corona virus btn
corona virus btn
Loading

করোনা মৃত্যুর অডিট কমিটি গড়তে বলে কেন্দ্রই, প্রশ্নের মুখে পাল্টা দাবি মুখ্যসচিবের

করোনা মৃত্যুর অডিট কমিটি গড়তে বলে কেন্দ্রই, প্রশ্নের মুখে পাল্টা দাবি মুখ্যসচিবের
মুখ্যসচিব রাজীব সিনহা

এ দিনই কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দলের তরফে রাজ্যের মুখ্যসচিবকে পাঠানো চিঠিতে এই অডিট কমিটি নিয়েই একাধিক প্রশ্ন তোলা হয়৷

  • Share this:

#কলকাতা: করোনা ভাইরাসেই মৃত্যু কিনা, তা খতিয়ে দেখতে অডিট কমিটি তৈরি করেছে রাজ্য৷ যদিও সেই কমিটির গ্রহণযোগ্যতা নিয়েই প্রশ্ন তুলে রাজ্যের মুখ্যসচিবকে চিঠি দিয়েছে কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল৷ এবার রাজ্যের মুখ্যসচিব রাজীব সিনহা পাল্টা দাবি করলেন, করোনা আক্রান্তদের মৃত্যুর কারণ খতিয়ে দেখতে অডিট কমিটি তৈরির পরামর্শ দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকারই৷

এ দিন নবান্নে মুখ্যসচিব রাজীব সিনহা জানান, কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য সচিবই রাজ্যের স্বাস্থ্য সচিবকে চিঠি দিয়ে করোনা আক্রান্তদের মৃত্যুর কারণ খতিয়ে দেখতে অডিট কমিটি তৈরির সুপারিশ করেছিলেন৷ রাজীব সিনহার দাবি, তার অনেক আগে ৩ এপ্রিল থেকেই এ রাজ্যের করোনা পজিটিভ রোগীদের মৃত্যুর কারণ খতিয়ে দেখতে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের নিয়ে একটি অডিট কমিটি গঠন করা হয়েছিল৷

মুখ্যসচিব জানিয়েছেন, এখনও পর্যন্ত করোনা পজিটিভ ৫৭ জন ব্যক্তির মৃত্যুর কারণ খতিয়ে দেখেছে এই অডিট কমিটি৷ তার মধ্যে ১৮ জনের মৃত্যুর কারণ সরাসরি করোনা সংক্রমণ বলেই অডিট কমিটি রাজ্যকে জানিয়েছে৷ বাকি ৩৯ জনের শরীরে করোনা সংক্রমণ পাওয়া গেলেও তাঁদের অন্য রোগে মৃত্যু হয়েছে বলে অডিট কমিটির রিপোর্ট উদ্ধৃত করে দাবি করেন মুখ্যসচিব৷

এ দিনই কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দলের তরফে রাজ্যের মুখ্যসচিবকে পাঠানো চিঠিতে এই অডিট কমিটি নিয়েই একাধিক প্রশ্ন তোলা হয়৷ মুখ্যসচিবকে লেখা চিঠিতে এই কমিটির বৈধতা এবং করোনা আক্রান্তদের মৃত্যু ঘোষণার পদ্ধতি নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে কমিটি৷ জানতে চাওয়া হয়েছে, আইসিএমআর-এর গাইডলাইন মেনেই এই বিশেষজ্ঞ কমিটি গড়া হয়েছে কিনা৷ পাশাপাশি করোনায় মৃত্যু ঘোষণা করতে এই কমিটি কতদিন সময় নিচ্ছে, সেই তথ্যও চাওয়া হয়েছে রাজ্যের মুখ্যসচিবের কাছে৷

রাজীব সিনহা জানিয়েছেন, কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দলের চিঠির জবাব রাজ্যের স্বাস্থ্য দফতর দিয়ে দেবে৷ কেন অডিট কমিটি তৈরি করা হয়েছে, তারও ব্যাখ্যা দেবে রাজ্যের স্বাস্থ্য দফতর৷

 
First published: April 24, 2020, 6:17 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर