Home /News /coronavirus-latest-news /
করোনা মৃত্যুর অডিট কমিটি গড়তে বলে কেন্দ্রই, প্রশ্নের মুখে পাল্টা দাবি মুখ্যসচিবের

করোনা মৃত্যুর অডিট কমিটি গড়তে বলে কেন্দ্রই, প্রশ্নের মুখে পাল্টা দাবি মুখ্যসচিবের

মুখ্যসচিব রাজীব সিনহা

মুখ্যসচিব রাজীব সিনহা

এ দিনই কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দলের তরফে রাজ্যের মুখ্যসচিবকে পাঠানো চিঠিতে এই অডিট কমিটি নিয়েই একাধিক প্রশ্ন তোলা হয়৷

  • Share this:

    #কলকাতা: করোনা ভাইরাসেই মৃত্যু কিনা, তা খতিয়ে দেখতে অডিট কমিটি তৈরি করেছে রাজ্য৷ যদিও সেই কমিটির গ্রহণযোগ্যতা নিয়েই প্রশ্ন তুলে রাজ্যের মুখ্যসচিবকে চিঠি দিয়েছে কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল৷ এবার রাজ্যের মুখ্যসচিব রাজীব সিনহা পাল্টা দাবি করলেন, করোনা আক্রান্তদের মৃত্যুর কারণ খতিয়ে দেখতে অডিট কমিটি তৈরির পরামর্শ দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকারই৷

    এ দিন নবান্নে মুখ্যসচিব রাজীব সিনহা জানান, কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য সচিবই রাজ্যের স্বাস্থ্য সচিবকে চিঠি দিয়ে করোনা আক্রান্তদের মৃত্যুর কারণ খতিয়ে দেখতে অডিট কমিটি তৈরির সুপারিশ করেছিলেন৷ রাজীব সিনহার দাবি, তার অনেক আগে ৩ এপ্রিল থেকেই এ রাজ্যের করোনা পজিটিভ রোগীদের মৃত্যুর কারণ খতিয়ে দেখতে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের নিয়ে একটি অডিট কমিটি গঠন করা হয়েছিল৷

    মুখ্যসচিব জানিয়েছেন, এখনও পর্যন্ত করোনা পজিটিভ ৫৭ জন ব্যক্তির মৃত্যুর কারণ খতিয়ে দেখেছে এই অডিট কমিটি৷ তার মধ্যে ১৮ জনের মৃত্যুর কারণ সরাসরি করোনা সংক্রমণ বলেই অডিট কমিটি রাজ্যকে জানিয়েছে৷ বাকি ৩৯ জনের শরীরে করোনা সংক্রমণ পাওয়া গেলেও তাঁদের অন্য রোগে মৃত্যু হয়েছে বলে অডিট কমিটির রিপোর্ট উদ্ধৃত করে দাবি করেন মুখ্যসচিব৷

    এ দিনই কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দলের তরফে রাজ্যের মুখ্যসচিবকে পাঠানো চিঠিতে এই অডিট কমিটি নিয়েই একাধিক প্রশ্ন তোলা হয়৷ মুখ্যসচিবকে লেখা চিঠিতে এই কমিটির বৈধতা এবং করোনা আক্রান্তদের মৃত্যু ঘোষণার পদ্ধতি নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে কমিটি৷ জানতে চাওয়া হয়েছে, আইসিএমআর-এর গাইডলাইন মেনেই এই বিশেষজ্ঞ কমিটি গড়া হয়েছে কিনা৷ পাশাপাশি করোনায় মৃত্যু ঘোষণা করতে এই কমিটি কতদিন সময় নিচ্ছে, সেই তথ্যও চাওয়া হয়েছে রাজ্যের মুখ্যসচিবের কাছে৷

    রাজীব সিনহা জানিয়েছেন, কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দলের চিঠির জবাব রাজ্যের স্বাস্থ্য দফতর দিয়ে দেবে৷ কেন অডিট কমিটি তৈরি করা হয়েছে, তারও ব্যাখ্যা দেবে রাজ্যের স্বাস্থ্য দফতর৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published:

    Tags: Coronavirus

    পরবর্তী খবর