এলাকার বিধায়করা|

    Published by:Sanjukta Sarkar
    First published: