corona virus btn
corona virus btn
Loading

মাস্কের কালোবাজারি! সুতির কাপড়ে মাস্ক বানিয়ে চলছে করোনার সঙ্গে লড়াই

মাস্কের কালোবাজারি! সুতির কাপড়ে মাস্ক বানিয়ে চলছে করোনার সঙ্গে লড়াই

প্রত্যন্ত গ্রামের এই গরীবের মাস্কম্যানের লড়াই কোনো অংশে কম নয়। করোনা সতর্কতায় অত্যন্ত প্রয়োজনীয় এই ফ্রি মাস্ক এখন কোচবিহারের খাপাইডাঙ্গা গ্রামের মুখে মুখে।

  • Share this:

#কোচবিহার: অভাবের সাথে নিত্য লড়াই করে যারা ক্লান্ত তাদের কাছে করোনার গ্রাস থেকে রক্ষা পেতে একটা মাস্ক কেনাই ব্যায় সাপেক্ষ। নিজের পরিবারের জন্য প্রয়োজন থাকলেও চড়া দামে মাস্ক কেনা সম্ভব হয়নি দিনমজুর কলেজ পড়ুয়ার। তাই কাপড় কিনে বাড়ির শেলাই মেশিনে বানিয়ে ফেলেন মাস্ক। নিজের পরিবার তো বটেই সেই মাস্ক এখন তুলে দিচ্ছেন বিনামূল্যে গ্রামবাসীদের হাতে। হিন্দি সিনেমার প্যাডম্যানের মত প্রত্যন্ত গ্রামের এই গরীবের মাস্কম্যানের লড়াই কোনো অংশে কম নয়। করোনা সতর্কতায় অত্যন্ত প্রয়োজনীয় এই ফ্রি মাস্ক এখন কোচবিহারের খাপাইডাঙ্গা গ্রামের মুখে মুখে।

কোচবিহারের পলিটেকনিক কলেজের মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং এর তৃতীয় বর্ষের ছাত্র বিশ্বজিত দেবনাথ। বাবা মা ও বোনকে নিয়ে থাকেন কোচবিহার ২ ব্লকের খাপাইডাঙ্গা গ্রামে। অভাবের সংসারের হাল ধরতে পড়ার ফাকে দিনমজুরির কাজ করেন বিশ্বজিত। সপ্তাহে দু থেকে তিন দিন বাড়িতে মেঝের পাথর বসানোর কাজ করতে হয় তাকে৷ সম্প্রতি করোনা সংক্রমন রোধে প্রয়োজনীয় মাস্ক কিনতে বাজারে গিয়ে মাস্ক নিয়ে কালোবাজারি দেখে রিতিমত চমকে উঠেছিলেন বিশ্বজিত। চড়া দামে মাস্ক না কিনে সুতির কাপড় কিনে ফিরে এসেছিলেন বাড়ি। ঘরের সেলাই মেশিন দিয়ে এরপর নিজেই বানিয়ে ফেলেন মাস্ক। প্রথমে পরিবারের জন্য। পরে সেই মাস্ক বিনামূল্যে তুলে দিতে শুরু করেছেন গ্রামেও।

বিশ্বজিত বলেন, যারা অত্যন্ত গরীব তারা এই করোনা সংক্রমনের মধ্যে মাস্কের প্রয়োজন হলেও তা কিনতে পারছেন না অর্থাভাবে। নিজের অভিজ্ঞতা থেকে উপলদ্ধি করে তাই মাস্ক বানিয়ে বিনামূল্যে গ্রামের গরীব মানুষের হাতে তুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এখনও প্রায় তিনশ মাস্ক তুলে দিয়েছি গ্রামবাসীদের হাতে৷ কোচবিহার শহরের বেশ কিছু ওয়ার্ডেও তার এই ফ্রি মাস্ক হাসিমুখে নিয়েছেন অনেকেই। প্রায় এক হাজারের বেশি অসহায় গরীব মানুষের হাতে এই মাস্ক তুলে দেওয়ার পন করেছেন যুবক।

First published: March 26, 2020, 6:03 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर