corona virus btn
corona virus btn
Loading

যাত্রী নেই, বিমান আছে- দেশজুড়ে এভাবেই ওষুধ পৌঁছে দিচ্ছে বিভিন্ন এয়ারলাইন্স

যাত্রী নেই, বিমান আছে- দেশজুড়ে এভাবেই ওষুধ পৌঁছে দিচ্ছে বিভিন্ন এয়ারলাইন্স

দেশের সাতটি শহরে এমন ওষুধ জমা করার হাব তৈরি হয়েছে। সেগুলি হল, দিল্লি, মুম্বই, কলকাতা, চেন্নাই, হায়দরাবাদ, বেঙ্গালুরু এবং গুয়াহাটি।

  • Share this:

#কলকাতা: যাত্রী নেই। তবে বিমান আছে। লকডাউনে আটকে থাকা দেশবাসীর কাছে জীবনদায়ী ওষুধ পৌঁছে দেওয়া এবং কোভিড-১৯-এর বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য প্রয়োজনীয় রসদ পৌঁছে দেওয়ার কাজ করছে এয়ার ইন্ডিয়া, অ্যালায়েন্স এয়ার, বায়ু সেনা- সহ বিভিন্ন সংস্থার কার্গো বিমান। দিনরাত দেশের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে। জীবনদায়ী ওষুধ বহণ করছে বলে এই পরিষেবার নামও দেওয়া হয়েছে 'লাইফলাইন উড়ান' ।

কেন্দ্রীয় অসামরিক বিমান পরিবহণ মন্ত্রকের খবর, গত তিন সপ্তাহে প্রায় ২৭৪টি এ রকম উড়ান সারা দেশে ৪৫০ টনেরও বেশি ওষুধ পৌঁছে দেওয়ার কাজ করেছে। যাতায়াত করেছে দু'লক্ষ ৭৩ হাজার কিলোমিটারেরও বেশি পথ।

দেশের সাতটি শহরে এমন ওষুধ জমা করার হাব তৈরি হয়েছে। সেগুলি হল, দিল্লি, মুম্বই, কলকাতা, চেন্নাই, হায়দরাবাদ, বেঙ্গালুরু এবং গুয়াহাটি। ওই সব জায়গা থেকে ডিব্রুগড়, আগরতলা, আইজল, ডিমাপুর, ভূবনেশ্বর, নাগপুর, কোয়েম্বাটুর, চণ্ডীগড়, গোয়া, আহমেদাবাদ, ভোপাল, পুণের মতো ছোট শহরগুলিতে ওষুধ পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে বিমানে। কারগিল, লাদাখ-সহ উত্তর-পূর্ব ভারত ও দেশের বিভিন্ন স্থানে ওষুধ পৌঁছে দেওয়ার জন্য ব্যবহার করা হচ্ছে বায়ুসেনার বিমান কিংবা পবনহন্স সংস্থার হেলিকপ্টারে। আবার চিন থেকে আনা হচ্ছে কোভিডের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে উপযোগী বিভিন্ন মেডিক্যাল যন্ত্রপাতিও।

আবার মুম্বই থেকে ফ্রাঙ্কফুর্ট এবং লন্ডনে সবজি ও ফল নিয়ে গিয়েছে উড়ান। ফেরত এসেছে ওখান থেকে এ দেশের প্রয়োজনীয় উপাদান নিয়ে। অসামরিক বিমান পরিবহণের এক কর্তা বলেন, "যে হেতু যাত্রী বামানের ভিড় এখন নেই, তাই সেই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে আমরা ওষুধ এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী দেশের বিভিন্ন কোণায় পর্যাপ্ত পরিমাণে ছড়িয়ে দেওয়ার আপ্রাণ চেষ্টা চালাচ্ছি।"

Shalini Datta

Published by: Siddhartha Sarkar
First published: April 18, 2020, 9:37 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर