অসুস্থ শিশুকে নিয়ে হাসপাতালে-ফুটপাথবাসীদের খাবার, বামনগোলা দেখল অন্য পুলিশ

বামনগোলা পুলিশ

সারাবছর অপরাধী ধরতে ব্যস্ত পুলিশ এখন কোথাও কোনও মানুষ কোনও রকম সমস্যায় পড়লেই ছুটে যাচ্ছে। শনিবার দিনভর পুলিশের এমনই ভূমিকায় দেখা গেল মালদহের প্রত্যন্ত থানা বামনগোলা এলাকায়।

  • Share this:

#বামনগোলা: লকডাউন পরিস্থিতিতে উর্দিধারী পুলিশের কাজই যেন বদলে গিয়েছে। চোর-ডাকাত ধরা, আইনশৃঙ্খলা রক্ষার থেকেও বড় হয়ে দাঁড়িয়েছে বিপন্ন মানুষের পাশে দাঁড়ানো।

সারা বছর অপরাধী ধরতে ব্যস্ত পুলিশ এখন কোথাও কোনও মানুষ কোনও রকম সমস্যায় পড়লেই ছুটে যাচ্ছে। শনিবার দিনভর পুলিশের এমনই ভূমিকায় দেখা গেল মালদহের প্রত্যন্ত থানা বামনগোলা এলাকায়। কখনও গুরুতর অসুস্থ শিশুকে রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে পুলিশের ভ্যান ছুটল হাসপাতালের উদ্দেশ্যে । কখনও টোটোতে খাবার মজুত করে রাস্তায় রাস্তায় ঘুরে বেরিয়ে বিপন্ন ফুটপাতবাসীদের  খাবার দিল উর্দিধারীরা।

এখানেই শেষ নয় আমজনতার অতন্দ্র প্রহরী পথকুকুররাও খাবার পেল পুলিশের উদ্যোগে। মালদহের সীমান্তবর্তী থানা বামন গোলা এলাকার বড় অংশ বাংলাদেশ সীমান্ত ঘেঁষা। এখানে বেশিরভাগ বাসিন্দা কৃষিজীবী, জনমজুর৷ অত্যন্ত গরিব। বেশকিছু এলাকায় রয়েছে সাঁওতাল জনগোষ্ঠী ও আদিবাসী সম্প্রদায়ের বসবাস। যাঁদের বড় অংশের মানুষের সারাবছরই নুন আনতে পান্তা ফুরায় দশা।

সাম্প্রতিক লকডাউন পরিস্থিতিতে এদের জীবনযাপন আরও দুরহ হয়েছে। এই অবস্থায় ত্রাতার ভূমিকায় বামন গোলা থানার পুলিশ। শনিবার সকালে বামনগোলা থানার পাউল এলাকায় গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ে এক কোলের শিশু । তাকে হাসপাতালে নিয়ে যেতে পারছিলেন না পরিবারের লোকজন । রাস্তায় যানবাহন না থাকায় ওই শিশু ও পরিবারের লোকজনকে নিজের গাড়িতে রাস্তা থেকে তুলে নেন বামন গোলা থানার ওসি অভিষেক তালুকদার। এরপর তাঁদের স্থানীয় মুদিপুকুর হাসপাতলে পৌঁছানোর ব্যবস্থা করেন থানার ওসি। পিছিয়ে নেই থানার অন্যান্য পুলিশ অফিসার এবং কর্মীরাও। ওসির নির্দেশে দুপুর হতেই টোটো তে চাল-ডাল, তেল, আলু নিয়ে পুলিশ ও সিভিক ভলান্টিয়াররা বের হন থানা থেকে। এরপর রাস্তায় ঘুরে ঘুরে হতদরিদ্র মানুষদের হাতে খাবার তুলে দেওয়া হয়। পুলিশের নজর থেকে বাদ পড়েনি পথ কুকুররা রাও। বিভিন্ন রাস্তার মোড়ে তাদেরকেও খাবার দেওয়ার ব্যবস্থা করে পুলিশ। পুলিশের ভূমিকায় খুশি বামনগোলার মানুষ।

SEBAK DEB SARMA

Published by:Arindam Gupta
First published: