করোনা ভাইরাস

corona virus btn
corona virus btn
Loading

ব্রাজিলে ৫০.৪ শতাংশ কার্যকরিতা দেখালো চিনের সিনোভ্যাক ভ্যাকসিন

ব্রাজিলে ৫০.৪ শতাংশ কার্যকরিতা দেখালো চিনের সিনোভ্যাক ভ্যাকসিন

চূড়ান্ত পর্বের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল থেকে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে মঙ্গলবার এ তথ্য জানিয়েছেন ব্রাজিলের গবেষকরা

  • Share this:

#ব্রাসিলিয়া:   ব্রাজিলে পরিচালিত ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে চিনের সিনোভ্যাক বায়োটেকের তৈরি কোভিড ১৯ ভ্যাকসিন ৫০. ৪ শতাংশ কার্যকর বলে প্রমাণিত হল। চূড়ান্ত পর্বের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল থেকে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে মঙ্গলবার এ তথ্য জানিয়েছেন ব্রাজিলের গবেষকরা। এক প্রতিবেদনে এই খবর জানিয়েছে সংবাদসংস্থা রয়টার্স। এর আগে ইন্দোনেশিয়া ও তুরস্কে একই ভ্যাকসিনের ট্রায়ালে ভিন্ন ফল পাওয়া গিয়েছিল। ইন্দোনেশিয়ার জাতীয় ওষুধ ও খাদ্য নিয়ন্ত্রক এজেন্সি সোমবার জানিয়েছে, এ টিকার কার্যকারিতার হার ৬৫. ৩ শতাংশ, যা ডাব্লিউএইচও-এর শর্তকেও পূরণ করে। সে অনুযায়ী, সিনোভ্যাক টিকার জরুরি ব্যবহারের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এর আগে গত মাসে তুরস্কের গবেষকরা জানান, তুরস্কে সিনোভ্যাকের টিকা ৯১.২৫ শতাংশ কার্যকর। তবে ব্রাজিলে চালানো চূড়ান্ত দফার ট্রায়ালে এর কার্যকারিতা তুলনামূলকভাবে অনেক কম দেখা গিয়েছে। মূলত ভিন্ন ভিন্ন অঞ্চলে ভিন্ন ভিন্ন ফলাফল মিলছে। ব্রাজিলে এই ট্রায়াল চালিয়েছে বুটানটান ইনস্টিটিউট। গত সপ্তাহেও তাঁরা দাবি করেন, গুরুতর ও অপেক্ষাকৃত কম অসুস্থ রোগীদের ক্ষেত্রে ভ্যাকসিনটি ৭৮ শতাংশ কার্যকর। কিন্তু চূড়ান্ত পর্বের ট্রায়ালে ভিন্ন ফল মিলেছে। এর মধ্যেই কোম্পানির অনুরোধে পূর্ণাঙ্গ ফলাফল স্থগিত করায় ভ্যাকসিনটির স্বচ্ছতা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে।

ব্রাজিলে তিন মাসের ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে ৯ হাজার স্বাস্থ্যকর্মীকে ভ্যাকসিনটির দু’টি করে ডোজ দেওয়া হয়েছে।ওয়ার্ল্ডোমিটারস জানিয়েছে, করোনায় আমেরিকার পর সবচেয়ে বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে ব্রাজিলে। সরকারি হিসাবে দেশটিতে এখন পর্যন্ত ৮১ লাখ ৯৫ হাজার ৬৩৭ শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্য ২লক্ষ ৪হাজার ৭২৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চিনের হুবেই প্রদেশের রাজধানী ইউহান থেকে ছড়িয়ে পড়ে করোনা ভাইরাস। এক সময় উৎপত্তিস্থল চিনে ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব কমলেও বিশ্বের অন্যান্য দেশে এর প্রকোপ বাড়তে শুরু করে। চিনের বাইরে করোনা ভাইরাসের প্রকোপ ১৩ গুণ বৃদ্ধি পাওয়ার প্রেক্ষাপটে গত ১১ মার্চ দুনিয়াজুড়ে মহামারি ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। তবে আশার কথা হচ্ছে, এখন আক্রান্তের পর সুস্থ হওয়ার হার দ্রুত বাড়ছে। এরই মধ্যে আবিষ্কৃত হয়েছে করোনার একাধিক টিকাও ।

Published by: Simli Dasgupta
First published: January 13, 2021, 5:25 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर