corona virus btn
corona virus btn
Loading

শিকেয় সামাজিক দূরত্ব! লকডাউনের আগে বাজারে হামলে পড়লেন বাসিন্দারা

শিকেয় সামাজিক দূরত্ব! লকডাউনের আগে বাজারে হামলে পড়লেন বাসিন্দারা
দেখলে আঁতকে উঠতে হয়! বর্ধমানে নিয়মভঙ্গের এই ছবিটা করোনার সময়েরই।

লকডাউনের আগে বাজারে এই ভিড় দেখেই চিন্তিত বিশেষজ্ঞরা।

  • Share this:

#পূর্ব বর্ধমান: বৃহস্পতি ও শুক্রবার লকডাউন। তারই আগে আজ বর্ধমানের বাজারে হামলে পড়লেন বাসিন্দারা। সকাল থেকেই শহরের মাছ ও সবজি বাজারগুলিতে ক্রেতাদের থিকথিকে ভিড় লক্ষ্য করা গেল। অন্যান্য দোকানগুলোতেও ছিল নজরকাড়া লোক সমাগম। অফিস টাইমেও শহরের বাজার এলাকাগুলি সরগরম থাকলো। শহরের বিসি রোড, বড়বাজার, খোসবাগান, বীরহাটা, পার্কাস রোডে যানজটে দুর্ভোগে পড়েন অনেকেই। শিকেয় উঠলো সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার সচেতনতা।

লকডাউনের আগে বাজারে এই ভিড় দেখেই চিন্তিত বিশেষজ্ঞরা। তাঁরা বলছেন, করোনার সংক্রমণ ঠেকাতেই আগামী দুদিন লকডাউন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তাই এই সময় যে বিশেষ ও জরুরি প্রয়োজন ছাড়া এভাবে বাজারে বের হওয়া একদমই উচিত নয় সে কথা হয়তো ভুলে গিয়েছেন বাসিন্দারা। এর পরিণতিতে সংক্রমণ আরও দ্রুতগতিতে ছড়াতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন তাঁরা। বিফলে যেতে পারে লকডাউন।

পূর্ব বর্ধমানের জেলাশাসক বিজয় ভারতী বলেন, লকডাউনের পাশাপাশি এই শহরে দোকান বাজার খোলা বন্ধে বেশ কিছু বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। বিকেল পাঁচটার পর শহর শুনশান হয়ে যাচ্ছে। কিন্তু তার আগে যে ভিড়  হচ্ছে তা কিন্তু চিন্তার বিষয় হয়ে দাঁড়াচ্ছে। এই ভিড় কমানোর ব্যাপারে প্রতিনিয়ত মাইকে ঘোষণা করা হচ্ছে। তাতেও একশ্রেণীর বাসিন্দাদের মধ্যে কোনও হেলদোল লক্ষ্য করা যাচ্ছে না।

এদিন সকাল থেকেই বর্ধমান স্টেশন বাজার, রানীগঞ্জ বাজার, তেঁতুলতলা বাজার,পুলিশ লাইন বাজার,কালনা গেট বাজার, কলেজ মোড় বাজার, নীলপুর বাজারে ঠাসাঠাসি ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। বাসিন্দারা বলছেন, আগামী দু দিন কোনও বাজার বসবে না। মাছ সবজি কিছুই পাওয়া যাবে না। তারপর আবার শনিবার পার হলেই রবিবার শহরের দোকান বাজার বন্ধ থাকবে। তাই হেঁসেল চালাতে প্রয়োজনীয় যা কিছু তা এই দিনে কিনে নিতে হচ্ছে। শহরের বাসিন্দাদের এই ভিড়ে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার সচেতনতা শিকেয় উঠলো। একে অপরের গা ঘেঁষাঘেঁষি করে আলু,পটল, ঝিঙে, লাউ কিনলেন। গা ঘেঁষাঘেঁষি করে দাঁড়িয়ে চলল মাছের দর কষাকষি। অনেকের মুখে ভালো ভাবে মাস্ক থাকল না। কারও ফেস কভার ঝুলল গলায়, কারও আবার ঠোঁটের নীচে। সব মিলিয়ে করোনার গোষ্ঠী সংক্রমণ চলা সত্বেও এ শহরের বাসিন্দারা যে সচেতন নন তার পরিচয় মিলল পদে পদে।

Published by: Pooja Basu
First published: August 19, 2020, 12:52 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर