করোনা ভাইরাস

?>
corona virus btn
corona virus btn
Loading

শরীরচর্চা, বাড়ির কাজ, সোশ্যাল মিডিয়া, লকডাউনে কেমন দিন কাটছে মনোজ-দীপের ? দেখে নিন

শরীরচর্চা, বাড়ির কাজ, সোশ্যাল মিডিয়া, লকডাউনে কেমন দিন কাটছে মনোজ-দীপের ? দেখে নিন

বাড়িতে বসেই এখন পরিবারের সঙ্গে সময় কাটাচ্ছেন বাংলার দুই তারকা ক্রিকেটার দীপ দাশগুপ্ত এবং মনোজ তিওয়ারি ৷

  • Share this:

#কলকাতা: ক্রিকেট থেকে তো দূরেই ৷ বাকি কোনও কাজকর্মই এখন করা সম্ভব হচ্ছে না ৷ সারাদিন বাড়িতে আর কারই বা ভাল লাগে ৷ কিন্তু লকডাউনে চাইলেও যে কিছু করার উপায় নেই ৷ বাড়িতে বসেই এখন পরিবারের সঙ্গে সময় কাটাচ্ছেন বাংলার দুই তারকা ক্রিকেটার দীপ দাশগুপ্ত এবং মনোজ তিওয়ারি ৷

দীপ খেলা ছেড়েছেন অনেকদিন হল ৷ কিন্তু টিভি চ্যানেলে ধারাভাষ্যকারের ভূমিকায় তিনি বরাবরই অ্যাক্টিভ ৷ লকডাউনে বাড়িতে বসে এখন নিজের ওয়েবসাইট তৈরির দিকেই নজর দিয়েছেন দীপ ৷ উদ্দেশ্য, অনলাইনে ক্রিকেট কোচিং ক্লাস শুরু করা ৷ পরিচালক মৌমিতা চক্রবর্তীকে দেওয়া এক ভিডিও সাক্ষাৎকারে দীপ জানিয়েছেন, সময়ের অভাবে নিজের ওয়েবসাইট তৈরির কাজ হয়ে উঠছিল না ৷ এখন লকডাউনে সময় যখন পেয়েছেন, তখন তা নিয়েই ব্যস্ত থাকতে চাইছেন দীপ ৷ পাশাপাশি সোশ্যাল মিডিয়ায় খুব বেশি অ্যাক্টিভ নন তিনি ৷ বাড়িতে কাজ দীপ বরাবরই করে থাকেন, তাই লকডাউনে কী কী করছেন, তা নিয়ে নতুন করে সোশ্যাল মিডিয়ায় ছবি বা ভিডিও পোস্টে খুব বেশি আগ্রহী নন বাংলা ও ভারতীয় দলের এই প্রাক্তন উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান ৷

দীপ নিজে সোশ্যাল মিডিয়ায় অ্যাকটিভ না হলেও তাঁর স্ত্রী অমৃতা কিন্তু ‘টিকটক স্টার’-ই বলা যেতে পারে ৷ মাঝেমধ্যে স্ত্রীয়ের সঙ্গে কিছু টিকটক ভিডিও করেছেন ঠিকই ৷ কিন্তু অ্যাকটিং বা ভিডিওতে ‘লিপসিঙ্ক’ করাতে তিনি বিশেষ পারদর্শী নন বলেই জানিয়েছেন দীপ ৷

পাশাপাশি বাড়িতে বসে বোর হলেও এই সময় প্রাক্তন বাংলা অধিনায়ক মনোজ তিওয়ারি এইটুকু ভালমতোই বুঝেছেন, যে বাড়ির সব কাজ করাটা কোনও অংশেই কম কঠিন নয় ৷ মনোজের মতে, আমরা নিজেদের স্ত্রী বা মা-কে বাড়ির কাজের জন্য অনেকসময়েই তেমন গুরুত্ব দিই না ৷ ‘টেকেন ফর গ্রান্টেড’ তাঁরা অনেক সময়েই হন ৷ কিন্তু এখন বুঝতে পারছি প্রতিদিন বাড়ির কাজগুলি করাও কতটা কঠিন ৷ বাড়িতে ট্রেডমিলে শরীরচর্চা করার পাশাপাশি পরিবারের সঙ্গেই এখন সুন্দর সময় কাটাচ্ছেন মনোজ ৷ লকডাউন উঠলে প্রথমেই যেতে চান ইডেনে ৷ বেশ খানিকক্ষণ মাঠেই কাটাতে চান তিনি ৷

Published by: Siddhartha Sarkar
First published: May 19, 2020, 1:33 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर