corona virus btn
corona virus btn
Loading

অফিস টাইমে অমিল বাস, চাহিদার তুলনায় সরকারি বাস কম শহরের বেশ কিছু রুটে 

অফিস টাইমে অমিল বাস, চাহিদার তুলনায় সরকারি বাস কম শহরের বেশ কিছু রুটে 
২১ মে থেকে রাজ্যের এক জেলা থেকে অন্য জেলাতে চলবে বাস ৷ কিন্তু সেক্ষেত্রেও মানতে হবে সুরক্ষাবিধি ৷ Representational Image

যে কয়েকটি রুটে এই সমস্যা দেখা গিয়েছে সেখানে বাসের সংখ্যা বাড়বে বলেই পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য পরিবহণ নিগম সূত্রে খবর।

  • Share this:

#কলকাতা: চাহিদার তুলনায় কম বাস। তার জেরে সোমবার সকাল থেকে কলকাতার একাধিক জায়গার বাস স্ট্যান্ডে দেখা গেল লম্বা লাইন। সমস্যার কথা কানে গিয়েছে রাজ্য পরিবহণ দফতরের আধিকারিকদের কাছেও। যে কয়েকটি রুটে এই সমস্যা দেখা গিয়েছে সেখানে বাসের সংখ্যা বাড়বে বলেই পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য পরিবহণ নিগম সূত্রে খবর। লকডাউনের মধ্যেও একাধিক জরুরি পরিষেবা সংক্রান্ত অফিস খোলা। যার ফলে একাধিক মানুষ কাজের জন্য রাস্তায় বেরোচ্ছেন।

মানুষের যাতায়াতের জন্য ভরসা সেই সরকারি গণ পরিবহণ। এদিন সকাল থেকে কলকাতার জন্য প্রস্তুত রাখা হয়েছিল ৬৫০ সরকারি বাস। যদিও সকাল থেকে কলকাতার ১৫টি রুটে ১৬টি করে বাস দেওয়া হয়েছিল। মোট ২৪০টি বাস দিয়ে চলছিল পরিষেবা। অফিস টাইমে সকাল থেকে অবশ্য হাওড়া থেকে গড়িয়া, হাওড়া থেকে কামালগাজি ও ডানলপ থেকে বালিগঞ্জ রুটের বাসের ব্যাপক চাহিদা লক্ষ্য করা যায়। অফিস টাইমে আধ ঘণ্টা অন্তর বাসের পরিষেবার জন্য লাইন দীর্ঘ হতে থাকে৷ যেহেতু সামাজিক দুরত্ব মেনে বাসে ২০ জনের বেশি যাত্রী তোলা হচ্ছে না তাই ভিড় বাড়লেও যাত্রীদের সুরাহা হয়নি।

ডানলপে দীর্ঘক্ষণ বাস না পেয়ে দাঁড়িয়ে থাকা এক যাত্রী প্রিয়াঙ্কা কর জানান, "ভেবেছিলাম বেসরকারি বাস চলবে। কিন্তু তারা চালাল না। সরকারি বাসে ২০ জনের বেশি উঠতে দিচ্ছে না। এদিকে এত লোক সেই অনুযায়ী বাস নেই। ফলে এই গরমে কষ্ট করে দাঁড়িয়ে থাকতে হচ্ছে।" একই অভিযোগ প্রসেনজিত দাসের। হাওড়া থেকে গড়িয়া যাবেন তিনি কাজে। যদিও বাস না থাকায় অনেক সময় অপেক্ষা করতে হয়েছে তাকেও। তিনি জানান, "গত কয়েকদিন ধরে এই রুটে প্রচুর যাত্রী। সেই অনুপাতে বাস নেই। সরকারের উচিত আমাদের বাস বাড়ানো।" যাত্রীদের এই অসুবিধার কথা বিভিন্ন ডিপো মারফত জানতে পারেন পরিবহণ দফতরের আধিকারিকরা।

পশ্চিমবঙ্গ  পরিবহণ নিগম সূত্রে খবর, "সোমবার সকালে অফিস টাইমে অসুবিধার কথা জানতে পেরে বাস বাড়ানো হয়েছে। নবান্নের সঙ্গে আলোচনা করে বাসের রুট, সংখ্যা ও ব্যবধান যাতে বাড়ানো যায় সেই চেষ্টা করা হচ্ছে।" তবে দফতর সূত্রে খবর, একাধিক জায়গায় লকডাউনের জন্যে চালক ও কন্ডাক্টর এসে পৌঁছতে পারেনি। তাদেরকেও আনার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। সকাল থেকে অবশ্য কলকাতার রাস্তায় দেখা গেল অ্যাপ ক্যাব ও হলুদ ট্যাক্সি। যদিও বেশি ভাড়া নিতে না দেওয়ায় যত সংখ্যক ট্যাক্সি শহরে সোমবার রাস্তায় নামার কথা ছিল তা আর হয়নি। বহু অ্যাপ ক্যাব রাস্তায় থাকলেও বুকিং মেলেনি। তবে হাওড়া ও বালিগঞ্জ, শ্যামবাজার চত্বর থেকে ফোন মারফত ক্যাব বুকিং ভালই হয়েছে বলে সূত্রের খবর। রাজ্য পরিবহণ দফতর জানাচ্ছে ধাপে ধাপে চালু হবে ফেরি ব্যবস্থা ও এক কামরার ট্রাম।

Published by: Siddhartha Sarkar
First published: May 18, 2020, 12:36 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर