করোনা ভাইরাস

?>
corona virus btn
corona virus btn
Loading

করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়তে ‘হার্ড ইমিউনিটি’ কি ভরসা? জেনে নিন

করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়তে ‘হার্ড ইমিউনিটি’ কি ভরসা? জেনে নিন
Photo- File

Herd Immunity - এ কী কোনও সোনার পাথর বাটি , কীভাবে কাজ করে এই হার্ড ইমিউনিটি

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: হার্ড ইমিউনিটি কথার মানে কী? হার্ড ইমিউনিটি কি করোনার হাত থেকে বাঁচাতে পারবে? ভারতের ক্ষেত্রে হার্ড ইমিউনিটি কতটা বাস্তবসম্মত? কী বলছেন বিশেষজ্ঞরা? নিউজ এইটিন বাংলার স্পেশাল রিপোর্ট।

এখনও খোঁজ মেলেনি ভ্যাকসিনের? আবিষ্কার হয়নি কোনও ওষুধ। এই পরিস্থিতিতে বারে বারেই হার্ড ইমিউনিটির কথা বলছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের একাংশ। কিন্তু এই হার্ড ইমিউনিটি বিষয়টা ঠিক কী?

হার্ড ইমিউনিটি

- হার্ড কথার অর্থ জনগোষ্ঠী - আর ইমিউনিটির অর্থ রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতা - সমাজের বেশিরভাগ মানুষের শরীরে যখন কোনও বিশেষ ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়ার ক্ষমতা তৈরি হয়ে যায়, আর বাকিরাও তার সুবিধে পেতে শুরু করেন, তাকেই হার্ড ইমিউনিটি বলে - ভ্যাকসিন বা সংক্রমণের মাধ্যমে তৈরি হতে পারে হার্ড ইমিউনিটি

 খাতায়-কলমে হার্ড ইমিউনিটির দৌলতে করোনার হাত থেকে মুক্তি পাওয়া যেতে পারে। সংক্রমণের শুরুতে এই হার্ড ইমিউনিটির ভরসাতেই ছিল সুইডেন, ইংল্যান্ড, আমেরিকা, ইতালির মতো দেশ। কিন্তু একটি অঞ্চল, রাজ্য বা দেশের মধ্যে করোনার হার্ড ইমিউনিটি কীভাবে তৈরি করা যাবে? চিকিৎসা বিশেষজ্ঞরা বলছেন,

কীভাবে তৈরি হবে হার্ড ইমিউনিটি?

- করোনার ভ্যাকসিন এখনও আবিষ্কার হয়নি - কাজেই সংক্রমণের মাধ্যমেই হার্ড ইমিউনিটি তৈরি করতে হবে - চিকিৎসকদের মতে, সমাজের অন্তত ৭০% মানুষকে করোনা আক্রান্ত হতে হবে - ৭০% মানুষের শরীরে পর্যাপ্ত অ্যান্টিবডি তৈরি হলে বাকিরাও নিরাপদ

এখনও সুইডেন বা ইংল্যান্ডের পথে হাঁটেনি ভারত। অর্থাৎ করোনা মোকাবিলায় হার্ড ইমিউনিটির ভরসায় বসে থাকেনি। দেশে সংক্রমণ শুরু হতে না হতেই লকডাউন জারি করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। কিন্তু আজীবন লকডাউন বাস্তবসম্মত নয়। তাই কখনও না কখনও তালা খুলতেই হবে। ততদিনে কোনও ভ্যাকসিন না পাওয়া গেলে, হার্ড ইমিউনিটি-ই কী আমাদের পরিত্রাতা হয়ে দাঁড়াবে? স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ভারতের মতো দেশে হার্ড ইমিউনিটি বাস্তবসম্মত তো নয়ই, হার্ড ইমিউনিটি অর্জন করার চেষ্টা গ্রহণযোগ্যও নয়।

 ‘অবাস্তব’ হার্ড ইমিউনিটি?

- ভারতের জনসংখ্যা ১৩৫ কোটিরও বেশি - খাতায় কলমে হার্ড ইমিউনিটি তৈরি হতে হলে দেশের ৭০% মানুষকে করোনা আক্রান্ত হতে হবে - অর্থাৎ দেশের প্রায় ৯৫ কোটি মানুষের মধ্যে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়তে হবে - মোট আক্রান্তের ১০ শতাংশকে হাসপাতালে রেখে চিকিৎসার পরিকাঠামো দেশে নেই - মোট আক্রান্তের ১ শতাংশ মানুষ মারা গেলেও, প্রায় ১ কোটি প্রাণহানি হবে, যা কোনওভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়

তাই অলীক স্বপ্নের পিছনে না ছুটে, সতর্কতাই করোনা ঠেকানোর সেরা হাতিয়ার বলে মত স্বাস্থ্য় বিশেষজ্ঞদের।

Published by: Debalina Datta
First published: May 18, 2020, 10:55 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर